ঢাকা, সোমবার ২৭ মে ২০১৯, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২১ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

আন্তর্জাতিক সংবাদ

পরকীয়ায় দু’টি খুনের রোমহর্ষক ঘটনা

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৪ এএম

পরকীয়া প্রেমিকাকে নিয়ে দুই যুবকের দ্বদ্ব। এর জেরে একজনকে খুন করে আরেকজন। আর এ মামলায় জেল থেকে বেরোনোর পরে খুনিকে হত্যা করে বদলা নিল নিহতের পরিবার। গত বুধবার ভারতের হায়দরাবাদের ব্যস্ত রাস্তায় কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হল জি রমেশ নামে বছর চব্বিশের এক যুবককে। মহেশ গৌড় নামে আরেক যুবককে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত নিহত যুবক। জানা যায়, নৃশংস এই ঘটনার পিছনে রয়েছে পরকীয়া প্রেম ও বিশ্বাসঘাতকতার রোমহর্ষক কাহিনী। ২০১৭ সালে স্থানীয় এক বিবাহিত মহিলার প্রেমে পড়েছিল রমেশ ও মহেশ দুজনেই। পথের কাঁটা সরাতে ২০১৭ সালের ২৫ ডিসেম্বর মহেশকে খুন করার ষড়যন্ত্র করে প্রতিবেশী রমেশ। সে দিন কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে জুম্মেরাত বাজার থেকে মহেশকে নিয়ে সে কাডতালের মসিগন্ডি মন্দিরে পূজা দিতে যায়। ফেরার পথে গাড়িতে মদ্যপানের আসর বসে। মহেশকে মাতাল করার পরে গাড়িতে বসেই শামসাবাদের কাছে তার গলায় ছুরি চালায় রমেশ। পরে মুচিনতালে গাড়ি থেকে তার লাশ ফেলে দিয়ে আগুনে পুড়িয়ে দেয়। অপরাধ ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেও বিফল হয় রমেশ। সার্ভিস সেন্টারে তার গাড়ির ভিতর রক্তের দাগ দেখে সন্দেহ হওয়ায় পুলিশকে জানান গ্যারাজ কর্মীরা। গাড়ি ফেরত নিতে এলে হাতেনাতে ধরা পড়ে রমেশ। জেরায় সে খুনের কথা স্বীকার করে এবং তার থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয় হত্যাকাণ্ডে তার সঙ্গী ঢুলপেটের পি নরেশ (২১), জিয়াগুডার এম শিভা (২৬) ও জি ইয়াদাইয়াকে (৬০)। বিচারে কারাদণ্ড হলেও কয়েক মাস পরে জামিনে ছাড়া পায় রমেশ। মহেশের স্বজনরা যেন তাকে খুঁজে না পায়, সেজন্য সে এলাকা ছেড়ে শহরের বাইরে পাতানচেরুতে এসে বসবাস শুরু করে। কিন্তু সেখানেও তাকে খুঁজে বের করে মহেশের পরিবার। বুধবার সে আদালতে হাজিরা দিতে আসবে জানতে পারে নিহত মহেশের বাবা ও চাচা কিষাণ ও ল²ণ গৌড়। রমেশ আদালত থেকে বেরিয়ে কিছুদূর যাওয়ার পরই তার উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন তারা। এ সময় বেশ কিছু লোক তাদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হন তারা। এমনকি একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, এ সময় পুলিশের একটি টহল যান ঘটনাস্থল অতিক্রম করছে, কিন্তু তারাও এ ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ নেননি। রমেশের মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর অভিযুক্তরা ঘটনাস্থলে অস্ত্র ফেলে দিয়ে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে। শামসাবাদ পুলিশের ডেপুটি কমিশনার এন প্রকাশ রেড্ডি টাইমস অব ইন্ডিয়াকে বলেন, নারীঘটিত কারণে গত বছরের ডিসেম্বরে শামসাবাদে মহেশ খুনের প্রধান আসামি ছিলেন রমেশ। তাই তিনি এ হত্যাকাণ্ডকে পূর্বের ঘটনার প্রতিশোধই বলছেন। টাইমস অব ইন্ডিয়া।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
নাসির ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১:১২ এএম says : 1
পরকীয়া এখন একটা ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে
Total Reply(0)
Billal Hosen ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১:৪৫ পিএম says : 0
আল্লাহপাক নারীদের উদ্দেশ্য করে বলেন- وَلَا تَبَرَّجْنَ تَبَرُّجَ الْجَاهِلِيَّةِ الْأُولَى ইসলামী জ্ঞান না থাকার কারণে এই অবস্থা হচ্ছে- স্বামী-স্ত্রীকে ভালবাসার ফযিলত : হাদীস শরীফে আছে, স্বামী-স্ত্রী মহব্বতের সাথে আলাপ আলোচনা করা কথা-বার্তা বলা নফল ইবাদতের চেয়ে উত্তম। অন্যথায় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, যে মহিলা (স্ত্রী) তার স্বামীকে সন্তুষ্ট রেখে দুনিয়া থেকে বিদায় নেয় সে অবশ্যই বেহেশতে প্রবেশ করবে। সন্তানকে ভালবাসার ফযিলত : রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজ সন্তান ফাতিমাকে অত্যাধিক ভালবাসতেন। তিনি স্বীয় জবানে এরশাদ করেন, ফাতিমা আমার কলিজার টুকরা, তাকে কেউ কষ্ট দিলে আমাকেই কষ্ট দেয়া হবে। নবীজির পাক জবানের বর্ণনায় ফুটে উঠে যে সন্তানকে ভালবাসা ছাওয়াবের কাজ।তোমরা জাহেলী যুগের ন্যায় নিজেদের প্রদর্শন করে বাহিরে বের হয়ো না। (আল-কুরআন) যারা অবৈধ ভালবাসাকে পবিত্র বলতে দুঃসাহস দেখান এবং বলেন প্রেম পবিত্র। শালিনতার সাথে প্রেম করলে তা নাজায়িয হবে কেন? তাদেরকে আবারও বলছি, এটা আপনাদের নিছক মুর্খতা ও সম্পূর্ণ অমূলক ভুল এবং ভুল ধারণা। অবৈধ ভালবাসা কখনো পবিত্র হতে পারে না এবং পবিত্র হবার কোন পথও নেই। যুবক ও যুবতীর ভালবাসা সম্পূর্ণ নাজায়িয ও হারাম। এক মাত্র বৈবাহিক সম্পর্কের পর পরই প্রেম-ভালবাসা পবিত্র হতে পারে। বিয়ের আগে তা পবিত্র নয়, হারাম ও কবিরা গুনাহ। যদি বিয়ের তারিখ ঠিক হয়েও যায় তবুও এ কাজে লিপ্ত হতে পারবে না যতক্ষণ না আকদ হয়েছে। এমন কি আকদের পূর্ব পর্যন্ত প্রেম সংক্রান্ত গোপন চিঠি আদান প্রদান, দেখা-সাক্ষাত, ফোনে কথা-বার্তা বলা সবই নিষিদ্ধ, কবীরা গুনাহ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন