ঢাকা, বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

গোপালগঞ্জে প্রতারণা করে বিয়ের অভিযোগ

দুই সহোদরকে জুতাপেটা : জরিমানা

প্রকাশের সময় : ৩০ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

গোপালগঞ্জ জেলা সংবাদদাতা : গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে প্রতারণা করে বিয়ের অভিযোগে সালিশীর নামে দুই সহোদরকে প্রকাশ্যে জুতাপেটা ও ৪ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন চেয়ারম্যান ও স্থানীয় মাতুব্বাররা। গত বুধবার কাশিয়ানী উপজেলার সরাইকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বেথুড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন মিয়া, ফুকরা ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ইমদাদুল হক মোল্যা সালিশীতে উপস্থিত থেকে এ রায় দেন।  এ ঘটনার পর থেকে সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারটি চরম হতাশাগ্রস্থ হয়ে চরম আতঙ্কের মধ্যে জীবনযাপন করছে। স্থানীয়রা জানান, সরাইকান্দি গ্রামের সুকুমার মল্লিক মরার ছেলে পঙ্কজ কুমার মল্লিক নিজ ধর্ম গোপন রেখে ঢাকার সাভারে সাথী আক্তার স্বর্ণা নামে একটি মেয়েকে বিয়ে করেন। এরপর পঙ্কজ ও স্বর্ণা দু’জনে দীর্ঘদিন যাবৎ ওই এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে সংসার করে আসছিল। হঠাৎ করে পঙ্কজ স্বর্ণাকে ফেলে গোপনে নিজ গ্রাম সরাইকান্দিতে পালিয়ে এসে পুনরায় বিয়ে করেন। স্বর্ণা কোন এক মাধ্যমে পঙ্কজের গ্রামের বাড়ির ঠিকানা জানতে পারে। এক পর্যায় গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্বর্ণা তার অভিভাবকদের নিয়ে পঙ্কজের বাড়িতে উঠে।
খবর পেয়ে রামদিয়া পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মোঃ হাদী আব্দুল্লাহ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় স্থানীয়রা সামাজিকভাবে বিষয়টি মিটিয়ে ফেলার কথা বলে পুলিশের ওই কর্মকর্তাকে ঘটনাস্থল থেকে ফিরিয়ে দেন। বুধবার গ্রামের সোহরাফ শেখের বাড়িতে স্থানীয় কয়েকশ’ লোকের উপস্থিতিতে সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়। বায়ে পংকজ এরাতার ভাই পীযুষকে ৫০টি করে জুতাপেটা এবং ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।
এ ব্যাপারে বিচারক বেথুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে বিচার করা হয়েছে, এ ধরণের টুকিটাকি বিচার মাঝে মধ্যে গ্রামাঞ্চলে হয়ে থাকে।
এ ব্যাপারে কাশিয়ানী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মিজানুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এ ধরণের কোন তথ্য আমার জানা নেই, তবে যারা বিচার করেছে তারা অন্যায় করেছে।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন