ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯, ১২ চৈত্র ১৪২৫, ১৮ রজব ১৪৪০ হিজরী।

শান্তি ও সমৃদ্ধির পথ ইসলাম

আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে সুসম্পর্ক

আল্লামা মুহিব খান | প্রকাশের সময় : ১৫ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম | আপডেট : ১২:০৩ পিএম, ১৫ মার্চ, ২০১৯

মহান রাব্বুল আলামীন তাঁর প্রিয় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে দুনিয়ায় পাঠানোর মাধ্যমে মানবজাতিকে সত্যিকার অর্থে মানবীয় শিষ্টাচার ও গুণাবলি শিক্ষা দিয়েছেন। শুধু আধ্যাত্মিক ও পারলৌকিক জ্ঞান নয়, জাগতিক এবং সামাজিক সকল কল্যাণকর বিষয়কে বিশেষ গুরুত্বসহকারে নিজের কথায়, কাজে প্রমাণিত ও প্রতিষ্ঠিত করে উম্মতকে নির্দেশ ও উৎসাহ দিয়েছেন আঁ-হযরত সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম।
দুনিয়াতে কোনো মানুষই স্বাভাবিক অবস্থায় একা নয়। তার পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়-স্বজন নিকটের হোক বা দূরের, কমবেশি থাকবেই। এই আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সর্বাবস্থায় সুসম্পর্ক ও সদ্ব্যবহার রক্ষা করতে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কঠোর নির্দেশ রয়েছে। নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর বিভিন্ন হাদীসে বারবার এ বিয়য়ে তাগিদ দেওয়া হয়েছে। সতর্ক করা হয়েছে এ নির্দেশ অমান্য ও অগ্রাহ্যকারীর শাস্তির ব্যাপারেও।
নিন্মোক্ত হাদীসে আত্মীয়তার বন্ধন রক্ষা করাকে ঈমানী দায়িত্ব বলে উল্লেখ করা হয়েছে। হাদীসটি এই রূপ : হযরত আবু হুরায়রা রাযি. থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি আল্লাহ ও আখেরাতে বিশ্বাস রাখে সে যেন তার মেহমানকে সম্মান করে, যে ব্যক্তি আল্লাহ ও আখেরাতে বিশ্বাস রাখে সে যেন আত্মীয়তার বন্ধন ঠিক রাখে এবং যে ব্যক্তি আল্লাহ ও আখেরাতে বিশ্বাস রাখে সে যেন বলতে চাইলে ভালো কিছু বলে, নতুবা চুপ থাকে।-সহীহ বুখারী ও মুসলিম
হাদীসটির বক্তব্যে আল্লাহ ও আখেরাতের ওপর বিশ্বাস রাখা অর্থাৎ ঈমানদার হওয়ার সঙ্গে আত্মীয়তা রক্ষার কাজটিকেও যুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ এটি যেকোনো ঈমানদার মানুষের দায়িত্ব তো বটেই অন্য অর্থে এটি ঈমান পূর্ণ হওয়ার শর্তও যেন। আরও ব্যাপক অর্থে এ হাদীস দ্বারা এ ইঙ্গিতটিও স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে, আল্লাহ ও আখেরাতে বিশ্বাসী ব্যক্তির বুঝে নিতে হবে যে, আত্মীয়তার বন্ধন ছিন্নকারীর ব্যাপারে আল্লাহ দৃষ্টি রাখছেন এবং আখিরাতেও এর হিসাব ও বিচার রয়েছে।
আর এ জন্যই আল্লাহ ও আখিরাতের ওপর বিশ্বাস রাখার কথাটি সতর্কবাণীর মতো উল্লেখ করা হয়েছে। অর্থাৎ আল্লাহ ও আখেরাতে বিশ্বাসী মানুষের জন্য আত্মীয়তার সম্পর্ক সুরক্ষার কাজটি অপরিহার্য। অপর এক হাদীসে স্বয়ং আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের সঙ্গে বান্দার সম্পর্ক থাকা না-থাকার জন্যও এই আত্মীয়তার সম্পর্ক অক্ষুণ্ন রাখা না রাখাকে শর্ত ও কারণ বলে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত করা হয়েছে।
হযরত আবু হুরায়রা রাযি. এর বর্ণনায় নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আল্লাহ তাআলা তাঁর সৃষ্টিকে সৃষ্টি করলেন, যখন তা সমাপ্ত করলেন তখন ‘আত্মীয়তার বন্ধন’ (বিশেষ স্থানে) দাঁড়িয়ে বলল, হে আল্লাহ, যারা আত্মীয়তার বন্ধন ছিন্ন করা থেকে আপনার কাছে আশ্রয় চায়, এটি কি তাদের স্থান?
আল্লাহ তাআলা বললেন, হ্যাঁ। তারপর তিনি আত্মীয়তার বন্ধনকে প্রশ্ন করলেন, তুমি কি এটা চাও যে, যারা তোমাকে অক্ষুণ্ন রাখে, আমিও তাদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক অক্ষুণ্ন রাখি। আর যারা তোমাকে ছিন্ন করবে, আমিও তাদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ছিন্ন করে দিই? আত্মীয়তার সম্পর্ক জবাব দেয়, হ্যাঁ, অবশ্যই। তখন আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করলেন, ঠিক আছে। তা-ই করা হবে। তোমার দাবি রক্ষা করা হবে।-সহীহ বুখারী ও মুসলিম
হাদীসটি আংশিক উল্লেখ করা হলো। সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহি সুবহানাল্লাহিল আযীম। ভাবলেই গা শিউরে ওঠে। স্বয়ং আল্লাহ এই ‘আত্মীয়তার সম্পর্ক’ বিষয়টি বা এই বোধ ও অনুভ‚তিটি সৃষ্টি করেছেন এবং তা মানুষের ওপর আবশ্যিক করে দিয়েছেন। কঠোর সিদ্ধান্ত। পৃথিবীতে যে মানুষ এই ‘আত্মীয়তার বন্ধন’ অক্ষুণন্ন রাখবে, তার সঙ্গে আল্লাহর সম্পর্কও অক্ষুণœ থাকবে, নতুবা ছিন্ন হয়ে যাবে। এরপরও আল্লাহর এই অমোঘ বিধানকে অবহেলা করার কোনো সুযোগ এই অতি তুচ্ছ ও ক্ষুদ্র মানুষের আছে কি?
এই বিষয়ে হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাযি. থেকে বর্ণিত অপর একটি হাদীসে রয়েছে। তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, আত্মীয়তার সম্পর্ক আল্লাহর আরশের সঙ্গে ঝুলে থেকে বলতে থাকে, যে আমাকে জুড়ে রাখল, আল্লাহ তাকে জুড়ে রাখুন। আর যে আমাকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলল, আল্লাহও তাকে বিচ্ছিন্ন করে দিন।-সহীহ মুসলিম

সর্বমোট মন্তব্য (6)
সাহেদ শফি ১৫ মার্চ, ২০১৯, ২:৫০ এএম says : 0
শরয়ী বিধান অনুযায়ী আত্মীয়স্বজনের প্রত্যেকের আলাদা আলাদা হক বা অধিকার রয়েছে। তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখা ওয়াজিব। শরয়ী কারণ ছাড়া আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করা সম্পূর্ণ হারাম।
Total Reply(0)
মুফতি হেলাল উদ্দীন হাবিবী ১৫ মার্চ, ২০১৯, ২:৫০ এএম says : 0
যদি কোনো আত্মীয় অসহায়, গরিব বা মূর্খও হয় তবু তার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে হবে, তাকে সাহায্য-সহযোগিতা করতে হবে এবং তাকে ভালোবাসতে হবে হৃদয়ের গভীর থেকে। যে ব্যক্তি শুধু সম্পদশালী ও প্রতাবশালী স্বজনদের সঙ্গে সম্পর্ক রাখে কিন্তু অসহায় গরিব স্বজনদের এড়িয়ে চলে, তাদের খোঁজখবর নেয় না, তাদের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখে না, সে মুমিন হতে পারে না।
Total Reply(0)
কবির হোসাইন ১৫ মার্চ, ২০১৯, ২:৫১ এএম says : 0
আসুন আমরা আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টি ও সান্নিধ্য লাভের আশায় আত্মীয়তার সম্পর্ক বজায় রাখি এবং তাদের অধিকারের প্রতি যত্নবান হই। পারস্পরিক বন্ধনকে আরও অটুট করি। মহান আল্লাহতায়ালা আমাদের তৌফিক দান করুন। (আমিন)।
Total Reply(0)
হাবিবুর রহমান ১৫ মার্চ, ২০১৯, ২:৫২ এএম says : 0
আধুনিক সভ্যতায় ব্যক্তিকেন্দ্রিক জীবনে পিতা-মাতা ও আত্মীয়-স্বজনদের প্রতি অবহেলা সীমাহীন। ফলে আমাদের মাঝ থেকে শ্রদ্ধা, স্নেহ, মমতা, ভালোবাসা ইত্যাদি লোপ পাচ্ছে এবং পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধন নষ্ট হচ্ছে। অথচ পিতা-মাতা ও আত্মীয়-স্বজন হক আদায় করা একজন মুমিনের জান্নাত লাভের অন্যতম মাধ্যম হতে পারে এ ব্যাপারটি অনুধাবন করা সকলের জন্য একান্ত জরুরি।
Total Reply(0)
মাহফূযুল হক ১৫ মার্চ, ২০১৯, ২:৫২ এএম says : 0
ইহকালীন ও পরকালীন সুখ-শান্তির জন্য আত্মীয়দের সঙ্গে সুসম্পর্ক ও সদ্ভাব বজায় রাখতে হবে। এটা ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ মানবিক শিক্ষা।
Total Reply(0)
বুলবুল আহমেদ ১৫ মার্চ, ২০১৯, ২:৫৩ এএম says : 0
‘নিকটাত্মীয়রা সুসম্পর্ক রাখায় যে ব্যক্তি তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখে সে প্রকৃতপক্ষে সম্পর্ক রক্ষাকারী নয়। বরং নিকটাত্মীয়রা সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করার পরেও যে ব্যক্তি তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক ধরে রাখে সে-ই প্রকৃতপক্ষে সম্পর্ক রক্ষাকারী।’ –সহিহ বোখারি: ৫৯৯১
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন