বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৮ ফাল্গুন ১৪৩০, ১০ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়ক - গর্তে জমে বর্ষার পানি চলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগ

প্রকাশের সময় : ১১ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মো. শরীফুল ইসলাম, সখিপুর (টাঙ্গাইল) থেকে

খানাখন্দে ভরা সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কসহ স্থানীয় সকল সড়ক। সখিপুর উপজেলার প্রধান সড়কসহ স্থানীয় সকল সড়ক যান চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কের সখিপুর সদর থেকে নলুয়া পর্যন্ত ৭ কিঃমিঃ সড়ক ৪ মাস পূর্বে এবং নলুয়া থেকে গোড়াই পর্যন্ত ২১ কিঃমিঃ সড়ক ৬ মাস পূর্বে সংস্কার কাজ করা হয়েছে। সড়কটি সংস্কার করার পর বর্ষা মৌসুম আসার পূর্বেই যান চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সখিপুর সদরের পোস্ট অফিসের সামনে, সিএনজি স্টেশন, পিচের মাথা, পূর্বদেশ ফিলিং স্টেশনের সামনে, ব্যুরো বাংলাদেশ অফিসের সামনে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে পুকুর হয়ে গেছে। সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কের গোড়াই পর্যন্ত ২৮ কিঃমিঃ সড়কের মধ্যে বংকী, শোলাপ্রতীমা, নলুয়া বাজার, দেওদিঘী, ছাপড়া বাজার, আমের চারা, কামারপাড়া, তক্তারচালা পুরাতন-নতুন বাজার, পেকুয়া, কাইতলা, তালতলা, বাঁশতৈল, চেয়ারম্যান বাড়ি, হোসেন মার্কেট, বটতলা, হাঁটুভাঙা বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে যানবাহন চলাচলের জন্য খুবই অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এছাড়া হাঁটুভাঙা থেকে গোড়াই পর্যন্ত খানা খন্দে ভরপুর। সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়ক ছাড়াও স্থানীয় সখিপুর-কালিয়ান-ইন্দ্রাজানি-হামিদপুর-পাথারপুর-কালমেঘা কালিদাস সড়কের বেহালদশা। উপজেলার তক্তারচালা কামালিয়া চালা-হতেয়া সড়কের করুণ অবস্থা। স্থানীয় সড়ক কচুয়া-আড়াইপাড়া, বড়চওনা-তৈলধারা, বড়চওনা-ইন্দ্রাজানি সড়কে যান বাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এমনকি সখিপুর পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের সড়কেরও বেহাল দশা। ফলে সখিপুরবাসীকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। টাঙ্গাইলের সখিপুরে একই দলের এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র থাকা সত্ত্বেও জনগণের মধ্যে কোন জবাবদিহিতা নেই। সড়কের খানাখন্দ ঠিক করার জন্য মাঝে মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতাদের আত্মীয়-স্বজন দিয়ে খানা খন্দে ইটের টুকরা ফেলে বিল তৈরি করা হয়-এই ইটের টুকরার কারণে সড়ক আরো খারাপ অবস্থার সৃষ্টি হয়। প্রধান সড়কসহ স্থানীয় সড়কে যান বাহন চলাচলের একেবারে অনুপযোগী হয়ে পড়ায় যাত্রীবাহী বাস, পণ্যবাহী ট্রাকসহ ভারী যানবাহন প্রায়শই ফেঁসে গিয়ে সড়ক পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। বাস-ট্রাক-পিকআপ স্থানীয় সড়ক উপজেলা পরিষদ-জেলখানা মোড়-সৌখিন মোড় হয়ে চলাচল করায় এ সড়কটিও চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সঙ্গত কারণে পৌরবাসীর সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কের গোড়াই পর্যন্ত হাজারো ছোট-বড় গর্তের কারণে মাঝে-মধ্যেই বাস-ট্রাক বিকল হয়ে ঢাকার সাথে সড়ক পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। নলুয়া থেকে টাঙ্গাইল সড়কের বেড়বাড়ি বাজারে মারাত্মক ৩টি গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে এসব গর্তে মালবাহী ট্রাক বিকল হয়ে একদিকে সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হচ্ছে অপরদিকে নিত্য প্রয়োজনীয় কাঁচামাল কলা, আম, বেগুন, আনারস, কাঁঠাল ও করলাসহ প্রভৃতি বিনষ্ট হচ্ছে। এ সড়কে ময়মনসিংহ, মধুপুর, ঘাটাইল, জামালপুর, কালিহাতী এলাকার লক্ষাধিক যাত্রী প্রতিদিন যাতায়াত করে থাকে। জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির বিভিন্ন খানা-খন্দকে পুঁজি করে ক্ষমতাসীন আ.লীগ ঠিকাদাররা বেগুন ক্ষেত হিসেবে কাজে লাগাচ্ছে। কিছুদিন পর পরই গর্তে ইট-খোয়া ফেলে বিল তুলে খাচ্ছে। আদৌ সড়কগুলোর সংস্কার হবে কিনা বিজ্ঞমহলের যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। শুধু তাই নয় কচুয়া-কীর্ত্তনখোলা সড়কসহ গজারিয়া, বহুরিয়া-চতল বাইদ, যাদবপুর, হাতীবান্ধা, দাড়িয়াপুর, বহেড়াতৈল, কাকড়াজান, কালিয়া ৮টি ইউনিয়নের সাথে উপজেলা সদরের যোগাযোগের সড়কগুলোরও বেহালদশা। সড়ক উপ-বিভাগ মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)-এর কার্য-সহকারী মো. গোলাম মোস্তফা বলেন, কিছুদিন পূর্বে সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কটি সংস্কার করা হলেও নিম্নমানের বিটুমিনের কারণে পুনরায় যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। উল্লেখ্য, সখিপুর-ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কের গোড়াই থেকে সখিপুর তালতলা পর্যন্ত ২৮ কিঃমিঃ সড়ক ও জনপদের এবং সখিপুর থেকে সাগরদিঘী ২০ কিঃমিঃ সড়ক এলজিইডি’র।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন