ঢাকা, শুক্রবার ২১ জুন ২০১৯, ৭ আষাঢ় ১৪২৬, ১৭ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

ফজরের নামাজ পড়ে ভোটকেন্দ্র পাহারা দিতে হবে : ড. কামাল

শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারত শেষে ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী প্রচার শুরু

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:৪৩ এএম

সমতল মাঠ তৈরিতে ইসি ব্যর্থ এবং এখনো প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনী পক্ষপাতিত্ব আচরণ করছে অভিযোগ তুলে দেশবাসীর প্রতি ভোটের অধিকার আদায়ের আহবান জানিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহবায়ক গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেছেন, ভোট দিতে হবে এবং ভোটচুরি ঠেকাতে সকলকে ভোটকেন্দ্র পাহারা দিতে হবে। প্রতিটি আসনের আশপাশের মানুষকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের ৩০ ডিসেম্বর ফজরের নামাজ পড়ে ভোটকেন্দ্রে পাহারা বসাতে হবে। সারাদিন ভোট দেয়ার পর ভোট গণনা পর্যন্ত কঠোর ভাবে থাকতে হবে যাতে ওরা প্রশাসনের সহায়তায় ফলাফল চুরি করতে না পারে। গতকাল সিলেটে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী প্রচারণা শুরু উপলক্ষে হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজার জিয়ারত শেষে দরগা গেইটে সমবেত জনতার উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচন দেশের জনগণের মালিকানা পুণরুদ্ধারের নির্বাচন। এই নির্বাচনে দেশের মানুষ ব্যালটের মাধ্যমে ক্ষমতা জবরদখলকারী আওয়ামী লীগকে পরাজিত করবে। ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশের মালিকানা এদেশের ২০ কোটি জনগণের। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে বিতাড়িত করে রাষ্ট্রের মালিকানা জনগণের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হবে।
সিলেট-১ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরকে বিজয়ী করার আহবান জানিয়ে ড. কামাল বলেন, আধ্যাত্মিক নগরী সিলেটের মর্যাদাপূর্ণ এই আসনে বিএনপি একজন তরুণ নেতাকে মনোনয়ন দিয়েছি। সিলেটবাসী ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত খন্দকার মুক্তাদিরকে বিজয়ী করার মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের সকল অপকর্মের সমুচিত জবাব দেবেন। ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা বলেন, প্রশাসন এখনো নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে না। পুলিশ দলীয়বাহিনীর মতো কাজ করছে। বিরোধী নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও হয়রানি করছে। এসব অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের অন্তরায়। তবে যতো অন্তরায় আর বাধা বিপত্তি আসুক জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনের মাঠে থাকবে। তিনি নির্বাচন কমিশনকে এ সব বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের আহবান জানান। ড. কামাল হোসেন বলেছেন, স্ষ্ঠুু ভোট না হলে দেশের মালিকানা জনগণের হাতে থাকবে না। যতো বাধাই আসুক আমরা নির্বাচনে থাকব। ভোটের দিন সবাইকে ভোট কেন্দ্রে যেতে হবে। কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে। নিজেদের অধিকার আদায়ে সবাইকে এবার সতর্ক থাকতে হবে। ভোট সবার সাংবিধানিক অধিকার। এ অধিকার নিজে আদায় করতে হবে। তিনি দেশবাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, ৩০ তারিখ সকালে আপনারা ভোট প্রয়োগ করবেন। ভোট কেন্দ্র পাহারা দিবেন। দুই নম্বরি করতে দিবেন না। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে লড়ে যাবো আমরা।
নির্বাচনী প্রচারাভিযান শুরু উপলক্ষে বিকেলে সিলেট এসে পৌছান জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড.কামাল হোসেন, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, আসম আবদুর রব, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও নজরুল ইসলাম খান। তারা প্রথমে হযরত শাহজালাল (র.) ও হযরত শাহপরাণ (র.) মাজার জিয়ারত করেন। পরে, তারা জৈন্তাপুরের চিকনাগুল বাজারে এক জনসভায় বক্তব্য রাখেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত সিলেট-১ আসনের প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীম, সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আজমল বক্ত সাদেক, বিএনপি নেতা আব্দুল গাফ্ফার, মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, ফরহাদ চৌধুরী শামীম, আব্দুল আহাদ খান জামাল প্রমুখ। এদিকে রাতে নগরীর জৈন্তাপুরে সিলেট ৪-আসনের প্রার্থী দিলদার হোসেন সেলিমের প্রচারনায় অংশ নেবেন শরিক হন দলের কেন্দ্রীয় নেতা বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ও নজরুল ইসলাম খান। সিলেট ৩ আসনের প্রার্থী শফি আহমদ চৌধুরীর জন্য মোগলাবাজারে নির্বাচনী প্রচারনায় অংশ নেন ঐক্যফ্রন্ট নেতা আ স ম আব্দুর রব।
সিলেটে হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজার গেটের বাইরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পথসভার মাইক খুলে নেয় পুলিশ। এছাড়া চেয়ার-টেবিল জব্দ করা হয়েছে। কোতোয়ালি থানার ওসি সেলিম মিঞার নেতৃত্বে মাইক ও চেয়ার- টেবিল নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় ওসি বলেন, দরগায় সভা করার কোন অনুমিত তারা চাননি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (23)
এম এ তানজিল ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:২৭ এএম says : 3
ফজরের নামায তো পড়তে দিবেনা, এশারের সময় এরেস্ট করে ফেলবে
Total Reply(0)
Mahmood Hasan Ramiz ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:২৮ এএম says : 3
ফজর নামাজ পড়ে ভোট কেন্দ্রে গেলেতো দেখবে ভোট দেওয়া শেষ। পাহারা দিতে হবে ভোটের আগের রাত থেকেই
Total Reply(0)
Sowkat Alam ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:২৮ এএম says : 3
আওয়ামীলীগের সাথে জনগণ নেই, জনগণ আওয়ামীলীগ কে ভোট দিবেন না, তাই তারা প্রসাশন আর আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে ফাঁকা মাঠে গোল দিতে চাচ্ছে,
Total Reply(0)
Bayzid Ahmed Emon ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:২৮ এএম says : 3
ধানের শীষ জিন্দাবাদ ❤❤❤ স্বৈরাচারী নিপাত যাক
Total Reply(0)
Kabir Hossain ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:২৯ এএম says : 3
Fajurer Agee jea kam ses hoye jabe
Total Reply(0)
Mohammed Hussain ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:২৯ এএম says : 3
D.kamal you are a great person
Total Reply(0)
Mahamud Rahaman ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩০ এএম says : 1
২/১ জন ছাড়া বকিদের মুসলমানের মত লাগেনা। যাক তার ভোটের আগের রাতে হলেও আল্লাহ হেদায়েত করুক।
Total Reply(0)
Saiful Islam ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩১ এএম says : 3
মাঠে গণজোয়ারের উপস্থিতি বদলে দিবে রাষ্ট্রীয় বাহিনী পরিস্থিতি।
Total Reply(0)
Ponir Matubber ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩১ এএম says : 3
স্যার আগের দিন মাগরিবের নামাজের পর থেকে ভোট কেন্দ্র সহ প্রিজাইটিং অফিসারকেও পাহারা দিতে হবে । চুরির নিল নকসা আগের দিন মাগরিবের পর থেকে শুরু হয়।
Total Reply(0)
Maruf Hussain ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৪ এএম says : 3
বেগম খালেদা জিয়ার সাজা হয়েছিল ৫ বছরের। আপীলে এটা বাড়িয়ে ১০ বছর করা হয়। নির্বাচন থেকে বিরত রাখার জন্য ২ বছরের সাজাই যথেষ্ট। কিন্তু আপীলে এটাকে বাড়িয়ে ১০ বছর করে পরের দিনই তফসিল ঘোষণা করা হলো। কেন? বিএনপি যেন রাগ করে বলে 'আমরা খেলব না'। যাতে আওয়ামীলীগ ফাঁকা মাঠে গোল দিতে পারে। কিন্তু বিএনপি এর পরেও নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেয়ায় আওয়ামীলীগ অনেকটা হতভম্ব হয়ে পড়ে। তারপরে রিটার্নিং কর্মকতাকে দিয়ে শ'য়ে শ'য়ে মনোনয়ন বাতিল করায়। তারপরেও কাজ না হওয়ায় এখন শুরু হয়েছে ভয়াবহ হামলা। প্রার্থী গ্রেফতার,কর্মী গ্রেফতার,প্রচারণায় হামলা, নির্বাচনী অফিস ভাংচুর।যেকোনো মূল্যে বিএনপিকে মাঠ ছাড়া করতে চায়। ২০১৪ সালে একতরফা নির্বাচন করে তাদের অভ্যাস নষ্ট হয়ে গেছে। এখন তাদের অধীনে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করতেও তারা সাহস হারিয়ে ফেলেছে।
Total Reply(0)
Alam Bhuiyan ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৫ এএম says : 2
পুলিশ দলীয় ক্যাডারের ভুমিকা পালন করছে, তাই জনগন পুলিশের পোষাকধারী সন্ত্রাসীদের কে সর্বোচ্ছ প্রতিরোধ করতে হবে
Total Reply(0)
Alli Akbor ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৫ এএম says : 3
100% right kotha
Total Reply(0)
Shah Alam ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৬ এএম says : 4
আপনারা নিজেরাই পাহারা দেন .আমাদের দরকার নাই. . মন্ত্রী হইবেন আপনারা. চেয়ারে বসবেন আপনারা .আর কেন্দ্র পাহারা দিব আমরা. ফাজলামি পাইছেন.
Total Reply(0)
Nazmul Hasan ব ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৬ এএম says : 3
ড়ো আফসোস আপনি নির্বাচন করেন নাই, ইচ্ছা চিল আপনি কয়টা ভোট পান দেখার জন্য । আপনি খুব চালাক মানুষ নির্বাচনে প্রার্থী না হয়ে বুদ্ধিমান এর পরিচয় দিয়েছেন
Total Reply(0)
Khaled Sifullah Nayem ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৩৯ এএম says : 3
আমার জীবনের বিনিময়ে যদি আমার কেন্দ্রে নিরপেক্ষ ভোট আদায় করা সম্ভব হয়,তাহলে আমি প্রস্তুত মৃত্যুর জন্য। বাঁচলে সম্মান নিয়ে বাঁচবো,আল্লাহ তুমি আমাদের সাহায্য করো।
Total Reply(0)
Dalme Syed ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:৪০ এএম says : 3
Shoto vhag shotto kotha awameleager choritro somporke jonoghon jan
Total Reply(0)
Mohammed Kowaj Ali khan ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৬:৫৮ এএম says : 3
দোয়া এবাদতের মগজ। আল্লাহ তা'আলার দরবারে সত্য দোয়া করিলে আল্লাহপাক বান্দার হাত খালী হাতে ফিরাইয়া দিতে লজ্জাবোধ করেন। আর মজলুমের দোয়া আল্লাহপাকের কাছে খোবই পচন্দনিও। জাতিকে যে ভাবে বেইজ্জত করিয়াছে জাতীয় বেঈমান বড় কষ্টদায়ক। বারমার মতো খোনী আমাদের বিডিআর বেঁধে রাখে ভারতের মতো একটা প্রতারক চুর আমাদের নাগরিক হত্যা করে। সম্ভব হইয়াছে জাতীয় বেঈমান ভারতের দালাল রাজাকারদের জন্য। নতুবা ভারত আমাদের মোকাবেলায় মাছি। ইনশাআল্লাহ। *********
Total Reply(0)
Mohammed Shah Alam Khan ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১১:৪৮ পিএম says : 0
এই সংবাদ পাঠ করার পর প্রথম প্রশ্ন হচ্ছে কামাল মিয়া কি নামাজ পড়েন?? আল্লাহ্‌ বলেছেন তুমি যেটা করনা সেটা অন্যকে বলিওনা। তাহলে তিনি .. মোসলমানদের মন জয় করার জন্যে ভাওতা বাজী করেছেন?? আমরা দেখেছি দে.. রাজাকার ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে কিভাবে ইসলামকে প্রতিষ্ঠিত করবেন তার ফিরিস্তি দিয়ে ক্ষমতায় গিয়ে একবারও সংসদে কিংবা আর কোন জনসভায় ইসলাম নিয়ে কথা বলেননি কারন তার ইচ্ছা ছিল এইভাওতা দিয়ে নির্বাচনে জেতা। এর পরিণতি আমরা দেখেছি তার কঠিন পরজয়ের মাধ্যমে আবার তার ছেলের থানা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার মাধ্যমে। কাজেই আল্লাহ্‌র ইসলামকে নিয়ে কেহ খেলা করলে তিনি নিজেও খেলার বস্তু হয়ে যায় এটাই তার প্রমাণ। আমরা আরো দেখছি তারই সঙ্গীরা ফাঁশিতে ঝুলে একবারের মারাগেছে বার বার মারা যাচ্ছে না। আর আমরা দে... রাজাকারের বিষয়ে কি দেখছি তিনি জেলে থেকে সাজা হিসাবে প্রতিদিন বাগানে মালির কাজ করে প্রতি মুহূর্তে একবার করে মরছে... এটা আমাদের জন্যে কত বড় শিক্ষার বিষয় এটা কি আমরা উপলব্ধি করতে পারি??? কাজেই আমরা যারা আল্লাহ্‌কে বিশ্বাস করে চলি আমাদের প্রচুর বিশ্বাস আছে কামাল মিয়ার এসব ভাওতা বাজির জবাব আল্লাহ্‌ পাক ঠিকই দিবেন এটাই মহা সত্য। কিভাবে কামাল মিয়া একজন ওলী-আল্লাহর মাজারের সামনে ভাওতাবাজী করে কথা বলেন এটা ভাববার বিষয় নয় ক?? আর এটা বিবেচনায় আনার জন্যে আমাদের ফিরে যেতে হয় ’৭১ সালে আল্লাহ্‌ তখন এই দেশ বাংলাদেশ পাকি ও পাকিদের দোসরদেরকেই পরাজিত করে আমাদের (বাঙ্গালীদেরকে) জয়ী করেছিলেন। আমরা জয় লাভের পর সাধারন ক্ষমা করার কারনেই ’৭৫ সালে এসব মোনাফেকদের কাছে পরাজিত হয়ে ছিলাম। কামাল মিয়ার ভাষায় তাদের ’৭১ হারিয়ে যাওয়া দেশের মালিকানা ’৭৫ ফেরৎ পেয়েছিল আন্দোলনের মাধ্যমে। সেই আন্দোলন তারা আবার করতে চায় কারন সেসময়ে জয়ী হয়ে তারা তাদের লোকবল অনেক বাড়িয়েছিল এবং আমাদেরকে বাঙ্গালী থেকে বাংলাদেশী জাতি বানিয়ে লাথি মেরে আস্তাকুড়ে নিক্ষেপ করে সর্বে সর্বা হয়ে ২৮ বছরে দেশের বারটা বাজিয়ে দিয়েছিল। কাজেই তাদের সেই শক্তি এখন অন্ধকার ঘরে আবদ্ধ রয়েছে এদেরকে সাহস দিয়ে বের করে তাদের পাল্লা ভারী করে নির্বাচনে জয়ী হবার পায়তাড়া করছে যানাকি বাস্তবায়িত হওয়া এখন স্বপ্নের মত তাই না?? বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসে সেই মুক্তিযুদ্ধের নীতি যে নীতিতে মহান আল্লাহ্‌ বাংলাদেশের জন্ম দিয়েছিলেন সেই নীতিতে চলার জন্যে মহান আল্লাহ্‌ দেশের আমূল পরিবর্তন করেছেন এই দশ বছরে। কাজেই আমরা কোনভাবেই এসব পাকিদের বীজদেরকে আর কোমড় খাড়া করে দাড়াবার সুযোগ দিতে পারি না। এরা দেশের অপশক্তি এদেরকে রাস্তা ঘাটে মাঠে ময়দানে যেখানেই পাওয়া যাবে সেখানেই প্রতিহত করতে হবে। এরা এই দশ বছর যেভাবে অন্ধকার ঘরে আবদ্ধ ছিল এখন সেখান থেকে বের হতে চাইছে নির্বাচনের উছিলায় কিন্তু তারা চাইলেই হবে না এদেরকে অন্ধকার ঘর থেকে বের হওয়া মাত্রই প্রতিহত করতে হবে যাতে করে নির্বাচনে কোন অসৎ ছায়া না পরে। এদেরকে (অপশক্তিকে) স্থায়ীভাবেই অন্ধকার ঘরে আবদ্ধ করে রেখে এদের স্বভাব চরিত্র সংশোধন করে নিশ্চিত হয়ে তারপর ঘর থেকে বেরহতে দেয়া হবে নয়ত নয়। আল্লাহ্‌র শত্রু এই বাংলাদেশে পাকিদের দসোর এদেরকে এখন মহান আল্লাহ্‌ই প্রতিহত করবেন আমাদের মাধ্যমে এটাই আমাদের চাওয়া মহান আল্লাহ্‌র দরবারে। আমিন
Total Reply(0)
Mohammed Kowaj Ali khan ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৮:১২ এএম says : 4
এবার গনজোয়ারে ভেসে যাবে জাতীয় বেঈমান। ইনশাআল্লাহ। *********
Total Reply(0)
No need to name ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৮:৩৬ এএম says : 4
Thank you BNP. Maximum candidate carrying lot of litigation by torture but they are join the election strongly and without afraid. All people of BANGLADESH known to well, who is good, who is bad, I can think watch the vote center is essential, required save from devils. If people are possible to cast their vote must be YAKKAFRONT/BNP will successful. Now see the matter of free and fare election. Present situation is very awful but who will oversee.
Total Reply(1)
Mohammed Shah Alam Khan ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১২:৪৫ এএম says : 0
Mr. No need to name,I am pretty sure that you are also one of the members of dark rooms. What you mean by free and fare election??? The people who are against Bangaly means who are traitor (anti Bangali) they have no right to vote. They are hiding them in a dark room; we will not allow them to come out of room for vote. Let them keep inside the dark room. When they will rectified themselve and became Bangali then only they are suppose to come out of the dark room and be free from dark room otherwise they will finished their lives in dark room, they have on any other choise. Allah is great on Doubt.
Mohammed Kowaj Ali khan ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৮:৫৮ এএম says : 4
এবার গনজোয়ারে ভেসে যাবে জাতীয় বেঈমান। ইনশাআল্লাহ। *********
Total Reply(0)
Mohammed Kowaj Ali khan ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৯:০২ এএম says : 4
সাব্বাস ডঃ কামাল হোসেন। ইসলাম শান্তি, ইসলাম ধর্ম মুক্তি, ইসলাম শিফা, ইসলাম রাজনীতি। ইসলাম স্বার্থকতা। Islam complete code of life. Insallah. ********
Total Reply(1)
Mohammed Shah Alam Khan ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১১:৪৪ পিএম says : 0
ইসলাম নিয়ে কথা বলতে হলে ইসলাম মানতে হয় আল্লাহ্‌র হুকুম পালন করতে হয়। প্রথম শর্ত মিথ্যা না বলা অসৎ পথে না চলা... যার হাতে আমরা ইসলামের ঝান্ডা ধরতে চাই সে কি ইসলামের পথে আদৌও আছে সেটা কি দেখে নিয়ে তারপর তাঁকে নেতা মানছি??? ছি ছি... কামাল মিয়াকে নিয়ে ইসলাম......
Iqbal ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৬:৪৯ পিএম says : 3
আল্লাহ তা'আলার দরবারে সত্য দোয়া করিলে আল্লাহপাক বান্দার হাত খালী হাতে ফিরাইয়া দিতে লজ্জাবোধ করেন। আর মজলুমের দোয়া আল্লাহপাকের কাছে গ্রহণীয়। আল্লাহ রক্ষা করো, জালিমের হাত থেকে বাচাও।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন