ঢাকা, সোমবার ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

সারা বাংলার খবর

পাসপোর্ট ছাড়াই প্রধানমন্ত্রীকে আনতে গিয়ে কাতারে আটকা পাইলট

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ জুন, ২০১৯, ৮:২৩ পিএম | আপডেট : ৮:৪৩ পিএম, ৬ জুন, ২০১৯

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আনতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ নিয়ে ঢাকা ছেড়েছিলেন পাইলট, তবে পাসপোর্ট না নেওয়ায় তাকে আটকে দেওয়া হয়েছে কাতারে।

ফজল মাহমুদ নামে ওই পাইলটের পাসপোর্ট কাতারমুখী অপর একটি ফ্লাইটে পাঠানো হয়েছে বলে বিমান সচিব মহীবুল হক জানিয়েছেন।

তিনি বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, “পাসপোর্ট ছাড়া ওই পাইলট কীভাবে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর পার হয়ে সেখানে গেলেন, তা অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করে দেখা হবে।”

পাসপোর্ট সঙ্গে না থাকায় ওই পাইলটকে বুধবার দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন আটকে দেয় বলে সোশাল মিডিয়ায় আলোচনার পর বিষয়টি সম্পর্কে সচিবের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল।

তিনি বলছেন, “বুধবার রাতের ওই ঘটনায় কাতারে ওই পাইলটকে আটক করা হয়নি। তাকে একটি হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।
“পরে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে তার পাসপোর্ট পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে ওই পাইলটই দেশে ফিরিয়ে আনবেন।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিন দেশে সরকারি সফরের অংশ হিসেবে বর্তমানে ফিনল্যান্ডে অবস্থান করছেন। শনিবার তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীকে আনতে বুধবার রাতে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমানের বোয়িং ৭৮৭ মডেলের ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজটি উড়াল দেয়। বিশেষ এই ফ্লাইটের পাইলট ছিলেন ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ।

রাতেই ওই ফ্লাইট কাতারের দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর পাইলটের পাসপোর্ট না থাকার বিষয়টি ধরা পড়ে বলে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
৬ জুন, ২০১৯, ১০:২২ পিএম says : 0
How irresponsible the pilot and get punished his negligence. Obscures he not able like this important post.
Total Reply(0)
ওমর ফারুক ৬ জুন, ২০১৯, ১০:১৫ পিএম says : 0
এত দায়িত্ববান পাইলট বিশ্বে প্রথম।
Total Reply(0)
firuzahmed ৭ জুন, ২০১৯, ১২:৫৮ এএম says : 0
ভুল হওয়া স্বাভাবিক। পাইলট না হয় ভুল করে নিতে ভুলে গিয়েছিল কিন্তু দ্বায়িত্বরত কর্মকর্তারা কি হাওয়া খাচ্ছিলো? এমন এমন দ্বায়িত্ব বান লোকের জন্যই বাংলাদেশের এই অবস্থা বিদেশেও আমাদের কে ছোট হতে হয়। এমন দ্বায়িত্বহীন লোকদের চাকরি বাতিল করা অতি জরুরী বলে আমি মনে করি। যাতে করে যে যার দ্বায়ীত্তের প্রতি সচেতন থাকে। যে এমন কাজের জন্য কত বড় সমস্যায় পড়তে হয়। তাহলেই সবাই সবার সঠিক দ্বায়িত্ব পালনে সতেষ্ঠ থাকবে।
Total Reply(0)
Abul Kalam Azad. ১০ জুন, ২০১৯, ৪:৪৬ পিএম says : 0
এই কাজটি মোটেও ঠিক করেননি বিমান চালক, একদিকে দেশের দুর্বল প্রশাসন ব্যাবস্হার পরিচয়টা বিদেশীদেরকে জানালেন অন্যজনকে মানলাম প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী পাইলট এখানে প্রধানমন্ত্রীর ভাবমূর্তি ও জড়িত।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন