ঢাকা, রোববার , ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১০ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

গৌরীপুরে ইয়াবা রেখে ব্যবসায়ীকে ফাঁসাতে গিয়ে ৫ পুলিশ আটক, মহাসড়ক অবরোধ-বিক্ষোভ

ময়মনসিংহ ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৯ এপ্রিল, ২০১৯, ৬:১০ পিএম

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে ফ্লেক্সিলোড ব্যবাসায়ীর দোকানে ইয়াবা রেখে এক ব্যবসায়ীকে ফঁসানোর অভিযোগে গৌরীপুর থানার ৫ পুলিশ সদস্যকে আটক করে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। রবিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার রামগোপালপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে।
রামগোপালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল আমিন জনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি দাবি করেন, ফ্লেক্সিলোড ব্যবাসায়ী খোকন মিয়ার দোকানে পুলিশ ইয়াবা রেখে তাঁকে বেদম মারধর করে। একপর্যায়ে ব্যবসায়ী খোকন জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। কিন্তু স্থানীয়দের কাছে বিষয়টি সন্দেহ হলে তারা পুলিশকে চ্যালেঞ্জ করে। পরে ওই দোকানে থাকা সিসি ক্যামেরায় দেখা যায়, পুলিশ সদস্যরাই সেখানে কৌশলে ইয়াবা রেখে দোকানিকে ফাঁসানোর চেষ্টা করে। এ ঘটনায় উত্তেজিত জনতা পুলিশ সদস্যদের আটকে রেখে তাদের বিচার দাবি করে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন।
ইউপি চেয়ারম্যান জনি আরো জানান, খোকন ভালো ছেলে। সে অধূমপায়ী। অথচ তাঁকেই ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে চেয়েছিল পুলিশ। পরে পুলিশ খোকনকে আটক করে নিয়ে যেতে চাইলে জনতা বাধা দেয়। এর জের ধরেই পুলিশের বিচার দাবি করে জনতা রাত ১২টা পর্যন্ত মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। ইউপি চেয়ারম্যান আরো বলেন, ‘পুলিশ সিসি ক্যামেরার মেমোরি ও তার ছিঁড়ে নিয়ে গেছে। হাজার হাজার মানুষ পুলিশের অপরাধ দেখেছে। আশা করি, অপরাধী পুলিশ সদস্যদের বিচার হবে।’
তবে এসআই আনোয়ার দাবি করেছেন, ‘ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসার পাশাপাশি খোকন ইয়াবা বিক্রি করে জেনে তাঁর দোকানে অভিযান চালিয়ে একটি পুঁটলি উদ্ধার করি। কিন্তু স্থানীয়রা খোকনকে ভালো মানুষ দাবি করে আমাদের আটক করে বিক্ষোভ করে।’
গৌরীপুর থানার ওসি আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেন, ‘যদি পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের অভিযোগ সত্য হয়, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরো জানান, জনতার হাতে আটক ৫ পুলিশ সদস্যকে রবিবার রাত ১২টার দিকে থানা থেকে পুলিশ গিয়ে নিয়ে এসেছে। তাঁরা হলেন- এসআই আবদুল আওয়াল, এসআই আনোয়ার, এএসআই রুহুল আমিন, এএসআই কামরুল ও কনস্টেবল আল-আমিন। ওসি আরো জানান, অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু তাদের ক্লোজ সংক্রান্ত কোন আদেশ কপি এখনো হাতে পাইনি।
তবে গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাকের আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, ওই ৫ পুলিশ সদস্যকে ক্লোজ করে পুলিশ লাইনে নেয়া হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ঘটনার তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন