ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

খেলাধুলা

সাকিবকে গর্জে ওঠার আহ্বান

‘বাংলাদেশ কাউকে ভয় পায় না’

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ মে, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজটা ছিল বাংলাদেশের জন্য বড় পরীক্ষা। সেই পরীক্ষাটা বেশ ভালোভাবেই উতরে গেছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে বাংলাদেশ হয়েছে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন, ঘুচেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একটি শিরোপার আক্ষেপও। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশ যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী বলে জানিয়েছেন দলের প্রধান কোচ স্টিভ রোডস। তার মতে, বাংলাদেশ প্রতিপক্ষকে সম্মান করলেও কাউকে ভয় পায় না।

আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের কন্ডিশন প্রায় একই। ত্রিদেশীয় সিরিজের অভিজ্ঞতাটা তাই বিশ্বকাপে কাজে লাগবে। বিশ্বকাপে ভালো করার জন্য বাংলাদেশ বেশ ভালো অবস্থানে আছে বলেই মনে করেন কোচ। কার্ডিফে গতপরশু পাকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপের অফিসিয়াল প্রস্তুতি ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর এবার সামনের দিকে তাকিয়ে রোডস। বলেছেন, ‘আমাদের ড্রেসিংরুমটা এখন বেশ আত্মবিশ্বাসী। তবে সবাই এটাও জানে যে, আমাদের অনেক শক্তিশালী দলের বিপক্ষে খেলতে হবে। আমরা প্রতিপক্ষকে সম্মান করি; কাউকে ভয় করি না।’
স্বাভাবিকভাবে বাংলাদেশ বিশ্বকাপে ফেবারিটের তালিকায় নেই। অবশ্য আন্ডারডগ হওয়াতেও কোনো সমস্যা দেখছেন না কোচ, ‘আসলে আমরা ভালো খেলতে চাই, তাতে আমাদেরকে আন্ডারডগ তকমা লাগালেও সমস্যা নেই। বরং এটা একদিক দিয়ে ভালোই। কারণ, আমরা যদি কয়েকটা বড় দলকে হারিয়ে দিই, তাহলে সবাই আমাদের নিয়ে কথা বলবে। আমরা কীভাবে এটা করলাম, এসব চিন্তাভাবনা করবে। আমাদের ম্যাচের সময় চাপ সামলানোটা শিখতে হবে।’

রোডস বাংলাদেশের দায়িত্ব নিয়েছেন এখনো এক বছর হয়নি। এই অল্প সময় কীভাবে দলকে বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুত করেছেন, সেটা জানালেন এই ইংলিশ কোচ, ‘আসলে আমি আসার আগেই দল ওয়ানডেতে সঠিক পথে এগোচ্ছিল। আমি সেই পথে বাধা হতে চাইনি, ওদের জন্য নিজের কোচিং স্টাইলকেও মানিয়ে নিয়েছি। শুরুতে এটা একটু কঠিন ছিল, পরে সবাইকে নিজেদের দায়িত্বটা ভাগ করে দিয়েছি। যতটা পেরেছি সাহায্য করেছি।’
তবে সেই দায়িত্ব সকলের চাইতে কিছুটা বেশি সাকিব আল হাসানের। টানা তিন বিশ্বকাপে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার হয়ে খেলতে যাচ্ছেন বাংরাদেশ সহ-অধিনায়ক। বাংলাদেশের পঞ্চপাণ্ডবের অন্যতম এই পাণ্ডবের ওপর নির্ভর করছে অনেক কিছু। তাকে ঘিরে যে আশার ভেলায় মানুষ চড়তে চাইছে তা অজানা নয় রোডসের। মাঝে চোটের কারণে মাঠের বাইরে ছিলেন, হারিয়েছিলেন সিংহাসনও। বাংরাদেশের হেড কোচ মনে করেন হারানো মুকুট ফিরে পেলেও নতুন করে তার প্রমাণ করার মঞ্চ আসন্ন এই বিশ্বকাপ।

আঙুলের চোট বেশ বিপদে ফেলে দেয় সাকিবকে। নিউজিল্যান্ড সফরে ছিলেন না, তবে ত্রিদেশীয় সিরিজে ফিরে ব্যাটে-বলে কার্যকরী ভূমিকায় ছিলেন। দুটি ফিফটিতো ছিলোই, বোলিংটাও ছিলো মিতব্যয়ী। নতুন করে র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষে ওঠায় নিজেকে প্রমাণ করতে একভাবে গর্জে ওঠার আহ্বান জানালেন রোডস, ‘টুর্নামেন্টে ভালো কিছু করতে সে মুখিয়ে আছে। আমার মনে হয় কিছু জিনিষ তাকে প্রমাণ করতে হবে, সেও সেটা মনে করে। মাঝে হয়তো সবাই তাকে ভুলে যেতে বসেছিলো, কিন্তু সে এখন পুনরায় ওয়ানডের এক নম্বর অলরাউন্ডার। আমার মনে হয় এটাই তার আসল জায়গা। তবে এর জন্য তাকে প্রমাণ করতে হবে যাতে সবাই তা বিশ্বাস করে।’ ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে সাইড স্ট্রেইনের কারণে খেলতে পারেননি সাকিব। তবে এখন পুরোপুরি সুস্থ, সেই কথা মনে করিয়ে রোডস বললেন, ‘সাকিব এখন ভালো আছে। শারীরিকভাবে দারুণ অবস্থানে আছে, আয়ারল্যান্ডে কিছু সমস্যা ছিলো কিন্তু তা কাটিয়ে উঠেছে।’

সাকিবের মতো কাঁধের জটিলতা ছিলো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদেরও। তাতে বেশ কিছু ম্যাচে শুধু ব্যাটসম্যানের ভূমিকাতেই দেখা গেছে তাকে। তবে রোডস মনে করেন, ‘মাহমুদউল্লাহর কাঁধ কিছুটা ধীর গতিতে কাজ করছে। আমার মনে হয় প্রস্তুতি ম্যাচে সে পাকিস্তানের বিপক্ষে বোলিং করতে পারতো না। আশা করছি বিশ্বকাপের মঞ্চে তাকে পুরোপুরি ফিট অবস্থায় পাবো। তবে এটা আমাদের ভারসাম্যতে প্রভাব ফেলছে তাতে সন্দেহ নেই।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন