ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১৭ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

আন্তর্জাতিক সংবাদ

নোংরা মার্কিন জেনারেল

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৭ এএম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের অধীনে থাকা এক সৈনিকের স্ত্রীর কাছে আপত্তিকর বার্তা পাঠান মার্কিন মেজর জেনারেল। এমন ঘটনাকে অনৈতিক হিসেবে বিবেচনা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী জেনারেলের পদমর্যাদা কেড়ে নেয়।

মেজর জেনারেল জোসেফ হ্যারিংটন অনলাইন যোগাযোগের মাধ্যমে ইতালিতে মার্কিন ঘাঁটিতে ওই সৈনিকের স্ত্রীর কাছে সহস্রাধিক বার্তা পাঠান। চারমাস ধরে তাদের মধ্যে ফেসবুকের মাধ্যমে বার্তা আদান প্রদান চলছিল। গত বছরের আগস্টে বিষয়টি মার্কিন সেনা কর্তৃপক্ষের নজরে আসে।

মার্কিন জেনারেল এবং ওই সৈনিকের স্ত্রীর মধ্যে বার্তাগুলো প্রথমে বন্ধুভাবাপন্ন থাকলেও পরবর্তীতে তা আপত্তিকর পর্যায়ে পৌঁছে। মার্কিন সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জেনারেল হ্যারিংটনকে দেয়া চিঠিতে তিরস্কার করে ‘ক্যারিয়ার কিলার’ বা পেশাহননকারী হিসেবে অভিহিত করা হয়।

চিঠিতে বলা হয়, জেনারেল হ্যারিংটনের এহেন আচরণ একজন শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা ও কমান্ডার হিসেবে খারাপ প্রতিফলন হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। চিঠি পাওয়ার পর জেনারেল হ্যারিংটন ওই সৈনিকের পরিবার ও সেনাবাহিনীর কাছে এক লিখিত বিবৃতি ক্ষমা চান। বিবৃতিতে হ্যারিংটন বলেন, আমাদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের ভেতর এধরনের আপত্তিকর বার্তা দেয়া মোটেও ঠিক হয়নি। আমি আশা করছি অন্যরা এ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করবে এবং আমার মত ভুল এড়াতে পারবে।

ওই সৈনিকের স্ত্রী গণমাধ্যমকে বলেন, ইতালির ভিচেঞ্জা জিমে জেনারেল হ্যারিংটনের সঙ্গে প্রথমে তার দেখা হয়। এরপর পর ফেসবুকের মাধ্যমে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু তার বার্তা এক পর্যায়ে আপত্তিকর ও যৌনাতœক কটাক্ষে পৌঁছায়।

এক সময় জেনারেল তাকে তার নার্স হিসেবে পাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে জানান তা তিনি খুব উপভোগ করবেন। তবে সম্পর্ক শারীরিক পর্যায়ে গড়ায়নি। অবশ্য চতুরতার সঙ্গে তার নগ্ন ছবি আশা করেছিলেন জেনারেল। এছাড়া ‘হটি’ বা ‘লাভলি টিজ’ ধরনের বিভিন্ন উত্তেজক বিশেষণে সম্ভাষণ করতেন হ্যারিংটন।

মার্কিন সেনাবাহিনীর মুখপাত্র সিনথিয়া স্মিথ বলেন, মেজর জেনারেল পদমর্যাদা থেকে মাত্র এক ধাপ নিচে নামিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে তিনি এমন আচরণ দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন যা উদাহরণ সৃষ্টি করে বলে জানান মার্কিন বিমান বাহিনীর সাবেক প্রধান আইনজীবী ডন ক্রিস্টেনসেন। সূত্র : ইউএস টুডে।

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন