ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

মর্যাদাপূর্ণ মাস রমজান

এ. কে. এম. ফজলুর রহমান মুন্শী | প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

রমজান মাস মুসলিম মিল্লাতের জন্য এক মর্যাদাপূর্ণ মাস। এ মাসের আগমনী বার্তার সুসংবাদ স্বয়ং রাসূলুল্লাহ (সা.) প্রদান করেছেন। হযরত সালমান আল ফারসি (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেছেন রাসূলুল্লাহ (সা.) শাবান মাসের শেষ দিন আমাদের সম্বোধন করে এক ভাষণ দেন। এতে তিনি বললেন : হে জনগণ! তোমাদের ওপর এক মহাপবিত্র ও বরকতময় মাস ছায়া বিস্তার করেছে। এই মাসের একটি রাত বরকত ও ফজিলত, মাহাত্ম্য ও মর্যাদার দিক দিয়ে হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম। এই মাসের রোজা আল্লাহ পাক ফরজ করেছেন এবং এর রাতগুলোতে আল্লাহর সম্মুখে দাঁড়ানোকে নফল ইবাদত রূপে নির্দিষ্ট করেছেন। যে ব্যক্তি এ রাতে আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের আশায় ফরজ নয়, এমন ইবাদত (ওয়াজিব, সুন্নত, নফল) আদায় করবে; সে অন্যান্য সময়ের সত্তরটি ফরজ ইবাদতের সমান সওয়াব লাভ করবে। এই মাস সবর, ধৈর্য, সহিষ্ণুতা ও তিতিক্ষার মাস। সবরের বিনিময়ে আল্লাহর নিকট জান্নাত লাভ করা যাবে। এটি পরস্পর সহৃদয়তা ও সৌজন্য প্রদর্শনের মাহিনা। এ মাসে মুমিনের রিজিক সুপ্রশস্ত করে দেয়া হয়। এ মাসে যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে, এর বিনিময়ে তার গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে এবং জাহান্নাম থেকে তাকে নিষ্কৃতি দেয়া হবে। আর তাকে আসল রোজাদারের সমান পুণ্য দেয়া হবে। কিন্তু এর জন্য আসল রোজাদারের সওয়াব বিন্দুমাত্রও কম করা হবে না। হযরত সালমান আল ফারসি (রা.) বলেন, আমরা নিবেদন করলাম, হে আল্লাহর রাসূল? আমাদের মধ্যে প্রত্যেকেই রোজাদারকে ইফতার করানোর সামর্থ্য রাখে না। এই দরিদ্র লোকেরা এই সওয়াব কিভাবে লাভ করবে? তখন রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন : যে ব্যক্তি রোজাদারকে একটি খেজুর, দুধ বা এক ঢোক সাদা পানি দ্বারাও ইফতার করাবে সে ব্যক্তিকেও আল্লাহ পাক এই পুণ্য দান করবেন। আর যে ব্যক্তি একজন রোজাদারকে পূর্ণরূপে পরিতৃপ্ত করবে, আল্লাহপাক তাকে আমার হাউজে কাওছার থেকে পানীয় পান করাবেন। যার ফলে জান্নাতে প্রবেশ না করা পর্যন্ত সে কখনো পিপাসার্ত হবে না।
এটি এমন এক মাস যে, এর প্রথম দশ দিন রহমতের বারিধারায় পরিপূর্ণ। দ্বিতীয় দশ দিন ক্ষমা ও মার্জনার জন্য নির্ধারিত। শেষ দশ দিন জাহান্নাম থেকে মুক্তি ও নিষ্কৃতি লাভের উপায় রূপে নির্দিষ্ট। আর যে ব্যক্তি এই মাসে নিজের অধীনস্থ লোকদের শ্রম-মেহনত হ্রাস বা হালকা করে দেবে, আল্লাহপাক তাকে ক্ষমা দান করবেন এবং তাকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি ও নিষ্কৃতি দান করবেন। আমিন!

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন