ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬, ১৭ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

আন্তর্জাতিক সংবাদ

যুদ্ধ নয়, সংলাপই হতে পারে একমাত্র সমাধান : কোরেশি

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৪ এএম

পাকিস্তানের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি বর্তমানে নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে পাকিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করছেন। তিনি আল-জাজিরার সাথে পাকিস্তানের নতুন সরকারের চ্যালেঞ্জগুলো নিয়ে কথা বলেন। তালেবানদের সাহায্য করার অভিযোগ সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোরেশি বলেন যে, আগের পাকিস্তানী সরকারগুলো নিজের দেশকে সাহায্য করেছেন। তারা একটা পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার পাওয়ার চেষ্টা করেছেন, যেটা তাদের নিজের সৃষ্টি করা নয়। এরা কারা? কে তাদেরকে সহায়তা দিয়েছে? কে প্রশিক্ষণ দিয়েছে? আমরা ইতিহাস ভুলে যাই এবং বন্ধুও যে বদলে যায়, সেটা অবজ্ঞা করি। আপনি যাদের সমর্থন দিয়েছেন, তাদের কাউকে চরমপন্থী বলা হয়েছে। তাদেরকে কি যুক্তরাষ্ট্রে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি? তাদেরকে কি হোয়াইট হাউজে আপ্যায়ন করা হয়নি? তাই বন্ধু বদলায়। পরিস্থিতি বদলায়। আমরা শুধু আমাদের রক্ষা করেছি এবং এ জন্য চেষ্টা করেছি। পাকিস্তান-ভারত সম্পর্ক সম্পর্কে কোরেশি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ২৬ জুলাইয়ের বক্তৃতার কথা উল্লেখ করেন যেখানে তিনি বলেছিলেন যে, “আপনারা একধাপ এগুলে আমরা দুই ধাপ এগুবো। এছাড়াও তিনি প্রধানমন্ত্রী খানের পরবর্তী গঠনমূলক, শান্তিপূর্ণ আলোচনার জন্য ভারতের প্রতি আহ্বান জানানোর বিষয়টিও উল্লেখ করেন এবং এটাকে নতুন সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি হিসেবে বর্ণনা করেন। “আমাদের কাছে যেটা বাস্তবসম্মত মনে হয়েছে, সেটা আমরা করেছি। দুই প্রতিবেশী দেশের অনেক ইস্যু রয়েছে, পারমাণবিক শক্তি রয়েছে। কিভাবে আপনি সমস্যার সমাধান করবেন? যুদ্ধ কোন পথ নয়। এর কোন সামরিক সমাধান নেই। একমাত্র সমাধান হলো সংলাপ”। প্রসঙ্গত, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতের সাথে সংলাপের ব্যাপারে ইতিবাচক ইঙ্গিত দিলেও ২০১৫ সালের পর দুই দেশের মধ্যে প্রথমবারের মতো আলোচনা প্রচেষ্টা বাতিল করে দিয়েছে ভারত। চলতি সপ্তাহে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের ফাঁকে ওই বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কাশ্মীরে ভারতের তিন পুলিশ নিহত হওয়ার কয়েক ঘন্টা পর এই বৈঠক বাতিলের ঘোষণা দেয় ভারত। ‘পাকিস্তান-ভিত্তিক সংগঠন আমাদের নিরাপত্তা সদস্যদের নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেছে’- এ কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে যে, পাকিস্তান যে ২০টি পোস্টাল স্ট্যাম্প অবমুক্ত করেছে, সেগুলোর একটিতে কাশ্মীরের এক তরুণ বিদ্রোহী কমান্ডারের ছবি রয়েছে যে ২০১৬ সালের জুলাই মাসে ভারতীয় সেনার হাতে নিহত হয়। স্ট্যাম্পে তার ছবি দিয়ে ‘সন্ত্রাসী ও সন্ত্রাসবাদের মর্যাদা বাড়ানো হয়েছে’। ২৬ জুলাই পাকিস্তানের নতুনমন্ত্রী হিসেবে ইমরান খান বিজয়ী হওয়ার পর পাকিস্তানের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কেরও অবনতি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র এ সময় পাকিস্তানকে দেয়া ৩০০ মিলিয়ন ডলারের সামরিক ও নিরাপত্তা সহায়তা বাতিল করে। আফগান তালেবানসহ বিভিন্ন সশস্ত্র গ্রুপের বিরুদ্ধে পাকিস্তান যথেষ্ট পদক্ষেপ নিচ্ছে না- এমন অজুহাতে এই সহায়তা বাতিল করা হয়। যুক্তরাষ্ট্র অভিযোগ করেছে যে, ৯/১১ এর পর থেকে পাকিস্তান দ্বৈত খেলা খেলে আসছে। তারা একইসাথে ওসামা বিন লাদেনকে আশ্রয় দিয়েছে এবং তালেবানসহ অন্যান্য সশস্ত্র গ্রুপগুলোর সাথে সম্পর্ক বজায় রেখেছে। সাউথ এশিয়ান মনিটর।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন