ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সেনবাগে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ, ধর্ষক আটক

নোয়াখালী ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৭ এপ্রিল, ২০১৯, ১:২৯ পিএম

সেনবাগ উপজেলার ছাতারপাইয়া ইউনিয়নে ৩য় শ্রেণির এক ছাত্রী (৯) ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন অভিযুক্ত সিএনজি অটোরিকশা চালক রাজন (২৫) কে আটক করে পুলিশে দেওয়ার পর পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় তার সহযোগীরা। পরে তাকে পুনরায় আটক করে।

শনিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে আশংকাজনক অবস্থায় ভিকটিমকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এরআগে দুপুর ২টার দিকে বসন্তপুর বাজারের একটি সিএনজি গ্যারেজের ভিতরে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃত রাজন ছাতারপাইয়া ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামের সফিক উল্যার ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যালয় থেকে বাড়ীতে যাচ্ছিল ৩য় শ্রেণির ছাত্রী। পথে তাঁর প্রতিবেশী ও সিএনজি চালক রাজন তাঁকে বাড়ীতে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে সিএনজিতে তুলে নেয়। পরে রাজন বসন্তপুর বাজারে এনে ভিকটিমকে সিএনজি থেকে নামিয়ে গ্যারেজের ভিতরে নিয়ে ধর্ষণ করে। এসময় ভিকটিমের চীৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এসে রাজনকে আটক করে থানায় খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে রাজনকে থানায় নিয়ে যাওয়ার সময় তার সহযোগী মিজান ও আলমগীর ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে রাতে ছাতারপাইয়া বাজারে অভিযান চালিয়ে পুনরায় রাজনকে আটক করে পুলিশ।

এদিকে, ধর্ষণের শিকার শিশুটিকে প্রথমে তার স্বজনরা সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানকার চিকিৎসকেরা শিশুটিকে দ্রুত নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দিলে রাতে শিশুটিকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নোয়াখালীর জেনারেল হাসাপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সৈয়দ মহি উদ্দিন আব্দুল আজিম জানান, ভিকটিমকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার শারীরিক পরীক্ষা করা হচ্ছে।

সেনবাগ থানার সহকারি উপ-পরিদর্শক (এএসআই) গোপাল সূত্রধর বলেন, পুলিশের কাছ থেকে আসামী নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি সত্য নয়। ভিকটিমকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন