ঢাকা বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ০৬ মাঘ ১৪২৭, ০৬ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

৩৫ হাজার যাত্রীর হজে যাওয়া অনিশ্চিত

হজযাত্রী নিবন্ধন সার্ভারে আবারো বিপর্যয় এজেন্সিগুলোর ভোগান্তি চরমে

প্রকাশের সময় : ২৮ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১:০৮ এএম, ২৮ মার্চ, ২০১৬

শামসুল ইসলাম : চলতি বছর প্রায় ৩৫ হাজার হজযাত্রীর হজে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। সউদী-বাংলাদেশ দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তির কোটার চেয়ে হজযাত্রীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল রোববার হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রমের সার্ভারে আবারো বিপর্যয় দেখা দেওয়ায় প্রায় ৮শ’ হজ এজেন্সি হজযাত্রীদের নিবন্ধন করতে না পেরে চরম ভোগান্তির কবলে পড়েন। গত ২০ মার্চ ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।
ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নিযুক্ত আইটি ফার্ম বিজনেস অটোমেশন লিমিটেড গত ২৩ মার্চ সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু করে। প্রথম দিনেই আইটি ফার্মের সার্ভারে বিপর্যয় শুরু হয়। গতকাল রোববার পর্যন্ত সাড়ে ৭শ’ বৈধ হজ এজেন্সির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনের এনআইডি সার্ভার হতে সফলভাবে ১ লাখ ২৬ হাজার ৪৩ জন হজযাত্রীর তথ্যাদি যাচাই কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। এনআইডি সার্ভার থেকে আরো ৯ হাজার হজযাত্রীর তথ্যে ত্রুটি পাওয়া গেছে। গতকাল পর্যন্ত এনআইডি সার্ভার থেকে ত্রুটিপূর্ণ ১ হাজার হজযাত্রীর সংশোধিত হয়ে এসেছে।
সউদী সরকারের কাছ থেকে বিশেষ কোটা বরাদ্দ না পাওয়া গেলে এ বছর এসব অতিরিক্ত হজযাত্রীর হজে যাওয়া সম্ভব হবে না। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সউদী হজ মন্ত্রীর সাথে জেদ্দায় ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান দ্বিপাক্ষিক হজ চুক্তি করেন। চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ১ হাজার ৭৫৮ জন হজযাত্রী এবার হজে যেতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারী ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার বাকি সব বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যাবেন। হজযাত্রীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় হাবের সভাপতি মো. ইব্রাহিম বাহার সউদী সরকারের কাছে বিশেষ কোটায় অতিরিক্ত ৩০ হাজার হজযাত্রীর হজে যাওয়ার অনুমতি চাওয়ার জন্য ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের প্রতি আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সউদী থেকে অতিরিক্ত কোটা পাওয়া না গেলে চলতি বছর এসব হজযাত্রী হজে যেতে পারবেন না বলেও হাব সভাপতি উল্লেখ করেন।

গতকাল রোববার সকাল থেকে হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হলেও সাড়ে ১১টার দিকে সার্ভারে বিপর্যয় দেখা দিলে ঢাকাসহ চট্টগ্রাম থেকে অনেক হজ এজেন্সি রাত ৮টা পর্যন্ত দফায় দফায় চেষ্টা করেও একজন হজযাত্রীর প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারেনি। এতে সার্ভার থেকে প্যামেন্ট ভাউচার সংগ্রহ করতে না পেরে হজ এজেন্সির মালিকরা বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে ধরর্ণা দিয়ে হয়রানির শিকার হয়েছে। ভুক্তভোগী একাধিক হজ এজেন্সির মালিক এতথ্য জানিয়েছেন। তারা হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম দ্রুত ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে আইটি ফার্মে অতিরিক্ত একাধিক সার্ভার চালুর জোর দাবি জানিয়েছেন। গতকাল বিকেলে কাওরান বাজারস্থ আইটি ফার্ম বিজনেস অটোমেশন লিমিটেডের প্রধান কার্যালয়ে প্রাক-নিবন্ধনের পর্যবেক্ষণ কমিটি ও কারিগরি কমিটির কর্মকর্তাগণ সার্ভার বিপর্যয়ের কারণ এবং এ সুযোগে কোনো অনিয়ম হয়েছে কিনা তা’ খতিয়ে দেখার জন্য এক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসেন। এ সময়ে আইটি ফার্ম-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল হাসান মিতুল ও প্রাক-নিবন্ধন প্রজেক্টের সিইও ও সাবেক পরিচালক হজ বজলুল হক বিশ্বাস উপস্থিত ছিলেন। পর্যবেক্ষণ কমিটি ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিস্টেম অ্যানালিস্ট  প্রাক-নিবন্ধনের কোনো অনিয়ম না হওয়ায় সন্তষ প্রকাশ করে সার্ভার দ্রুত চালু এবং সকল বিষয়ে সজাগ থাকার নিদের্শ দেন। বৈঠকে জানানো হয়, আজ সোমবার সকাল ৯টায় প্রাক-নিবন্ধনের সার্ভার পুরোদমে চালু করা হবে। সার্ভার বিপর্যয়ের কারণে নির্বাচন কমিশনের এনআইডি সার্ভার থেকে যেসব হজযাত্রীর তথ্যাদি যাচাই হয়ে আসছে তাদের মুয়াল্লেম ফি ব্যাংকে জমা দেয়ার প্যামেন্ট ভাউচার বের করে ব্যাংকে টাকা জমা দেয়া সম্ভব হয়নি। এ নিয়ে দিনভার হজ এজেন্সিগুলো চরম হতাশায় দিন কাটিয়েছে।
বাংলাদেশ হজযাত্রী ও হাজী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি আলহাজ এডভোকেট আব্দুল্লাহ আল নাসের এক বিবৃতিতে গতকালও হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রমের সার্ভার বিপর্যয় হওয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে  অনতিবিলম্বে বিজনেস অটোমেশনকে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন আরো অতিরিক্ত সার্ভার চালুর জোর দাবি জানান। বিবৃতিতে আলহাজ এডভোকেট আব্দুল্লাহ আল নাসের গতকাল থেকে প্রাক-নিবন্ধনের সার্ভার থেকে ড্যাশ বোর্ড তুলে দেওয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তা’ দ্রুত চালুর জন্য কারিগরি কমিটির প্রতি জোর দাবি জানান। অন্যথায় সার্ভারে ড্যাশ বোর্ড চালু না থাকলে হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধনের স্বচ্ছতার অভাব দেখা দিবে এবং এ নিয়ে জনমনে সন্দেহের সৃষ্টি হবে। তিনি কোটার চেয়ে হজযাত্রীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় সকল হজযাত্রীদের হজে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে সউদী সরকারের কাছে প্রয়োজনীয় অতিরিক্ত কোটা বরাদ্দের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এদিকে, আইটি ফার্মের প্রধান সমন্বয়কারী কবির আল মামুন রাতে ইনকিলাবকে জানান, সার্ভার থেকে ড্যাশ বোর্ড তুলে নেওয়া হয়নি। আজ সকাল ৯টা থেকে সার্ভার চালু হলে সকল হজ এজেন্সির মালিকই হজযাত্রীদের প্যামেন্ট ভাউচার নিয়ে ব্যাংকে টাকা জমা দিতে পারবে।     

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন