ঢাকা, সোমবার ২২ জুলাই ২০১৯, ০৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৮ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

খেলাধুলা

হোয়াইওয়াশের স্বপ্ন দেখছেন রোডস

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৬ নভেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

জুলাইয়ে গতিময় হারের বদলা নভেম্বরে বাংলাদেশ নিল ঘূর্ণিপাকে ফেলে। প্রতিশোধটাও সাকিব আল হাসানের দল ফিরিয়ে দিয়েছে একেবারে কড়ায় গণ্ডায়। এ বছরের জুলাইতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে গিয়ে ক্যারিবীয় পেস বোলিংয়ের আগুনে পুড়ে ছারখার হয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। সেই প্রতিশোধ নেয়ার সুযোগটা বেশ ভালোভাবেই দিয়েছে চট্টগ্রামের লাকি ভেন্যু জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। ক্যারিবীয়ানদের ঘূর্ণির মায়াজালে বন্দি করে মাত্র পৌনে তিন দিনেই টেস্ট জিতে নিয়েছে স্বাগতিকরা। প্রথমবারের মত টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানো সাগরিকার জয়টি ৬৪ রানের। ২ ম্যাচ সিরিজে এগিয়ে বেশ ফুরফুরে মেজাজেই থাকবার কথা বাংলাদেশ দলের। আছেও তাই। তবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট জিতে সিরিজ ড্র’র প্রশান্তির পর এমন এক জয় বেশ আত্মবিশ্বাসেই আছে সাকিববাহিনী।
সেই সুখস্মৃতি নিয়ে দল পৌঁছে গেছে ঢাকায়। পরের ম্যাচটি যে হবে মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে। আজ থেকেই শুরু হবে তার প্রস্তুতি। তবে গতকালও চট্টগ্রামে রয়ে গেছেন বাংলাদেশের কোচ স্টিভ রোডস। উদ্দেশ্যহীন ঘুরাঘুরি না করে সময় কাটিয়েছেন হোটেলেই। ক্রিকেটারদের মত ক্লান্তির ধকলটা তার উপর দিয়েও তো গেছে! সেই সুযোগে সাংবাদিকরাও পেয়ে গেলে হাতের নাগালে। বিকেলে এক ঝাঁক সাংবাদিক হাজির রেডিসন ব্লুতে। সেখানেই ‘সফল’ এই কোচ মেলে ধরলেন প্রশান্তির ডালা। জানালেন ভবিষ্যত পরিকল্পনা আর চোখে আঙুল দিয়ে দেখালেন উন্নতির জায়গাগুলোও।
শুরুতেই প্রশ্ন ছিল সবচেয়ে কম ব্যাপ্তির রেকর্ডগড়া এমন জয় নিয়ে। তবে তার আগে নিজের স্বস্তির কথা জানালেন সাকিব ফেরায়, ‘দলের জন্য সবচেয়ে ভালো খবর, সাকিব ফিরেছে। সে অধিনায়ক, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। শুধু অধিনায়ক হিসেবেই নয়, সে দলে থাকলে বাকিদের আত্মবিশ্বাসও বাড়ে আমি লক্ষ্য কনেছি। সকলের সেরাটা দেবার চেষ্টাতেই আড়াই দিনে টেস্ট জয় পেয়েছি আমরা।’ এরই মধ্যে নতুন লক্ষ্যও ঠিক করে ফেলেছেন এই দক্ষিণ আফ্রিকান, জানালেন, ‘মাত্র দুই ম্যাচের সিরিজ। প্রথমটিই জিতে নেওয়ায় আমরা ভালো অবস্থানে আছি। পরবর্তী টেস্ট ম্যাচ ঢাকায় উইন্ডিজকে হারিয়ে আমরা হোয়াইটওয়াশ উদযাপন করতে চাই।’
প্রতিপক্ষে ২০ উইকেটই শিকার করেছেন বাংলাদেশের চারজন স্পিনার। এদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সে অভিষেকেই ৫ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ডের মালিক হয়েছেন নাঈম। কোচের নজর এড়ায়নি কিছুই। হোম কন্ডিশনে বরাবরই বাংলাদেশ শক্তিশালী উল্লেখ করে রোডস বলেন, ‘জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে যে উইকেটে খেলা হয়েছে উপমহাদেশে এমন স্পিন উইকেট হয়ে থাকে। সে সুবাদে বাংলাদেশ দলে যে চারজন স্পিনার রয়েছে তারা খুবই ভালো মানের। বিশেষভাবে নাম বলতে হয় তাইজুল ইসলামের। সে অসাধারণ। তার মেধা, একাগ্রতা আমাকে মুগ্ধ করেছে। পাশাপাশি নাঈমের (অভিষিক্ত নাঈম হাসান) কথাও আলাদা করে বলতে হয়। সে ভালো বল করার পাশাপাশি ব্যাটিংয়েও দলের হাল ধরেছিল। তার মাঝেও সুতরাং সে অত্যন্ত ভালোমানের খেলোয়াড়। সাকিবতো ছিলই। মিরাজও প্রয়োজনে জ্বলে উঠেছে। সব মিলিয়ে অসাধারণ।’
তবে এত অর্জনের ম্যাচে প্রতিপক্ষকে খাটো করে দেখছেন না কোচ, ‘ সিলেটে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে টসে জিতে হোম অ্যাডভান্টেজের সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেনি। ব্যাটিং না নিয়ে ভুলের মাশুল দিতে হয়েছিল আমাদের। তবে এবার টসে আমরা জয়ী হওয়ায় হোম অ্যাডভান্টেজ কাজে লাগিয়ে প্রথমে ব্যাট করায় সুফল পেয়েছি। তবে প্রতিপক্ষ হিসেবে তারা (ক্যারিবীয়ান দল) হারালেও ব্যাটিং এবং বোলিং খুবই শক্তিশালী ছিল। ’
ওপেনার নিয়ে এখনও শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। ব্যাটসম্যান লিটন দাসের বদলে এই টেস্ট খেলানো হয়েছে সৌম্য সরকারকে। তবে আস্থার প্রতিদান দিতে পারেন নি তিনিও। ঢাকা টেস্টে তামিম ইকবালের ফেরার সম্ভাবনা নব্বই শতাংশ। সেক্ষেত্রে কাকে রেখে কাকে খেলাবেন, এ প্রশ্ন আপাতত এড়িয়েই গেলে রোডস, ‘তামিম ফিরলে দলের জন্য ভালো হবে। লিটনও ভালো ব্যাটসম্যান তবে সুযোগ। আর সৌম্য প্রথম ইনিংসে যে আউট হয়েছে তাতে তার করার কিছুই ছিলনা। বলটি খুব ভালো ডেলিভারি ছিল এবং নতুন বলে ব্যাটসম্যান ঐভাবে আউট হয়।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Margherita ১ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৯:৪৪ এএম says : 0
It is the best time to make some plans for the long run and it is time to be happy.
Total Reply(0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন