ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

শেখ হাসিনা পার্লামেন্ট রায় ঘোষণা করছে-গয়েশ্বর চন্দ্র

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩১ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

৮ ফেব্রæয়ারি খালেদা জিয়ার রায় নিয়ে সারা দেশের মানুষের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, মানুষ উদ্বিগ্ন হতো না যদি রায় আদালত ঘোষণা করতো। শেখ হাসিনা পার্লামেন্ট রায় ঘোষণা করছে বলেই মানুষ এতো উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায়। পরিস্থিতি এমন জায়গায় গেছে এরশাদ, রাঙ্গাও রায় ঘোষণা করেছেন। তারা মিষ্টির দোকানে ইতোমধ্যে অগ্রিম অর্ডারও দিয়ে রেখেছেন। তারা (আওয়ামী লীগ) বিএনপির নেতাকর্মীদের রাজপথে মোকাবেলা করবে বলেও অগ্রিম কথা বলছেন। গতকাল (মঙ্গলবার) জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে জিয়া সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৮২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
গয়েশ্বর বলেন, আওয়ামী লীগ রাজপথে মোকাবেলার কথা বলছে। কিসের মোকাবেলা? কিসের মোকাবেলা করবেন আপনারা? বিএনপি নেতাকর্মীরা কি আপনাদের আক্রমণ করতে গেছে? যখন আক্রমণ করতে যাবে তখন হয়তো প্রতিরোধের প্রশ্ন আসতে পারে। সরকারের কাছে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, আপনার (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) বিশেষ দূত এরশাদ সাহেব খালেদা জিয়াকে জেলখানায় পাঠান। তার আরেক মন্ত্রী রাঙ্গা তারিখ ‘ই’ দিয়ে দিলেন। তাহলে বিচারিক আদালতে মোহাম্মাদ আখতারুজ্জামান যে চেয়ারে বসে আছেন তার কাজটা কী? তাহলে কি তিনি শেখ হাসিনার বার্তা জনগণের কাছে সংবাদপাঠক হিসেবে পাঠ করবেন? আমরা কী এটাকে রায় হিসেবে মনে করবো। মোটেও না। কারণ এটা রায় হতে পারে না। কারণ রায় লেখার আগে যখন রায় ঘোষণা হয় সরকারের পক্ষ থেকে তাহলে আমরা বুঝে নেবো এ সরকার আদালতকে ব্যবহার করছে বিরোধী রাজনৈতিক দলকে নির্যাতনের জন্য। সুতরাং হয়তো আমাদের আবার গাইতে হবে সেই ঊনসত্তরের গগণবিদারী বাণী ‘বিচারপতি তোমার বিচার করবে যারা আজ জেগেছে সেই জনতা’।
সরকারের উদ্দেশ্যে গয়েশ্বর বলেন, আপনারা বেগম জিয়াকে জেল দেবেন, নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রাখবেন, একটু ভাবেন...। বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া ভবিষ্যতে বাংলাদেশে কোনো নির্বাচন করার সামর্থ্য আপনাদের আছে কি-না? ২০১৪ সালে তো নির্বাচন করতে পারেননি, সেটাকে নির্বাচন বলে না। কারণ আপনারা নির্বাচনে বিশ্বাস করেন না। দেশে যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয় জনগণের যদি ভোট দেয়ার সুযোগ থাকে সেই নির্বাচনে শেখ হাসিনা অংশগ্রহণ করবেন না। দিন কিন্তু বেশি নেই। জনগণ যে ধাক্কা দেবে আপনারা জনগণের যে রোষানলে পড়বেন আমাদের বিএনপির অনেক নেতাকর্মীকে তখন আপনাদের পাশে থাকতে হবে। তা না হলে এ দেশে আপনাদের বেঁচে থাকার সুযোগ থাকবে না।
আয়োজক সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. হাসানুল ইসলাম রাজার সভাপতিত্বে এবং এনডিপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈশার সঞ্চালনায় সভায় আরো বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক শিকদার, জিনাফের সভাপতি মিয়া মো. আনোয়ার, ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও’ আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন