ঢাকা সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০৩ সফর ১৪৪২ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

ঝুঁকি নিয়ে নামাজ আদায়

খানসামায় পুরনো স্থাপত্য আওকর মসজিদ

খানসামা (দিনাজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৮ জুলাই, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

লোকমুখে জানা যায় ‘আওকর মসজিদ’ নামকরণের পেছনে রয়েছে এক অলৌকিক ইতিহাস! এই মসজিদের কাছাকাছি গিয়ে কেউ কথা বললে মসজিদটিও নাকি কথা বলত! অর্থাৎ কথার উত্তর ভেসে আসত! সেই থেকে মসজিদটির নাম হয় আওকর মসজিদ!
দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার মির্জার মাঠে ২৫০ বছরের পুরনো স্থাপত্য ‘আওকর’ মসজিদ। উপজেলা পরিসংখ্যানের তথ্যে পাওয়া গেছে, এ মসজিদটি ২৫২ বছর আগে ১১৭২ বঙ্গাব্দে নির্মিত। মির্জা লাল বেগ এটি নির্মাণ করেন। চিকন ইট আর চুন-সুঁড়কি ব্যবহার করে তৈরি হয়েছে মসজিদটি। এর দেয়ালে রয়েছে আকর্ষণীয় কারুকাজখচিত নকশা। মসজিদটি খানসামা উপজেলার মধ্যদিয়ে বয়ে যাওয়া বেলান নদীর পূর্ব তীরে গোয়ালডিহি ও ৩ নম্বর আঙ্গারপাড়া ইউনিয়নের মধ্যবর্তী হাসিমপুর-আংগারপাড়ার মির্জার মাঠে অবস্থিত। দীর্ঘকাল ধরে মসজিদটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকার ফলে দেয়ালের চুন-সঁড়কি দিয়ে লাগানো ২৫০ বছরের পুরনো সরু ইটগুলো খুলে গেছে অনেক জায়গায়।
সরেজমিন দেখা যায়, পুরো মসজিদের উপরের অংশ না থাকায় এবং চার দেয়ালের বিভিন্ন অংশ ভেঙে যাওয়ায় মসজিদটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। খানসামা উপজেলার এই প্রাচীন স্থাপত্য নিয়ে এর আগেও বিভিন্ন মাধ্যমে লেখালেখি এবং ঊধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে মসজিদটির মেরামতের জন্য বলা হয়েছিল। ইতোমধ্যে উপজেলা প্রশাসন থেকে প্রাচীন এই মসজিদের সংস্কারের কাজ চলছে বলেও জানা যায়। তবে এখানো বাস্তবায়ন না হলেও প্রক্রিয়াধীন অবস্থায় রয়েছে বলেও জানান কর্তৃপক্ষ।
মসজিদটি পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকার ফলে জঙ্গলে ভরে গিয়েছিল উপরের অংশসহ দেয়ালগুলো। এলাকাবাসীর উদ্যোগে জঙ্গল সাফ করে মসজিদটি নামাজ পড়ার উপযোগী করা হলেও দেয়ালের বড় বড় ঝুঁকিপূর্ণ ফাঁটল রয়েছে। বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় এলাকাবাসী নামাজ আদায়ের পাশাপাশি মসজিদের কাছেই স্থাপন করেছেন ‘আওকর মসজিদ এতিমখানা ও মাদরাসা’। মসজিদের দেখাশোনার জন্য স্থানীয়ভাবে একজন স্বেচ্ছাসেবক রয়েছেন।
প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে ঝুঁকিপূর্ণ এই প্রাচীন মসজিদটি দ্রুত সংস্কার করে শান্তিপূর্ণভাবে নামাজ আদায়ের পরিবেশ সৃষ্টির দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন