ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১৭ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

আন্তর্জাতিক সংবাদ

পশ্চিমবঙ্গেও চালু হলো এনআরসি!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

আসামে জাতীয় নাগরিকপঞ্জীতে নাম থাকবে কি-না তা নিয়ে প্রবল আতঙ্ক বিরাজ করছে সেই রাজ্যের মানুষের মধ্যে। বিশেষ করে বাঙলাভাষী বিতাড়নের আশঙ্কায় দিন গুনে চলেছেন। এরই মধ্যে স্ব^রাষ্ট্রমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন, ভারতের প্রতি ইঞ্চি জমি থেকে অনুপ্রবেশকারীদের খুঁজে বের করে ফেরত পাঠাবেন। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতের অন্যত্র নাগরিকপঞ্জী বা এনআরসি তৈরির কাজ শুরু না হলেও পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি’র থাবা পড়তে শুরু করেছে।

স¤প্রতি কলকাতায় দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে বসবাসকারী একটি সাময়িকীর সম্পাদক ও প্রখ্যাত প্রাবন্ধিকের স্ত্র¿ী ও ছেলের নাগরিকত্ব যাচাইয়ের নোটিশ দেয়া হয়েছে। আর এই নোটিশ পেয়ে সাময়িকী চতুরঙ্গের সম্পাদক আবদুর রউফ বিস্মিত হয়েছেন। জানা গেছে, আবদুর রউফ ও তাঁর পরিবার পার্ক সার্কাসে মেহের আলী রোডে দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে বসবাস করছেন। এতদিন ধরে ভারতের সবক’টি নির্বাচনে ভোটও দিয়েছেন পরিবারটি।

অথচ কিছুদিন আগেই নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে রউফের স্ত্রী মুস্তÍাবশেরা রউফ ও পুত্র আসাদ রউফের নামে নোটিশ দেয়া হয়েছে। তারা যে প্রকৃতই ভারতীয় নাগরিক তা প্রমাণের জন্য দু’জনকেই সশরীরে দপ্তরে হাজির হওয়ার কথা বলা হয়েছে। নোটিশে হুমকিও দেয়া হয়েছে, হাজিরা না দিলে একতরফা সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। অর্থাৎ ভোটার তালিকা থেকে নাম কেটে দেয়া হবে।

আবদুর রউফ সাংবাদিকদের বলেছেন, তার স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে একটি নামি স্কুলে শিক্ষকতা করেছেন। আর তাঁর পুত্র আসাদ লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স থেকে পাস করে বিদেশেই রয়েছেন। ফলে স্ত্রীর পক্ষে হাজিরা দেয়া সম্ভব হলেও পুত্রের পক্ষে হাজিরা দেয়া সম্ভব নয়। তবে নোটিশে দেয়া সময় ও তারিখ অনুয়ায়ী আলীপুর সার্ভে বিল্ডিংয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লাইন দিয়ে আর পাঁচজন সাধারণ নাগরিকের মতোই আবদুর রউফ পরিবারের পক্ষে দেখা করেছিলেন নির্দিষ্ট আধিকারিকের সঙ্গে। জানিয়েছেন, তারা দীর্ঘদিন ধরেই কলকাতাতেই বসবাস করছেন। জমা দিয়েছেন প্রয়োজনীয় নথি ও সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র। অবশ্য কমিশনের আধিকারিক আশ্বস্তÍ করেছেন বিষয়টি খতিয়ে দেখে সংশোধন করা হবে। তবে নির্বাচন কমিশন দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এইভাবে নোটিশ সাধারণত পাঠানো হয় খুব কম ক্ষেত্রেই। একমাত্র কোনো অভিযোগ এলেই এই ধরনের নোটিশ পাঠানো হয়ে থাকে। সেইমতো সব নথি পরীক্ষা করে ভোটার তালিকা থেকে নাম বাদ দেয়া বা রেখে দেয়া হয়। সূত্র : সাউথ এশিয়ান মনিটর।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন