ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে- প্রফেসর ডা. আবুল কালাম আজাদ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ জুলাই, ২০১৯, ৬:৩৯ পিএম

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় যে সব সমস্যা আছে তা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সাথে সমন্বিতভাবে কাজ করার মাধ্যমে সমাধান করতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের মানবসম্পদ অপ্রতুল, প্রতিদিনের তথ্য আমরা প্রতিদিন পাচ্ছি। অতীতে সেই তথ্যগুলোও আমাদের হাতে ছিলনা। একই সঙ্গে ডিজিটাল তথ্যব্যবস্থাপনার কারণে আমরা তা জানতে পারছি এবং প্রয়োজন অনুযায়ী চিকিৎসক পদায়নের চেষ্টা করছি।

‘স্বাস্থ্যনীতি সংলাপ’ বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিষয়ক একটি থিংক ট্যাংক-এর উদ্যোগে ‘সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতকরণে সরকারি স্বাস্থ্যখাতে চিকিৎসকের সুষম বন্টন’ শিরোনামে শনিবার (২০ জুলাই) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে একটি সংলাপের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মহাপরিচালক এসব কথা বলেন। ‘স্বাস্থ্যনীতি সংলাপ’ ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সমর্থিত, আইসিডিডিআর,বি’র স্ট্রেন্থেদেনিং হেল্থ, অ্যাপ্লায়িং রিসার্চ এভিডেন্স (শেয়ার) প্রকল্পের উদ্যোগে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে প্রথম শুরু করা হয়েছিল। এরই ধারাবাহিকতায় চতুর্থবারের মতো স্বাস্থ্য বিষয়ক সংলাপটির আয়োজন করা হয়।

এবারের সংলাপে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সমন্বয়কারী ড. মুশতাক হোসেন। সংলাপ সঞ্চালনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর রোবায়েত ফেরদৌস।

মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন আইসিডিডিআর,বি’র ইউনিভার্সাল হেলথ কভারেজ কর্মসূচির প্রকল্প পরিচালক ও বিজ্ঞানী ড. ইকবাল আনোয়ার। তিনি সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতকরণে সরকারি স্বাস্থ্যখাতে চিকিৎসকের সুষম বন্টন- চ্যালেঞ্জ ও বাস্তবসম্মত সমাধান বিষয়ে আলোকপাত করেন। মূল বক্তব্যে উঠে আসে যে, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সরকারি খাতে স্বাস্থ্যসেবা মূলত শহরকেন্দ্রিক। প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে চাহিদার বিপরীতে চিকিৎসক, নার্স, মিডওয়াইফসহ জনস্বাস্থ্যকর্মীর ব্যাপক সংকট রয়েছে। এই সংকটের প্রধান কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে কেন্দ্রমুখী স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, তদারকি ও সুশাসনের কার্যকরী কাঠামোর অভাব, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কার্যালয়ের প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতার অভাব, সেবাদানকারীদের জন্য পর্যাপ্ত প্রণোদনার অভাব, প্রত্যন্ত অঞ্চলে চিকিৎসকদের নাগরিক জীবনযাপনের নূন্যতম সুযোগসুবিধা না থাকা- বিশেষ করে চিকিৎসকদের সন্তানদের জন্য মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভাব, অনিয়ন্ত্রিতভাবে বেসরকারি হাসপাতালের সংখ্যাবৃদ্ধিসহ নানা সমস্যার প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যসেবা খাতের অবস্থা প্রতিনিয়ত ঝুঁকির মধ্যে পড়ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ২০১৯ সালের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে অনুমোদিত পদের বিপরীতে প্রায় ২০ দশমিক ৪ শতাংশ পদ খালি পড়ে রয়েছে, যা সার্বিকভাবে সরকারি খাতে এই চিকিৎসক সংকট সৃষ্টি করছে।

একই সঙ্গে ৭৮৩ পদের বিপরীতে প্রায় ৪ হাজার ৭৪৯ চিকিৎসক বিশেষ ভারপ্রাপ্ত (ওএসডি) পদে ঢাকা বিভাগেই নিযুক্ত আছে। এতে করে বাংলাদেশের জেলা শহরে সরকারি হাসপাতালগুলোর চিকিৎসক সংকট মারাত্মক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। সমন্বিতভাবে এ থেকে সমাধানের পথ বের করতে হবে।

স্বাস্থ্যসেবা বিষয়ক সকল কার্যালয়ের মাঝে সমন্বয়ের মাধ্যমে প্রয়োজনমতো চিকিৎসকের পদায়নের ব্যবস্থা মাধ্যমে করার ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করেন আলোচকরা।

সভাপতির বক্তব্যে প্রফেসর ডা. এম এ ফয়েজ বলেন, এই সংলাপের মাধ্যমে বাস্তবধর্মী সমাধানের প্রস্তাবনা এসেছে, তা নীতি নির্ধারকের বরারর তুলে ধরা হবে, আগামীতে স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় বাস্তবমুখী সমাধানে পৌঁছাবার লক্ষ্যে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
md.shafiq ২০ জুলাই, ২০১৯, ১০:০৯ পিএম says : 0
wilie the news
Total Reply(0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন