ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বিদ্যুতের জন্য এখন মানুষকে ঘোরাঘুরি করতে হয় না

গণভবনে প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিদ্যুৎ সংযোগ এখন মানুষের দ্বারে দ্বারে। বিদ্যুতের জন্য মানুষকে এখন আর ঘোরাঘুরি করতে হয় না। বিদ্যুৎই পৌঁছে যায়।
গতকাল সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিদ্যুতায়নের কার্যক্রমের উদ্বোধন করতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় ৬টি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র ও ১২টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
এতে ১০৬২ মেগাওয়াটেরও বেশি বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। একই অনুষ্ঠানে তিনি চট্টগ্রামের সন্দীপ উপজেলায় দেশে এই প্রথম সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং ১২টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন করেন। তিনি আরও বলেন, উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সরকার বদ্ধপরিকর। এর জন্য সুনির্ধারিত পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে সরকার। ২০২০ সালের মধ্যে আরও বেশি উন্নয়ন ও ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এক উন্নত বাংলাদেশকে দৃশ্যমান করতে কাজ চলছে। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনকৃত ৬টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে- সিরাজগঞ্জ ২৮২ মেগাওয়াট সিম্পেল সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র, ভোলা ২২৫ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র, চাঁদপুর ২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র, আশুগঞ্জ ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র, খুলনার রুপসায় ১০৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং চট্টগ্রামের জুলদা ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র (তৃতীয় ইউনিট)।
নয়টি উপকেন্দ্র হচ্ছে- রামগঞ্জ, বরিশাল (উত্তর), বারইয়ারহাট, শিকলবাহা, জলঢাকা, সুনামগঞ্জ, বিয়ানিবাজার, রাঙামাটি ও মাতারবাড়ি। শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় আসা উপজেলাগুলো হচ্ছে-হরিনাকুন্ড, ঠাকুরগাঁও সদর, বালিয়াডাঙ্গা, গোয়ালন্দ, কালুখালী, বামনা, লাখাই, শায়েস্তাগঞ্জ, আজমেরীগঞ্জ, বাহুবল, মেলান্দহ এবং ইসলামপুর।
মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, ৩০৬টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে ২৬৩টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহ ইতোমধ্যেই উদ্বোধন করা হয়েছে। অবশিষ্ট ৪৩টি উপজেলা চলতি বছরের জুন নাগাদ উদ্বোধন করা হবে।
প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড.আহমেদ কায়কাউস অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নের সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।
ড. আহমেদ কায়কাউস বলেন, ২০,৮৫৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা অর্জন করায় দেশের ৯২ শতাংশের বেশি জনগণ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। তিনি বলেন, গত ১০ বছরে ১শ’ নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের সুবাদে বাংলাদেশ এখন বিদ্যুৎ ঘাটতির দেশ থেকে বিদ্যুৎ উদ্বৃত্ত দেশে পরিণত হয়েছে।
সাবেক মন্ত্রী এবং সিনিয়র আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ এবং ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, সাবেক উপ-মন্ত্রী আবদুল্লাহ ইসলাম আল জ্যাকব এবং সংশ্লিষ্ট এলাকার সংসদ সদস্যগণ এ সময় গণভবনে উপস্থিত ছিলেন।#

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (21)
দাউদ দস্তগীর ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
উদ্বোধন করা বোধহয় খুব মজার কাজ। মন্ত্রীরা কিছু একটা উদ্বোধন করতে পারলে খুশি ....
Total Reply(0)
Ami Sei Jon ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
এই মিথ্যা কথা বলার আগে আপনাকে আগে সাধারণ মানুষের কাতার যাওয়া উচিৎ ছিল, একটা মিটার বদল করতে ৩/৪ হাজার টাকা দিতে হয়, আর ঘুরাঘুরি ত ফ্রি,আর নতুন সংযোগ নিতে হলে তো ১০/১৫ হাজার কথাই নাই,
Total Reply(0)
Md Shojib ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৫ এএম says : 0
গ্রামে গ্রামে গিয়ে দেখেন গুরা গুরি করতে হয় না না হয়,, কাপাসিয়ার টুক ইউনিয়নের উলুসারা গ্রামে এসে দেখে জান,,, তখন আপনার মুখ কুথায় লুকান দেখবেন,, বড় কথা কুথায় হায়,,কুত্তা মার্কা কত গুলি কর্মী দিয়ে রাখছেন আবার বড় বড় কথা বলেন,,,
Total Reply(0)
Asif Touhid ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৫ এএম says : 1
The increase of electrification is undoubtedly the most beneficial contribution by AL government.
Total Reply(0)
Raju Adhikary ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৫ এএম says : 0
হ্যা,এজন্যই তো দুই মাস টাকা দিয়ে রাখছি।ফোন করলে বলে একটু পরে গিয়ে মিটার লাগিয়ে দেবে।কিন্তু সেই পরটাই আর হয় না,
Total Reply(0)
Md. Shafiqur Rahman ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৫ এএম says : 0
এতো বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন হচ্ছে, কিন্তু কিছু জেলায় আছে বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে অনেকে হয়রানির স্বীকার হচ্ছে। তার সমাধান করা আশু প্রয়োজন।
Total Reply(0)
Mahmud Hasan ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৬ এএম says : 0
মিথ্যা কথা।এখনো বিদ্যুৎ এর সংযোগ এর জন্য মানুষের পিছনে পিছনে ঘুরছি।৬ মাস থেকে বলতেছে সংযোগ দিবে, কিন্তু কয়েকদফা টাকা দিতে হইছে,কাজ কিন্তু এখনো হয় নাই। স্হানঃ জেলা-গাজীপুর, উপজেলা-কাপাসিয়া, ইউনিয়ন- সনমানিয়া,গ্র্াম - দক্ষিণ গাঁও।ওয়ার্ড -৪ নং।এজন্য মাননীয় এমপি মহোদয় এর দৃষ্টি আকষর্ন করছি।
Total Reply(0)
মিনার মোহাম্মাদ ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৭ এএম says : 0
গাছ বড় হলে,,, স্বাভাবিক ভাবেই কম বেশ কিছু ফল, দিবে, এতে বড়াই কারার কিছু নেই ? একটা দেশের সরকার যখন তার দেশের আইন শৃঙ্খলা এবং দূর্নিতী, মানুষের জীবনমান উন্নয়ন করতে পারে তখনই সরকারের বড়াই করা জনগন গ্রহন করে, এই গুলোর কিছুই হয়নি। যা হয়েছে তা হলো জনগন এখন আর কষ্ঠ করে ভোট দিতে হয় না ?
Total Reply(0)
Alamgir Hussain ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৭ এএম says : 0
তিন বছর ধরে ঘোরা ঘুরি চলছে কিন্তু বিদ্যুৎ নেই শুধু টাকা নেয়,হোসেনপুর উপজেলার পল্লী এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ নেই বললেই চলে রাস্তা ও নেই,
Total Reply(0)
Mohd Maniq ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৭ এএম says : 0
আমরা উনিশ ঘর মিলে কারেন্টে জন্য দরখাস্ত করলাম, দুই মাসের মাথায় পনেরোটা পিলার আসলো, এখন চার মাস ছলে, কোন খবর নাই, এই হলো ঘুরাঘুরি না করার নমুনা,
Total Reply(0)
Parvez Chowdhury ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৮ এএম says : 0
॥ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ॥ বিদ্যুতের জন্যে মানুষকে এখন হয়রানী ও আরো বেসি গুরা ঘুরি করতে হয়, এটা মিথ্যা কথা বলছেন এখনো বিদ্যুৎ সংযোগ আছে কিন্তূ বিদ্যুত থাকেনা এর জন্য মানুষের জিবন অথিস্ট হয়ে গেছে দিনের মধেই কত বার আসে যায় তার কোন ঠিক ঠিকানা নেই ? এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দৃষ্টি আকষর্ন করছি ! এই মিথ্যা কথা বলার আগে আপনাকে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে জানা উচিৎ ? তার পর বলেন ................................? ? ? ?
Total Reply(0)
মুক্ত মনা ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৮ এএম says : 0
আমরা ঐ উন্নত চাঁই না যেখানে মানুষের জীনের নিরাপত্তা নাই এমনি যেখানে প্রতিদিন আমাদের কোন না কোন বোন ধর্ষনের শিকার হচ্ছে অতএব আগে জীবনের নিরাপত্তা যদি জীবন ই না থাকে তাহলে উন্নয়ন দিয়ে আমি কি করব ?
Total Reply(0)
Mina Jahan ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৮ এএম says : 0
এ কথাটাও মিথ্যা দিনের মধ্যে ৯০বার বিদুৎ যাই।শীতের দিনেও বিদুৎ থাকে না সারাদিন।এতো এতো বিদুতের উৎপাদন এসব কি হচ্ছে আল্লাহ জানে।আর প্রধানমন্ত্রী ভাষণ দিয়ে খালাস।বিদুৎ গেলে আর আসে না।দৌড়াদৌড়ি হয়তো উনি প্রধানমন্ত্রী বলে করতে হয় না আমাদের সাধারন জনতার ঠিক করতে হয়
Total Reply(0)
Kamrul Hasan Mir ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৮ এএম says : 0
আমাদের বিদ্যুৎ লাগবে না,আমাদের দরকার লক্ষ্মীপুর কমলনগরে মেঘনা নদীর বাঁধ চাই,যদি এলাকায় থাকে বিদ্যুৎ যে কোনো সময় পাওয়া যাবে,আগে আপনে মেঘনা নদীর বাঁধের ব্যবস্থা করেন প্রধান মন্ত্রী।
Total Reply(0)
Rayyan Blue ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 0
বিদ্যুৎ / গ্যাস আমাদের এলাকায় মাঝে মাঝে আসে। খাম্বা আছে, তার আছে, মিটারও আছে, উচ্চ মূল্য দিয়ে বিদ্যুৎ ক্রয় করা এবং মিটার ভাড়াও দিচ্ছি কিন্তু শিতকালেও দৈনিক 5/6 ঘন্টা লোডশেডিং থাকে।
Total Reply(0)
Masiul Azam Sujan ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 0
সেটার জন্য সাধুবাদ,কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশের সব চেয়ে দূর্ণীতি গ্রস্ত সংস্থা বিদ্যুৎ খাত সেটার দিকে একটু নজর দিন,সাধারণ জনগন আর কত ভোগান্তি পোহাবে???
Total Reply(0)
Md Apu ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 0
টাকা দিয়েও কারেন্ট আসে না আবার বলেন ঘোরাঘুরি করতে হয় না,, গ্রামের সবাই মিলে টাকা দিয়ে অত‍্যন্ত পরিশ্রমের ফলে কারেন্টের পিলার স্থাপন করা হয়েছে এখন আর কোনো খোঁজ খবর নাই,,কোন সময় যে বিদ্যুৎ আসে আল্লায় জানে
Total Reply(0)
নাজমুল আহাম্মেদ ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 1
আমাদের বরগুনা জেলার বামনা থানার জন্য প্রধানমন্ত্রীর উক্তি ১০০% সত্যি।দালালি করছি না!! এখানে যেসকল জাগায় আরো ১০ বছরে বিদ্যুৎ পৌছাতো না।সেখানে ও বিদ্যুৎ।
Total Reply(0)
Rajat Sarkar ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:২০ এএম says : 0
We want the country which will be free from corruption.
Total Reply(0)
মুহিববুল্লাহ ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৭:৩০ এএম says : 0
আমরা ঢাকা আমীন বাজার নিবাসী বসুধা রোড সংলগ্ন প্রায় ৮-৯ টি পরিবার দ্বীর্ঘ প্রায় আট মাস বিদুৎ এর জন্য দরখাস্ত করে এখন ও কোন সংযোগ পাইনি !বরং বর্তমানে যিনি ডি জি এম আছেন তিনি বিভিন্ন সময়ে আমাদের সংগে অনেক র্দুব্যাবহার ও করেছেন !
Total Reply(1)
Mohammed Shah Alam Khan ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৭:৪৮ পিএম says : 0
@ মুহিববুল্লাহ,আসুন আমরা যারা এখানে মন্তব্য লিখছি তারা সবাই মিলে একটা সুন্দর ভাবে দুর্নীতি দমন কমিটি করি এবং সেইভাবে কাজ করি এতে করে দেশ ও জাতীর উন্নতী হবে। তবে আমি মনে করি যারা ৬০ বৎসরের উপর মানে অবশরে মানে পেনশনে আছি তারাই কমিটিতে থাকবো যুবকেরা আমাদেরকে সাহায্য করবে এভাবে আমরা যদি করতে পারি তাহলে দেশ উপকৃত হবে।আল্লাহ আমাকে সহ সবাইকে সঠিক ভাবে বুঝার এবং সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করার ক্ষমতা দান করুন। আমিন
Mohammed Shah Alam Khan ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৮:২৪ এএম says : 1
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুবই সত্য কথা বলেছেন, এখন বিদ্যুৎ সংযোগ মানুষের দ্বারে দ্বারে মানুষকে আর জুতার তলী খয় করতে হয়না বিদ্যুৎ লাইন পাবার জন্যে চাইবা মাত্রই পাওয়া যায়। সাথে সাথে আবার অবৈধ্য ভাবেও বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়া যায় যেটা আইনের বহির্ভূত। আমার জানামতে উত্তরা ১৩ নং সেক্টরের এমনি কয়েকজন বাড়ি দখলদার (ভুমি দস্যু) যাদের মালিকানার কোন কাগজ নেই তারা ভুয়া ডেভেলপার (সরকারি অনুমোদন বিহিন) সাজিয়ে ১২ নং সেক্টরে ডেসকোর অফিস থেকে লাইন নিয়ে দিব্বি বাতি জ্বালাচ্ছেন। এমনকি মেইন মীটারও সেই ভুয়া ডেভেলপার যিনি কোনদিনও এই বাড়িতে থাকেন নাই তার নামে নিয়ে চালাচ্ছেন। মালিকের প্রতিবাদের পর মালিককে ঐ ভুয়া ডেভেলপারের লাইনের অধিনে তিনিটা মীটার ভুয়া ডেভেলপারের নেয়া ৬টা থেকে দেয়া হয়েছে। এটা কোন আইনে ডেসকো করেছে এর জবাব কে দিবে??? ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় এধরনের প্রচুর অভিযোগ আমার কাছে আছে তাই আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলতে চাই আপনি জনগণের স্বার্থে এসব উন্নয়ন করছেন আর আপনার নিয়ন্ত্রিত লোকজন আন্যায় ভাবে সেই জনগণকে তাদের প্রাপ্য না দিয়ে অন্যায় ভাবে বানিজ্যের মাধ্যমে বিদ্যুৎ এর লাইন দিয়ে যাচ্ছে। আমরা প্রধানমন্ত্রী সাথে সাথে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী ন্স্রুল হামিদ বিপুকে অনুরোধ করছি আপনারা কঠিন হাতে এসব দুর্নীতিগ্রস্ত ডিসকোর কর্মরত লোকদেরকে প্রতিহত করে সাধারন জনগণকে তাদের ন্যায্য পাওনা পাবার সুব্যাবস্থা করবেন। আমিন
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন