ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

সোনালি আসর

মাকে নিয়ে কয়েক পঙ্ক্তিমালা

প্রকাশের সময় : ৯ মে, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বাতেন বাহার

মায়ের কালো পুত
কয়লা কভু হয় না সাদা, দুধ কখনো কালো
কয়লা থেকে হীরক মিলে। অন্ধকারের আলো।
হীরক দামি মনের কাছে, প্রাণের প্রিয়দুধ
প্রাণের চেয়ে অধিক দামি মায়ের কালো পুত।

মার তুলনা
হোক বা না হোক হুরপরী মা, না থাক থাকার ডেরা
মায়ের আঁচল সুখের আকর, শান্তি জগৎ সেরা!
মা’র তুলনা তাই তো মাতা, অন্য কেহ নয়
মা’র দোয়াতে যায়রে করা বিশ্ব জগৎ জয়।

সুখ ও দুঃখের সাথী
যে মা আমার বিশ্বময়ী, মিষ্টি মধুর নাম
যার জন্য দু’চোখ মেলে জগৎ দেখিলাম!
সে মা আমার কান্না-হাসি সুখ ও দুঃখের সাথী
হাসলে যে মা সূর্য জাগে, কাঁদলে আসে রাতি।

মায়ের স্নেহ
অনেক কিছুই যায়রে কেনা অর্থে
যায় না কেনা মায়ের স্নেহ শর্তে।
মা শব্দ তাই অনেক অনেক দামি
মুক্তামণি হীরের চেয়েও নামি।

মা দিবসের ছড়া

আমার মা
গোলাম আশরাফ খান উজ্জ্বল

আমার মা সবার সেরা
সুখ দুঃখের সাথী
অন্ধকার গভীর রাতে
জোনাক জ্বলা বাতি।

আমার মা পূর্ণিমার চাঁদ
শিল্পীর আঁকা ছবি
ছড়া শুনিয়ে ঘুম পাড়ানো
যেন অমর কবি।

রোগ শোক ¯েœহ মমতায়
কাছে থাকেন মা
এই দুনিয়ায় মায়ের মতো
আপন কেউ না।

তোমার কোলে ঘুমিয়ে মা
আকরাম ছাবিত

মাগো তোমায় ভালোবাসি
তোমার মুখে দেখলে হাসি
শান্তি খুঁজে পাই,
তোমার কোলে ঘুমিয়ে মা
রাত কাটাতে চাই।

ঘুম পারানো গানের সুরে,
তৃপ্তি পাবো হৃদয় জুড়ে
ইচ্ছে জাগে আজ,
রাক্ষসীদের কিচ্ছা শুনে
ধরতে ভীতুর সাজ।

বিকেল বেলা খেলায় গেলে
কোথাও খানিক কষ্ট পেলে
পাগল হতে তুমি,
তোমায় ছাড়া কেমন যেন
তপ্ত মনের ভূমি।

মায়ের শাড়ির আঁচল
শাহাদাৎ শাহেদ

সারা উঠোন দৌড়ে যখন ভিজলো ঘামে গা
আদর করে আঁচল দিয়ে মুছে দিলেন মা
গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ফোটায় ভিজলো মাথার চুল?
কাপড় কোণের আঁচল দিয়ে মুছতেও নেই ভুল।

আবার যখন চরম জ্বরে গাটা পুড়ে ছাই
কিংবা শীতে কাঁপছি ভীষণ, বাঁচার উপায় নাইÑ
সেই আঁচলে গা ডেকে দেন কে? সে আমার মা-ই
মার তুলনা মা তো কেবল, অন্য কেউ নাই।

কষ্ট পেলে দু’চোখ থেকে অশ্রু ঝরে, সেও
আদর করে মা মুছে দেন। নয় তো অন্য কেও।
মায়ের আঁচল দেয় যে আমায় শক্তি-সাহস-বল
তার আঁচলে মায়ায় আমার চোখটা যে টলমল।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন