সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে মুসলমানরা আজ সংখ্যালঘু? : পীর সাহেব চরমোনাই

ইসলামী আন্দোলন ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কমিটি গঠন

প্রকাশের সময় : ৪ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, ৯৫ ভাগ মুসলমানের এ দেশে ইসলাম ও মুসলমানদের অত্যন্ত দুর্দিন চলছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ধর্মনিরপেক্ষতাকে সাংবিধানিকভাবে রূপ দিতে মরিয়া সরকার। সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান আজ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ে পরিণত হয়েছে। চলতি বাজেটে হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য ২শ কোটি টাকা থোক রবাদ্দ দেয়া হয়েছে। দেশ ক্রমেই হিন্দুত্ববাদের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় কোনো মুসলমান নীরব বসে থাকতে পারে না। ইসলামবিনাশী সিলেবাসে দিয়ে আমাদের সন্তানদেরকে বেঈমান বানানোর প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। জনগণ তা রুখে দাঁড়াবে।
গতকাল বিকেল ৩টায় রাজধানীর কাজী বশির মিলনায়তনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন ২০১৬-এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সংগঠনের ঢাকা মহানগর সভাপতি অধ্যাপক হাফেজ মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারী মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম ও মাওলানা এইচ এম সাইফুল ইসলামের পরিচালনায় সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন খেলাফত আন্দোলনের আমীরে শরীয়ত মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী হুজুর, প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ মাদানী, মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, মুসলিম লীগের মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, সহকারী মহসাচিব মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, প্রকৌশলী আশরাফুল আলম, আতাউর রহমান আরেফী, ছাত্রনেতা হাসিবুর রহমান, জাতীয় শিক্ষখ ফোরামের সদস্য সচিব মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন, মোঃ ফজলুল হক মৃধা প্রমুখ।
সম্মেলনে মাওলানা ইমতিয়াজ আলমকে সভাপতি, আলহাজ্ব আব্দুর রহমানকে সহ-সভাপতি, মাওলানা এবিএম জাকারিয়াকে সেক্রেটারী করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এবং মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদকে সভাপতি ও মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেনকে সেক্রেটারী করে ঢাকা মহানগর উত্তর কমিটি ঘোষণা করেন প্রধান অতিথি পীর সাহেব চরমোনাই।
পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, দায়িত্বশীল নেতাকর্মীদের ত্যাগ ও কুরবানীর মাধ্যমে তাগুতি শক্তির মূলোৎটাপন করে ইসলামকে বিজয়ী আদর্শ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে হবে।
মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ বলেন, ইসলাম ও মুসলমানের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে। এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে মুসলমানরা জেগে উঠেছে। প্রধানমন্ত্রীকে ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র কিভাবে সহ্য করছেন।
অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, চলমান ধ্বংসাত্মক রাজনীতির কবল হতে বের হয়ে সুস্থ ধারা তথা ইসলামী রাজনীতিতে ফিরে আসার জন্য দেশের সর্বস্তরের জনতার প্রতি আহ্বান জানান।
মাওলানা মাদানী বলেন, ইসলামের বিরুদ্ধে চক্রান্ত বন্ধে মুসলমানরা জীবন দিয়ে প্রতিহত করবে। তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে হিন্দু কর্মকর্তাদের সরিয়ে দেয়ার দাবি জানান।
কাজী আবুল খায়ের বলেন, চক্রান্তকারীরা মনে করছে মুসলমানরা নাচের পুতুল। এটা মনে করলে তারা ভুল করবে। তিনি পীর সাহেব চরমোনাইকে বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দেয়ার আহ্বান জানান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন