ঢাকা, রোববার ২১ জুলাই ২০১৯, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

খেলাধুলা

নিজ দলের সমালোচনায় প্রোটিয়া অধিনায়ক

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ জুন, ২০১৯, ৪:৩২ পিএম

বিশ্বজয়ের অভিলাষ নিয়ে বিশ্বকাপ মঞ্চে পা রেখে প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায়- এমন করুণ অবস্থার জন্য নিজ দলকে নিয়ে সমালোচনা করলেন দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। দলের খেলোয়াড়দের দুর্বল পারফম্যান্স তাদের মধ্যম মানের দলে পরিণত করেছে বলে মনে করেন প্রটিয়া দলপতি।
রোববার লর্ডসে ধুকতে থাকা পাকিস্তানের কাছে ৪৯ রানের হারে বিশ্বকাপের শেষ চারে খেলার স্বপ্ন শেষ হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকার। টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্বে তাদের হাতে রয়েছে আর মাত্র দুটি ম্যাচ। এই নিয়ে দ্বিতীয়বারের মত টুর্নামেন্টের নকআউট পর্বে খেলতে ব্যর্থ হলো দক্ষিণ আফ্রিকা।
অলসতা এতটাই বেশি ছিল যে, পাকিস্তানের ছুড়ে দেয়া ৭ উইকেটে ৩০৮ রানের জবাবে ৯ উইকেটে ২৫৯ করতেই ঘাম ছুটেছে প্রোটিয়াদের। যা হজম করা ডু প্লেসিসের জন্য বেশ কঠিন, ‘এই মুহূর্তে আমাদের যে ফল তা অত্যন্ত কঠিন। আমাদের খেলা বিব্রতকর পরিস্থির শেষ সীমায় চলে গেছে। শুরুটা বোলিং থেকেই । অনেক বেশি বাজে বল হয়েছে। যদি শুধুমাত্র লাইন ও লেন্থ ঠিক থাকতো তবে ব্যাটসম্যানদের রান তোলা কঠিন হতো।’
প্রোটিয়া অধিনায়ক বলেন, ‘বোলিং পারফরমেন্স বিবেচনায় দশ এর মধ্যে পাঁচ পাওয়া যেতে পারে, ব্যাটিংয়েও একই অবস্থা। অথচ ব্যাটিংটা বেশ ভাল শুরু করেছিলাম। ভাল একটি পার্টনারশীপ হতে হতেই উইকেট হারালাম।
এই মুহূর্তে আমাদের দলটি মধ্যম মানে নেমে গেছে। কারণ আমরা বার বার একই ভুল করছি। এক ধাপ এগিয়ে গেলে দুই ধাপ পিছিয়ে যাওয়াটা ভাল কোন দলের লক্ষণ হতে পারে না।’ দলের খেলোয়াড়রা ধারাবাহিক আস্থাহীনতায় ছিল বলে মন্তব্য করেন ডু প্লেসিস।
রোববার দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৩ রান করেন অধিনায়ক। কিন্তু তার ওই অতি সাবধানতা দলের কোন কাজেই আসেনি। এরপর বেপরোয়া ভাবে উইকেট বিলিয়ে দিয়ে সাজ ঘরে ফিরে আসেন খেলোয়াড়রা। ফলে হাতছাড়া হয়ে যায় ম্যাচটি। ডু প্লেসিস বলেন, ‘আমাদের আত্মবিশ্বাস তলানীতে ঠেকেছে এবং বার বার একই ভুল করেছে। বাস্তব কথা হচ্ছে সহজেই এটি আমাদের দূরে ঠেলে দিয়েছে। আপনি সত্যিই হয়তো কঠোর পরিশ্রম করেছেন। পরের ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু একই ভুল করেছেন। এতে আপনাকে খেলোয়াড়ী মানষিকতা এবং আত্মবিশ্বাস থেকে দূরে সরিয়ে দিয়েছে।’
চলতি বিশ্বকাপে দক্ষিন আফ্রিকা এ পর্যন্ত সাত ম্যাচে অংশ নিয়ে ৫টিতেই হেরেছে। একমাত্র জয়টিও দুর্বল আফগানিস্তানের বিপক্ষে। দলের খেলোয়াড়দের সমস্যা খুঁজে বের করে সেখান থেকে মুক্তি লাভের আহ্বান জানান প্রোটিয়া অধিনায়ক, ‘কোচ বা আমি, একটি কথাই বলতে চাই, আপনি যদি আস্তাহীনতায় ভোগেন, তাহলে অবশ্যই উচিৎ হবে নিজ উদ্যোগে সেটি খুঁজে বের করে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা। সবাই দীর্ঘ সময় ধরেই এই খেলাটি খেলছেন। নিজেকেই উঁচু বা নিচু মান সম্পর্কে বুঝে নিতে হবে।’
ডু প্লেসিস বলেন, এটি তার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কম পয়েন্টে বিদায় নেয়ার ঘটনা, ‘একজন খেলোয়াড় এবং দলনেতা হিসেবে আমি গর্বিত। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে খেলা মানে আমার জন্য বিশাল কিছু। এখন মানুষ আমাদের সমালোচনা করছেন। এটি যথার্থই। কারণ আমরা সেই ক্রিকেট খেলছি না। যেমনটি খেলা উচিৎ ছিল। আমার নিজের জন্য, কোচের জন্য এবং দলের সিনিয়র সদস্যদের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে এগিয়ে এসে এই চ্যালেঞ্জের মোকাবেলা করা।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন