ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণে আনার সরকারি তৎপরতা বিপজ্জনক -৮ বাম দল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ নভেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

বিচারবিভাগের অবশিষ্ট স্বাধীনতা খর্ব করে বিচার বিভাগ নিয়ন্ত্রণে সরকার ও সরকারি দলের সা¤প্রতিক তৎপরতাকে ‘খুবই বিপজ্জনক ও অশনিসংকেত’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন আট বাম রাজনৈতিক দলের পনতৃবৃন্দ। তারা বলেছেন, বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণে আনার সরকারি তৎপরতা খুবই বিপজ্জনক ও অশনিসংকেত। কুৎসা, চাপ ও হুমকি প্রদান করে প্রধান বিচারপতিকে যেভাবে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে তা বিচার বিভাগের অবশিষ্ট স্বাধীনতাকে ধ্বংস করবে। দেশে ফ্যাসিবাদের বিপদ বাড়িয়ে দেবে। নেতৃবৃন্দ সরকারের এসব অগণতান্ত্রিক তৎপরতার বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে দেশবাসির প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।
গতকাল সোমবার সিপিবি-বাসদ ও গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার এক সভায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এ কথা বলেন। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, সরকারের এ ধরণের অশুভ তৎপরতা গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে বিচার বিভাগকে নির্বাহী বিভাগ তথা সরকারের অনুগত প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিয়ে যাওয়ারই এক স্বৈরতান্ত্রিক উদ্যোগ। সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়কে কেন্দ্র করে প্রধান বিচারপতিকে প্রথমে ছুটিতে যেতে ও তারপর তাকে যেভাবে পদত্যাগে বাধ্য করা হলো তা সরকারের চরম অসহিঞ্চু ও অগণতান্ত্রিক চরিত্রেরই বহিঃপ্রকাশ। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পূর্বেই রায় প্রকাশের পর থেকে সরকার ও সরকারি দলের নীতিনির্ধারকরা শালিনতার সব সীমা লংঘন করে যেভাবে প্রধান বিচারপতি সম্পর্কে কুৎসা, চরিত্রহনন, কথিত মামলার প্রস্তুতি, চাপ ও হুমকি প্রদান করে এসেছেন তাতে দেশবাসীর কাছে স্পষ্ট হয়েছে যে, প্রধান বিচাররপতিকে পদত্যাগে বাধ্য করানো হয়েছে। সরকারের এই তৎপরতা একদিকে বিচার বিভাগের স্বাধীনতায় কুঠরাঘাত আর অন্যদিকে বিচার বিভাগের প্রতি মানুষের শেষ আস্থাটুকুকেও ধ্বংস করবে। বিচারবিভাগসহ সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানসমূহকে প্রকারান্তরে নির্বাহী বিভাগের অধীনস্ত কবার এসব পদক্ষেপ দেশে ফ্যাসিবাদী শাসন ও তার বিপদ কেবল আরো বাড়িয়ে দেবে।
সিপিবি’র সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমের সভাপতিত্বে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই সভায় বক্তব্য রাখেন বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, বাসদের (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নেতা শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন নান্নু, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু এবং জোটের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন, রুহিন হোসেন প্রিন্স, বজলুর রশিদ ফিরোজ, বহ্নিশিখা জামালী, আকবর খান প্রমুখ।
২২ নভেম্বর দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশ
নিয়ন্ত্রণহীন মূল্যবৃদ্ধি, বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারা ও দৈনন্দিন জীবনের নৈরাজ্য-সন্ত্রাস-সংকটের প্রতিবাদে আগামী ২২ নভেম্বর ঢাকাসহ দেশব্যাপী বিক্ষোভ-সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। এর অংশ হিসেবে ওই দিনে বিকেল ৪টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন