বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ০৬ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বরফশীতল বাতাসে স্থবির যুক্তরাষ্ট্রের মধ্য-পূর্বাঞ্চল

ভয়াবহ তুষারপাত জেঁকে বসেছে কানাডার পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

মৌসুমের সবচেয়ে ভয়াবহ তুষারপাতের কবলে পড়েছে কানাডা। এতে থমকে গেছে জনজীবন। যুক্তরাষ্ট্রেও তীব্র তুষারপাত অব্যাহত থাকায় মধ্য ও পশ্চিমাঞ্চলে জারি করা হয়েছে সতর্কতা। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে বের হওয়ায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। বন্ধ স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালত। ইউরোপের অবস্থা অপরিবর্তিত রয়েছে। এছাড়া ভারত, পাকিস্তান ও জাপানের বিভিন্ন স্থানে তুষারপাতে দেখা দিয়েছে বিপর্যয়। কানাডার জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র নায়াগ্রা জলপ্রপাতে যেখানে সার্বক্ষণিক ভিড় লেগে থাকে আজ সেখানে তীব্র তুষারপাতের কারণে অনেকাংশেই ফাঁকা। সড়কে জমেছে ৩০ সেন্টিমিটারের বেশি বরফ। চলছে না কোনো গাড়ি। রেল ও বিমান চলাচলও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মৌসুমের ভয়াবহ তুষারপাত জেঁকে বসেছে কানাডার পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে। রাজধানী অটোয়ায় তাপমাত্রা নেমে গেছে মাইনাস ২৪ ডিগ্রির নিচে। একই অবস্থা মন্ট্রিলেও। আগামী কয়েকদিনে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা দেশটির আবহাওয়া বিভাগের। অপর এক খবরে বলা হয়, তীব্র শীতল বাতাসের কারণে প্রবল ঠাণ্ডার কবলে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যপশ্চিমাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চল, সড়কগুলো বরফাচ্ছাদিত হয়ে পিচ্ছিল হয়ে উঠেছে। সোমবার মার্টিন লুথার কিং জুনিয়র দিবস উপলক্ষে ছুটি থাকায় ও সরকারে আংশিক অচলাবস্থা চলমান থাকায় ওই অঞ্চল দুটির অধিকাংশ বাসিন্দাই আবহাওয়া কর্মকর্তাদের পরামর্শ মেনে ঘর থেকে বের হননি, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের। একটি তুষারঝড়ের পর উত্তরের মেরু অঞ্চল থেকে বয়ে আসা বরফশীতল বাতাস দেশটির উত্তরপূর্বাঞ্চলজুড়ে ৩০ সেন্টিমিটার তুষারপাতের কারণ হয়েছিল, রোববার ওই তুষার গলতে শুরু করে। এ দিন শিকাগোতে তুষার দিয়ে দুর্গ বানানোর পর নিজের ওই তুষারদুর্গ ধসে ১২ বছরের এক বালিকা মারা গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার সঙ্গে খেলারত নয় বছর বয়সী আরেক বালিকাকে তুষার খুড়ে উদ্ধার করা হয়। হাসপাতালে হাইপোথার্মিয়ার চিকিৎসা নেওয়া এই বালিকাটি বেঁচে যাবে, এমনটি আশা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মেরিল্যান্ডের আবহাওয়া পূর্বাভাস কেন্দ্রের কর্মকর্তা মার্ক চেনার্ড জানিয়েছেন, রোববার রাত থেকে সোমবার ভোররাত পর্যন্ত নিউ ইয়র্ক থেকে বস্টন হয়ে নিউ ইংল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলের তাপমাত্রা মাইনাস ২০ সেলসিয়াসে নেমে গিয়েছিল। এর সঙ্গে ঘন্টায় ৪৮ থেকে ৬৪ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাওয়া বাতাস যোগ হয়ে পরিস্থিতি প্রাণঘাতী অবস্থার পৌছে গেছে বলে জানিয়েছেন এ আবহাওয়াবিদ। “এটি নিশ্চিতভাবে বিপজ্জনক, জীবন-মৃত্যু ধরনের আবহাওয়া বিরাজ করছে। মিনেসোটা ও উইসকনসিনের তাপমাত্রা আরও নেমে যেতে পারে,” বলেছেন তিনি। সিএনএন, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps