ঢাকা, সোমবার ২২ জুলাই ২০১৯, ০৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৮ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

সারা বাংলার খবর

উন্মুক্ত জলাশয়ে বাঁধ

নওগাঁ জেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৬ জুন, ২০১৯, ১২:১৩ এএম

নওগাঁর আত্রাইয়ে উন্মুক্ত জলাশয় ‘বিলসুতি’ তে মাছ চাষে স্থায়ীভাবে বাঁধ নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে একটি প্রভাবশালী মহলের বিরুদ্ধে। বাঁধ নির্মাণের ফলে স্থানীয় কৃষক ও মৎস্যজীবিরা পড়বেন চরম ক্ষতির মুখে।

স্থানীয়রা জানান, বরেন্দ্র বহুমুখী থেকে যে খাল খনন করা হয়েছে তার মুখ বন্ধ করে দিয়ে মাছ চাষ করতে প্রভাবশালীরা বাঁধ তৈরী করছেন। বাঁধ তৈরী করা হলে নিচের জমিগুলো ডুবে যাবে। কোন ফসল হবে না। এছাড়া গরু-ছাগলকে ওই মাঠে ৩ মাস ঘাস খাওয়ানো হয়। বাড়তি খড়ের দরকার হয় না। গত তিন বছর থেকে ওই জলাশয় থেকে পানি উঠানো যাচ্ছে না। আমার ঠিকমতো জমিতে পানিও দিতে পারছি না।

বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হলে গত বৃহস্পতিবার বাঁধ নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত দুইটি স্ক্যাবেটর জব্দ করা হয়। কিন্তু প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নতুন করে আবারও স্ক্যাবেটর নিয়ে এসে বাঁধ নির্মাণ কাজ অব্যহত রেখেছে। এইভাবে বাঁধ নির্মাণ করা হলে কয়েক হাজার কৃষক ফসলি জমি নিয়ে ও মৎস্যজীবিরা জীবিকা নির্বাহে বিপাকে পড়বেন বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, জেলার আত্রাই উপজেলার হাটকালুপাড়া ইউনিয়ন ও রাজশাহী বাঘমারা উপজেলার কিছু অংশ নিয়ে উন্মুক্ত জলাশয় ‘বিলসুতি’। বিগত প্রায় ৭ বছর আগে এ উপজেলার উন্মুক্ত জলাশয়ের অংশে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের খাল খনন করা হয়েছে। ফলে এ বিলের পানি গজমতখালি খাল দিয়ে নেমে শুটকিগাছা হয়ে আত্রাই নদীতে গিয়ে নামে। এ জলাশয়ে আষাঢ় থেকে অগ্রহায়ণ (৬মাস) পর্যন্ত পানি থাকে। এ পানি দিয়ে ওই ইউনিয়নের বড় শিমলা, চকশিমলাসহ কয়েকটি গ্রামের কৃষক প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমির বোরো ও আউশের আবাদ করে থাকেন। এছাড়া ওইসব গ্রামের প্রায় ৫শ মৎসীজীবি এ জলাশয়ে মাছ শিকার করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন।

বাঁধ নির্মাণ কাজের সাথে সম্পৃক্ত হাটকালুপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আমজাদ হোসেন বলেন, বাঁধ নির্মাণে করা হচ্ছে এতে কৃষক ও মৎস্যজিবীদের কোন ক্ষতি হবে না বরং তারা উপকৃত হবেন।

আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. ছানাউল ইসলাম বলেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্ক্যাবেটর মেশিন জব্দ করা হয়েছে। বাঁধ নির্মাণ কাজ বন্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। যারা এ কাজের সাথে সম্পৃক্ত তাদের একটি তালিকা তৈরী করা হয়েছে। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও মৎস্য কর্মকর্তাকে প্রধান করে দুই সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করে প্রতিদেন তৈরী করা হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন