ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

বিনোদন প্রতিদিন

সিনেমার জন্য এখনও প্রস্তুত নই-সাবিলা নূর

মারুফ সরকার: | প্রকাশের সময় : ১৮ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

ছাট পর্দার ব্যস্ত অভিনেত্রীদের মধ্যে বর্তমান সময়ে বেশ গুছিয়ে কাজ করছেন সাবিলা নূর। গত বছর বেশ কিছু নাটকের কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও বছরের শেষের দিক থেকে পড়াশোনার জন্য কাজ কমিয়ে দিয়েছেন। এখন পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে কাজ করছেন। সম্প্রতি একটি বিদেশি বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছেন তিনি। তার সাম্প্রতিক কাজ ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে কথা হয়।
অভিনয়ে এখন তেমন দেখা যাচ্ছে না আপনাকে। এর কারণ কি?
আমি কাজ নিয়ে এখন ঝুব চুজি। বেছে বেছে কাজ করি। অনেক কাজ করতে হবে, তা বিশ্বাস করি না। দর্শক মনে দাগ কাটার জন্য একটা নাটকই যথেষ্ট। তাছাড়া আমার এখন পড়াশোনা নিয়ে বেশ চাপ যাচ্ছে। একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছি। এখন পঞ্চম সেমিস্টারে আছি। অনার্স শেষ করতে আরও এক থেকে দেড় বছর সময় লাগবে। এ কারণে এখন খুব বেশি কাজ করা হচ্ছে না। পড়াশোনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত অভিনয়ে পুরোপুরি নিয়মিত হতে পারবো না।
ঈদের কাজ কি শুরু করেছেন?
হ্যাঁ। এরমধ্যে ৩টা ঈদের নাটকের কাজ করেছি। হাতে আরও ৫টা নাটক আছে। সেগুলোর শিডিউল দিয়ে রেখেছি। আগামী ২২ এপ্রিল থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত আমার পরীক্ষা। এরপর কাজগুলো করবো।
আপনি একটি আন্তর্জাতিক বিজ্ঞাপন করেছেন। বিষয়টি কি ?
এটা একটা মোবাইল ফোন কোম্পানির বিজ্ঞাপন। এটার নাম এখনও জানি না। গত ২৭ ও ২৮ মার্চ বিজ্ঞাপনটির শূটিং করেছি দুবাইতে। বিজ্ঞাপনটি নির্মাণ করেছেন হলিউড নির্মাতা পিটার প্যাসিক। ২০০১ সালে নিউ ইয়র্ক চলচ্চিত্র উৎসবে ‘সলিটার’ সিনেমার জন্য সেরা নবাগত পরিচালকের পুরস্কার পান এই নির্মাতা।
কাজটির সাথে যুক্ত হলেন কিভাবে?
গত বছর এই কোম্পানির একটি অনলাইন বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছিলাম। সেসময় তারা আরও কিছু বিজ্ঞাপনচিত্রের জন্য আমার সাথে ছয় মাসের চুক্তি করেছে। সেই চুক্তির প্রথম কাজ এই বিজ্ঞাপনটি। আর এই ফোন কোম্পানিটি নতুন, ঈদেই বাজারে আসবে। রমজান মাসে এটি দেশটির প্রায় সব টিভি চ্যানেলে, এমনকি অন্য দেশের স্যাটেলাইট চ্যানেলেও প্রচার হবে।
কাজের মানের বিষয়টি কিভাবে বিবেচনা করেন?
গত দুই ঈদে আমার বেশকিছু নাটক থেকে দর্শক সাড়া পেয়েছি। অনেক দর্শক মন্তব্য করেছেন, আমি আগের যে সাবিলা নূর ছিলাম, তা থেকে বের হয়ে ভিন্ন রকম চরিত্রে কাজ করেছি যেগুলো তাদের পছন্দ হয়েছে। এখন আমি এটা মেনেই কাজ করছি। গতবার আমি যে মান বজায় রেখে কাজ করেছি সেটা থেকে আরও ভালো কিছু করতে, আমার অভিনয় ইমপ্রুভ করতে, ভিন্ন চরিত্রে কাজ করতে চেষ্টা করছি। বেশি কাজ করার চেয়ে কাজের মান প্রাধান্য দিয়ে কাজ করছি।
এখন অনলাইনের যুগ। একটা কাজ দেখার পর দর্শক খুব সহজেই মন্তব্য করতে পারছে। এক্ষেত্রে দর্শকরা যে মন্তব্যগুলো করে সেগুলো আপনাদের পরবর্তী কাজে কতটা প্রভাব ফেলে?
এটা ঠিক। এখন একটা কাজ প্রকাশ হওয়ার পর সেটা দেখে দর্শক মন্তব্য করতে পারছেন। এতে পজেটিভ এবং নেগেটিভ থাকবেই। নেগেটিভ যখন দেখি তখন মন খারাপ হওয়া স্বাভাবিক। তবে আমার কাজের ক্ষেত্রে এত বেশি পজেটিভ মন্তব্য পাচ্ছি যে, নেগেটিভ নিয়ে ভাবার সময়ই নেই বলতে গেলে। পজেটিভ মন্তব্যগুলোকে একটা মোটিভেশন হিসেবে নিয়ে পরবর্তী কাজে অ্যপ্লাই করার চেষ্টা করি। দর্শকদের কথা মাথায় রেখে কাজ করি। তারা যে মন্তব্য করে কখনও যেন সেটা থেকে নিচে নেমে কাজ না করি বরং তার চেয়ে ভালো কিছু করি সে চেষ্টাটা করি।
ছোট পর্দার অনেকেই এখন সিনেমায় কাজ করছেন। সিনেমায় কি আপনার আগ্রহ নেই?
সত্যি বলতে, আমি এখনও বড় পর্দার জন্য প্রস্তুত নই। যখন প্রস্তুত হবো তখন অবশ্যই কাজ করবো। সবারই বড় পর্দায় কাজ করার ইচ্ছা থাকে, আমারও আছে। যখন মনে করবো বড় পর্দায় কাজ করার জন্য শতভাগ প্রস্তুত এবং আমি আমাকে নতুনভাবে উপস্থাপন করতে পারবো তখনই কাজ করবো, তার আগে নয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন