ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

৩ শতাধিক ট্রেনযাত্রীর প্রাণ বাঁচালেন শাহান মিয়া

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ জুন, ২০১৯, ১০:২৯ এএম

মধ্যরাতে ন্যাশনাল ইমারজেন্সি সার্ভিস ৯৯৯ নম্বরে কল পেয়ে চমকে ওঠে পুলিশ। মোবাইলের অপরপ্রান্ত থেকে এক যুবক পুলিশকে জানান ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার খবর। সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা হয় পুলিশ। পৌঁছে দেখে ঘটনা সত্য। হয়তো ওই যুবক সময়মতো ফোন না দিলে আরও অনেক প্রাণহানি ঘটে যেত।
গতকাল রোববার দিবাগত রাত পৌনে ১২টার দিকে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় বরমচাল সেতু ভেঙে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার পরপরই ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেন শাহান মিয়া। পুলিশকে ট্রেন দুর্ঘটনার খবর জানান। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযানে নামে পুলিশ। শাহান মিয়ার বাড়ি কুলাউড়ার আকিলপুর গ্রামে। তিনি কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী।
ট্রেন দুর্ঘটনার বর্ণনা দিয়ে শাহান মিয়া বলেন, বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলাম। বরমচাল সেতুর অনেকটা দূরে থাকতে হঠাৎ বিকট শব্দ কানে আসে। সেই সঙ্গে ভেসে আসে মানুষের কান্না, চিৎকার। দূর থেকে তাকিয়ে দেখি বরমচাল সেতু ভেঙে ট্রেনের কয়েকটি বগি নিচে পড়ে আছে। কাছে যেতেই মানুষের কান্নার আওয়াজ আরও জোরে শুনতে পাই। ঘটনার ২-৩ মিনিটের মধ্যেই আমি ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেই, সঙ্গে সঙ্গে রিসিভ হয়। তখন পুলিশকে পুরো ঘটনা খুলে বলি। যদি পুলিশ সময়মতো না আসতো আরও অনেক মানুষের প্রাণহানি ঘটতো।
তিনি আরও বলেন, বরমচাল স্টেশন সংলগ্ন সেতুতে হঠাৎ ট্রেনের ছয়টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে খালে পড়ে যায় এবং একটি বগি উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই কয়েক জনের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় লাইনচ্যুত বগির যাত্রী ছাড়াও মারাত্মক ঝাঁকুনিতে অন্যান্য বগির অন্তত দুই শতাধিক যাত্রী আহত হন। ঘটনাস্থলে এসে আহতদের উদ্ধার করেছে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উয়ারদৌস হাসান বলেন, রাত ১২টার কিছুক্ষণ আগে এক ব্যক্তি ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিয়ে ট্রেন দুর্ঘটনার খবর জানায়। এত রাতে বড় ধরনের ট্রেন দুর্ঘটনার খবর শুনে আমরা অবাক হই। সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। সেখানে পৌঁছে ৬ জনের লাশ এবং অন্তত দুই শতাধিক মানুষকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। দুর্ঘটনার পরপরই ওই যুবক ৯৯৯ নম্বরে ফোন না দিলে নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারত।
ওসি আরও বলেন, ইতোমধ্যে উদ্ধারকাজ শেষ হয়েছে। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। হতাহতদের উদ্ধারে কাজ করেছে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও বিজিবি। ট্রেনের অন্য যাত্রীদেরও নিরাপদ স্থানে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন