ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ০৯ ভাদ্র ১৪২৬, ২২ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

স্ত্রীর নির্যাতন সইতে না পেরে পুলিশ স্বামীর মামলা

বরিশাল ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১২ জুন, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

যৌতুক দাবিকারী স্ত্রীর নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে বরিশাল অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেছে এক পুলিশ স্বামী। যৌতুকের দাবিতে নিয়মিত স্ত্রীর নির্যাতনের শিকার হতেন বরিশাল আরআরএফের সদস্য জিয়াদ খান। ফেসবুকে পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রায় ৯ মাস আগে অভিযুক্ত নারীকে বিয়ে করেছিলেন পুলিশ সদস্য। আদালত মামলার অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বরিশাল সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় অভিযুক্তরা হচ্ছেন স্ত্রী জান্নাতুল নাইমা ইতি, শাশুড়ি জাহানারা বেগম, শ্যালিকা ফাতেমা মুক্তি ও শ্যালক মহনা পঞ্চায়েত। জান্নাতুল কাশীপুর ইউনিয়নের বিল্ববাড়ি গ্রামের নাছির পঞ্চায়েতের মেয়ে।

জিয়াদ খান তার অভিযোগে জানায়, ফেসবুকের মাধ্যমে জান্নাতুল ও জিয়াদ খানের পরিচয় হয়। গত বছর ২৪ সেপ্টেম্বর জিয়াদকে জিম্মি করে বিয়ের কাবিন করে জান্নাতুল। এরপর আরআরএফ পুলিশ লাইন্স সংলগ্ন সুলতান গাজীর বাসা ভাড়া নিয়ে তারা সেখানে বাস করতেন।
গত ১১ এপ্রিল রাতে অন্য আসামিরা তার বাসায় বেড়াতে গেলে তাদের উপস্থিতিতে স্ত্রী জান্নাতুল স্বামীর কাছে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। টাকা দিতে অস্বীকার করায় বাসায় রাখা নগদ ১ লাখ ২০ হাজার টাকাসহ অন্যান্য মূল্যবান মালামাল নিয়ে জান্নাতুল পিত্রালয়ে চলে যায়। স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করলে স্বামী গৃহে ফিরে যাবার জন্য ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেছে স্ত্রী।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
MD Masud Holader ১২ জুন, ২০১৯, ১০:২৪ এএম says : 0
সময় এখন বদলে গেছে
Total Reply(0)
তানবীর ১২ জুন, ২০১৯, ১০:২৪ এএম says : 0
ও মনু এইডা মুই কি হুনলাম
Total Reply(0)
বাবুল ১২ জুন, ২০১৯, ১০:২৫ এএম says : 0
দেশ এগিয়ে যাচ্ছে ..........
Total Reply(0)
দুলাল ১২ জুন, ২০১৯, ১০:২৬ এএম says : 0
বিষয়টি কেমন জানি মনে হচ্ছে। সঠিক তদন্তের প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।
Total Reply(0)
মনিরুল ইসলাম ১২ জুন, ২০১৯, ১০:২৮ এএম says : 0
প্রথমত পুরুষ, দ্বিতীয়ত পুলিশ; তারপরও এই অবস্থা ?
Total Reply(1)
onamika ১২ জুন, ২০১৯, ১১:২০ এএম says : 0
Now digital bangla any thing can possible let proper investigation but its difficult to trust police member .

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন