ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ফার্মেসি থেকে সরানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে -স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ জুন, ২০১৯, ৯:০৫ পিএম

স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ফার্মেসি থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কোনও ফার্মেসিতে মেয়াদোর্ত্তীর্ণ ওষুধ রাখা যাবে না। আগামী ২ জুলাইয়ের মধ্যে ফার্মেসি থেকে মেয়াদোর্ত্তীণ ওষুধ সরিয়ে নিতে হবে। সোমবার (২৪ জুন) স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা জানান। এ সময় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম, ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবর রহমান ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ওষুধ শিল্প সমিতি ও বাংলাদেশ কেমিষ্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্টের প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে ফার্মেসিতে থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সরিয়ে নিতে বলেছেন। তারা এই বিষয়ে একমত হয়েছেন। ফার্মেসি থেকে মেয়াদোর্ত্তীর্ণ ওষুধ কোম্পানিগুলো নিজ দায়িত্বে নিয়ে যাবে। এ বিষয়ে ফার্মেসি মালিকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ফার্মেসিতে এ ধরনের ওষুধ ‘নট ফর সেল’ বা ‘বিক্রয়ের যোগ্য নয়’ লিখে পৃথক স্থানে সংরক্ষণ করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবর রহমান জানান, যারা ওষুধ প্রস্তুত করে তারা মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ফেরত নিতে যায় না। আমরা ওষুধ প্রস্তুতকারীদের সাথে বৈঠক করেছি, আমরা বলেছি মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ফেরত নিয়ে ধ্বংস করে আমাদের রিপোর্ট দিতে হবে। তারা মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ নিয়ে গিয়ে ধ্বংস করতে রাজি হয়েছেন। এখন থেকে তারা ফার্মেসি থেকে মেয়াদোত্তর্ণী ওষুধ নিয়ে ধ্বংস করবেন।

তিনি আরো জানান, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে। গত ছয় মাসে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সংরক্ষেণ দায়ে ৪০৪টির ফার্মেসির বিরুদ্ধে মোবাইলকোর্টে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে ৮১ লাখ ৯ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা ও ৫ জনকে কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন