ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

ব্যবসা বাণিজ্য

বিকাশ-রকেটের ব্যালান্স চেক করতে ৪০ পয়সা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ জুন, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (বিকাশ, রকেটের মতো সার্ভিসগুলো) অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্স দেখতে প্রতিবার ৪০ পয়সা দিতে হবে গ্রাহকদের। এতদিন মোবাইল অপারেটরগুলো এ সেবা বিনামূল্যে দিলেও এখন থেকে গ্রাহকদের প্রতিবার ব্যালান্স দেখার জন্য অর্থ পরিশোধ করতে হবে। ফলে বিকাশ, রকেট, নগদ, ইউক্যাশসহ সব মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্স দেখতে ৪০ পয়সা করে গুণতে হবে গ্রাহককে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) নির্দেশে সব মোবাইল অপারেটর এটি কার্যকর করতে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানগুলোই এই অর্থ দেবে, নাকি সরাসরি গ্রাহকের কাছ থেকে নেওয়া হবে, তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। গ্রাহককে দিতে হলে হিসাব পরিচালনায় তাঁদের ব্যয় বাড়বে।

বৃহস্পতিবার এ-সংক্রান্ত এক নিদের্শনা জারি করা হয়েছে, যা রোববার ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। নির্দেশনায় বলা হয়, মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসে প্রতিবার লেনদেন, ব্যালেন্স চেক বা স্টেটমেন্ট নেওয়াসহ নানা ধরনের কাজকে একেকটি সেশন ধরা হবে। প্রতিটি সেশনের সময় হবে ৯০ সেকেন্ড। প্রতি ৯০ সেকেন্ডের একেকটি সেশনের জন্য মোবাইল ফোন অপারেটরদের ৮৫ পয়সা করে দিতে হবে। এছাড়া একেকটি সেশনের মধ্যে দুটি এসএমএসও থাকবে। তবে শুধু ব্যালেন্স চেক করতে গ্রাহককে সেশনের চার্জ দিতে হবে ৪০ পয়সা। মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবার জন্য এমএফএস অপারেটররা মোবাইল অপারেটরদের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে। এ নেটওয়ার্ক ব্যবহারের জন্যই এখন থেকে এমএফএস অপারেটদের তাদের পয়সা দিতে হবে।

এদিকে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) নিয়ে বিটিআরসির সমন্বিত নির্দেশনাকে স্বাগত জানিয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটর রবি। অপারেটরটির পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, গত চার বছর ধরে বাংলাদেশ ব্যাংক, বিটিআরসি, মোবাইল অপারেটর এবং এমএফএস সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের দীর্ঘ আলোচনার পর সবার ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে দীর্ঘদিনের দাবি সেশন-ভিত্তিক চার্জ শেষ পর্যন্ত বাস্তবায়িত হচ্ছে। এই চার্জ মোবাইল অপারেটরকে প্রদান করবে সংশ্লিষ্ট এমএফএস সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান, গ্রাহকদের ওপর এ চার্জ বর্তাবে না। এমএফএস সেবার শুরু থেকেই এ চার্জগুলো অন্তর্ভুক্ত ছিল যা থেকে মোবাইল অপারেটররা বঞ্চিত ছিল। অথচ এ খাতের বিকাশের মূল হাতিয়ার দেশজুড়ে বিস্তৃত মোবাইল ফোন নেটওয়ার্ক। এই নির্দেশনাটির মাধ্যমে ব্যয়বহুল এই অবকাঠোমার গ্রহণযোগ্য একটি আর্থিক প্রবাহ নিশ্চিত হয়েছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Sanjina Nowab Sarnonki ১৮ জুন, ২০১৯, ১১:২১ এএম says : 0
এই তো সরাসরি ডাকাতি। আর কত ডাকাতি করবে সরকার।
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন