বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৪ বৈশাখ ১৪৩১, ০৭ শাওয়াল ১৪৪৫ হিজরী

মহানগর

রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের জনসভা রাজশাহীর উন্নয়নে অবিলম্বে দশ দফা বাস্তবায়ন দাবি

প্রকাশের সময় : ২১ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

রাজশাহী ব্যুরো : আগামী জাতীয় বাজেটে রাজশাহী অঞ্চলের উন্নয়নে প্রয়োজনীয় প্রকল্প অন্তর্ভুক্তসহ ১০ দফা দাবি জানিয়েছে রাজশাহীর সামাজিক সংগঠন রাজশাহী রক্ষা পরিষদ। গতকাল সকালে নগরীর গণকপাড়া তুলাপট্টি মোড়ে অনুষ্ঠিত জনসভা থেকে রাজশাহীর উন্নয়নের স্বার্থে ১০ দফা দাবি তুলে ধরা হয়। দাবিসমূহের মধ্যে রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রæত রাজশাহীতে বন্ধ গ্যাস সংযোগ পুনঃস্থাপন, আব্দুলপুর-রাজশাহী-রহনপুর পর্যন্ত ডুয়েল গেজ রেললাইন স্থাপন, রাজশাহী থেকে সরাসরি চট্টগ্রাম পর্যন্ত রেল যোগাযোগ সম্প্রসারণ, জনগণের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা, বন্ধ রেশম কারখানাসহ অন্যান্য কারখানা চালু, নদীভাঙন রোধ কার্যক্রম দ্রæত সম্পন্ন করা এবং গঙ্গা ব্যারাজ ও উত্তর রাজশাহী সেচ প্রকল্প অবিলম্বে বাস্তবায়ন।
রাজশাহীর মানুষের মৌলিক অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত জনসভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি লিয়াকত আলী। এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জামাত খান, সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ প্রামাণিক দেবু, আইনজীবী সমিতির সভাপতি নাজমুস সাদাত, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মনিরুজ্জামান মনি, রাবির শিক্ষক ড. সুজিত সরকার, প্রকৌশলী কবীর হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা বরজাহান আলী শাহজাহান, জালাল উদ্দিন, সংগঠনটির উপদেষ্টা ও স্থানীয় দৈনিক সোনার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হাসান মিল্লাত, ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের সভাপতি হারুনর রশিদ, রাজশাহী ব্যবসায়ী সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার আলী, রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, লোকমোর্চা রাজশাহীর পবার সভাপতি আলাউদ্দিন আল আজাদ, ব্যবসায়ী নেতা এম শরীফ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ রাজশাহী নগর সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, কেন্দ্রীয় মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সদস্য অ্যাডভোকেট মতিউর রহমান, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মামুন-অর-রশিদ, পবা উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সুফিয়া হাসান, নারী নেত্রী সেলিনা খাতুন, জাতীয় আদিবাসী পরিষদের নেতা সুভাষ চন্দ্র হেম্ব্রন, দিগন্ত প্রসারী সংঘের সহ-সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন, সাংবাদিক মুঞ্জুয়ারা খাতুন, মানবাধিকার কর্মী আইয়ূব আলী তালুকদার, সাবেক ছাত্রনেতা মনিরুজ্জামান প্রমুখ। বক্তারা নগরীর চালচিত্র উল্লেখ করে বলেন, সম্প্রতি মাদকের করাল গ্রাসে ধ্বংস হচ্ছে যুবসমাজ। ভ‚মিদস্যুদের কবলে পড়ে প্রতিনিয়ত ভ‚মির অধিকার হারাচ্ছে মানুষ, হাসপাতালের কাক্সিক্ষত চিকিৎসাসেবা মিলছে না। রাজশাহীর বিভিন্ন ভ‚মি অফিসে দুর্নীতির কারণে হয়রানির শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। এছাড়া জনসভা থেকে রাজশাহী রাজশাহীতে সিএনজি স্টেশন প্রতিষ্ঠা ও পাঁচতারা হোটেল এবং ক্রিকেটের টেস্ট ভেন্যু বাস্তবায়নের দাবি জানান।
বক্তারা বলেন, রাজশাহীতে মেডিক্যাল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ সরকারের নানা উদ্যোগ নেয়ার কথা থাকলেও গত সাত বছরেও সেগুলো আলোর মুখ দেখেনি। রাজশাহীর রেশম কারখানা ও নতুন নতুন কলকারখানা চালু না হওয়ায় এখানকার উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। জনসভা থেকে বক্তারা আগামী বাজেট অধিবেশনের আগেই রাজশাহী অঞ্চলের অতিপ্রয়োজনীয় প্রকল্প বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান। জনসভায় ভাষাসৈনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, রাজনীতিবিদ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির নেতৃবৃন্দ, আইনজীবী সমিতি, ছাত্র-ছাত্রী, বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠন এবং সুশীলসমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন