শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

শিবগঞ্জে ক্যান্সার ও কিডনি রোগীদের মাঝে চেক বিতরণ

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১:১৯ পিএম

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার যে সমস্ত ক্যান্সার, কিডনি ও লিভার সিরোসিস রোগীরা অর্থের অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেনা এসব রোগীদেরকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার মনাকষা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এসব রোগীদেরকে চেক প্রদান করেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জিল্লার রহমান। এ অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী রওশন ইসলামের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার দাস, মনাকষা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মির্জা শাহদাত হোসেন খুররমসহ স্থানীয় বিশিষ্টজনেরা। অনুষ্ঠানে ৭২ জন ক্যান্সার, কিডনি ও লিভার সিরোসিস রোগীকে ৫০ হাজার টাকা করে ৩৬ লাখ টাকার চেক প্রদান করা হয়। এছাড়া ৫৬ জন দুস্থ মেধাবী শিক্ষার্থীকে ৯ হাজার টাকা করে মোট ৫ লাখ ৪ হাজার টাকা এবং পদ্মা নদী ভাঙন কবলিত এলাকার অসহায় মানুষের মাঝে প্রায় ২ লাখ টাকার চেক প্রদান করা হয়। এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় শিবগঞ্জ সরকারি মডেল হাই স্কুল প্রাঙ্গণে ভিক্ষুক পুনর্বাসন কর্মসূচীর আওতায় পেশাদার ভিক্ষুকদের মাঝে উপকরণ বিতরণ করেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জিল্লার রহমান। এ অনুষ্ঠানে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী রওশন ইসলামের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার দাস, শিবগঞ্জ প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি সফিকুল ইসলাম, বিনোদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হকসহ স্থানীয় সুধীবৃন্দ। অনুষ্ঠানে পেশাদার ভিক্ষুকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ৫ জন ভিক্ষুককে আর্থিক উপকরণ হিসেবে একটি ভ্যান ও ১শ’ টি করে ডাব প্রদান করা হয়। এই শিবগঞ্জ উপজেলায় ১ হাজার ১৪৫ জন ভিক্ষুককে চিহ্নিত করা হয়েছে। এদের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত ২২ লাখ টাকা দিয়ে পর্যায়ক্রমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে শিবগঞ্জ উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করা হবে বলে শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার দাস জানিয়েছেন। ভ্যান ও ডাব পেয়ে ভিক্ষুক বাদশা, নজরুল, আসমান, মহিউদ্দিন ও রাকিব বলেন- তারা পেশাদার ভিক্ষুক ছিল। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জিল্লার রহমানের উদ্যোগে তাদের ভিক্ষা পেশা থেকে কর্মসৃজনের মাধ্যমে আয় করার সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। তারা আর ভিক্ষার জন্য লোকের দ্বারে দ্বারে যাবে না।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন