ঢাকা, সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬, ২৪ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

ইউরোপে জনশক্তি রফতানির সুযোগ খুঁজতে হবে

লন্ডনে বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতদের সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২২ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতদের রাজনৈতিক কূটনীতির পাশাপাশি অর্থনৈতিক কূটনীতির ওপর গুরুত্বারোপের আহ্বান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, কিভাবে আমাদের বিনিয়োগ ও বাণিজ্য বাড়ানো যায় এবং বিদেশি বিশেষ করে ইউরোপীয় রাষ্ট্রগুলোতে দক্ষ জনশক্তি রফতানি করা যায়, সেই বিষয়ে সুযোগ খুঁজে দেখতে হবে। বাংলাদেশে এখন দক্ষ তরুণ প্রজন্ম আছে যারা বিশ্ববাজারে কাজ করার জন্য যোগ্য।

গত শনিবার লন্ডনে প্রথমবারের মতো আয়োজিত বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূতদের সম্মেলনে যোগ দিয়ে এ আহ্বান জানান। সম্মেলনের বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে প্রেস সচিব ইহসানুল করিম প্রধানমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে বলেন, আমাদের চলমান উন্নয়ন কর্মসূচি যাতে অব্যাহত থাকে, সেজন্য রাজনৈতিক কূটনীতির পাশাপাশি অর্থনৈতিক বিষয়ে আরো গুরুত্ব দিতে হবে।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে নিযুক্ত ১৫ জন রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার এবং স্থায়ী প্রতিনিধি এই সম্মেলনে যোগ দেন। এর শিরোনাম হচ্ছে- ‘দূত (ইউরোপ) সম্মেলন’। গত শনিবার বিকেলে (লন্ডন সময়) স্থানীয় একটি হোটেলে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সম্মেলনে বক্তৃতা করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান এবং পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশী দূতদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন এবং প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী ও দেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন, অভিবাসন ও রোহিঙ্গা সমস্যার বিষয়ও সম্মেলনে আলোচনা হয়। দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বের প্রেক্ষাপট উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বিভিন্ন দেশের নিযুক্ত বাংলাদেশের কূটনীতিকদের একটি কার্যকরী এবং সময়োপযোগী অ্যাকশন প্ল্যান গ্রহণের পরামর্শ দেন, যাতে করে বিদেশি রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক আরো গভীর ও নিবিড় হয়।

একটি দক্ষ শ্রমশক্তি গড়ে তুলতে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা ইতোমধ্যে এমন একটি অ্যাপ চালু করেছি, যার মাধ্যমে জনগণ ৯টি ভাষা শিখতে পারছে। প্রধানমন্ত্রী দূতগণকে নিজ নিজ কর্মস্থলে বিভিন্ন দেশের বাজার পরীবিক্ষণ করে সে দেশের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক সম্প্রসারণের বাধাগুলো চিহ্নিত করার পরামর্শ দেন।

বাংলাদেশকে ২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত-সমৃদ্ধ হিসেবে গড়ে তোলার সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়েই সরকার কাজ করে যাচ্ছে এ কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী প্রবাসে কর্মরত কূটনীতিকদের এ লক্ষ্য অনুসরণে তাদেরও নিজস্ব কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের নির্দেশ দেন।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রয়োজনে দ্রুত এবং উন্নত সেবা প্রদানের জন্যও কূটনীতিকদের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশ এখন আর সাহায্যনির্ভর নয় উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা এবারে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার জাতীয় বাজেট প্রণয়ন করেছি এবং এর ৯০ শতাংশ অর্থ আমাদের নিজস্ব উৎস থেকে যোগান দেয়া হবে।

দেশের কিছু লোক এবং যারা নির্বাচনে পরাজিত হয়েছে তারা দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তারা দেশের উন্নয়নের গতিটাকে থামিয়ে দিতে চাচ্ছে। তিনি বিএনপি’র নাম উল্লেখ করে বলেন, তারা বিগত নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলছে, অথচ তারা এই নির্বাচনে যথার্থ প্রতিদ্ব›িদ্বতার পরিবর্তে মনোনয়ন বাণিজ্য করেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ প্রপাগান্ডায় বিশ্বাস করেনা, বরং আর্থসামাজিক উন্নয়ন প্রচেষ্টায় আস্থা এবং আওয়ামী লীগ সরকারের অর্জনকে গুরুত্ব দেয়। সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব কারো সঙ্গে শত্রæতা নয়- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অনুসৃত এই পররাষ্ট্র নীতির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার এই পররাষ্ট্র নীতি অনুসরণ করে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দরবারে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত।

তিনি বলেন, এই নীতি অনুসরণ করে সরকার কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে ভারতের সঙ্গে ছিটমহল বিনিময়সহ অনেক বিরোধ নিষ্পত্তি করেছে। তিনি বলেন, আমরা আশা করি একইভাবে আলোচনার মাধ্যমে রোহিঙ্গা ইস্যুরও সমাধান হবে। বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থানের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশ পূর্ব ও পশ্চিমের মধ্যে একটি সেতুবন্ধন তৈরি করতে পারে।

সম্মেলনে অংশ নেয়া রাষ্ট্রদূতরা হলেন- আবু জাফর (অস্ট্রিয়া), মো. শাহাদৎ হোসেন (বেলজিয়াম), মুহম্মদ আবদুল মুহিত (ডেনমার্ক), কাজী ইমতিয়াজ হোসেন (ফ্রান্স), ইমতিয়াজ আহমেদ (জার্মানি), জসিম উদ্দিন (গ্রিস), আবদুস সোবহান সিকদার (ইতালি), শেখ মোহাম্মদ বেলাল (নেদারল্যান্ড), মুহম্মদ মাহফুজুর রহমান (পোল্যান্ড), রুহুল আলম সিদ্দিক (পর্তুগাল), ড. এস এম সাইফুল হক (রাশিয়া), হাসান মাহমুদ খন্দকার (স্পেন), নাজমুল ইসলাম (সুইডেন), শামিম আহসান (সুইজারল্যান্ড) এবং সাইদা মুনা তাসনীম (যুক্তরাজ্য)। সম্মেলনে বিভিন্ন দেশে দায়িত্বপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতগণ সংশ্লিষ্ট দেশে তাদের নিজ নিজ কার্যক্রম, চ্যালেঞ্জ এবং ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা পৃথকভাবে উপস্থাপন করেন। যুক্তরাজ্যে রাষ্ট্রদূতদের সম্মেলন এবং অন্যান্য কর্মসূচিতে অংশ নিতে এক সরকারি সফরে প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার বিকেলে লন্ডন পৌঁছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (9)
Farhad Aziz Kiron ২২ জুলাই, ২০১৯, ১:৩১ এএম says : 0
আল্লাহ্‌ হেদায়েত করুন, বাংলাদেশে আর কেউ থাকবে না, পাঠিয়ে দিন সবাইকে
Total Reply(0)
Aslam Uddin ২২ জুলাই, ২০১৯, ১:৩১ এএম says : 0
পররাষ্ট্র মন্ত্রী মহোদয় বাংলাদেশে বসে থাকলে তো ইউরোপ দেশ গুলোতে লোক নিবে না। আমাদের প্রবাসী নীতি পরিবর্তন করে, লটারীর অথবা সেই দেশ গুলো কি প্রক্রিয়ায় শ্রমিক নিবে, সে আলোচনা করা জরুরী,
Total Reply(0)
Aslam Uddin ২২ জুলাই, ২০১৯, ১:৩১ এএম says : 0
পররাষ্ট্র মন্ত্রী মহোদয় বাংলাদেশে বসে থাকলে তো ইউরোপ দেশ গুলোতে লোক নিবে না। আমাদের প্রবাসী নীতি পরিবর্তন করে, লটারীর অথবা সেই দেশ গুলো কি প্রক্রিয়ায় শ্রমিক নিবে, সে আলোচনা করা জরুরী,
Total Reply(0)
Mahmudur Rahman ২২ জুলাই, ২০১৯, ১:৩২ এএম says : 0
দেশে এতো EPZ করতেছেন,এতো কাজের সংস্হান করতেছেন,,তারপরেও বিদেশে লোক পাঠাবেন কেন...?
Total Reply(0)
Farooq Farooq Farooq Farooq ২২ জুলাই, ২০১৯, ১:৩২ এএম says : 0
কেন দেশ সিংগাপুর ও কানাডা থেকে উন্নত বিদেশী দের রিন দিবে বলছে। ।এখন এইগুলি কি বলো।।।দেশের বিতর গরিব দেখতে পাওয়া যায়না। ।জনগণের সাথে কত খেলা হবে।
Total Reply(0)
Kazi Murshed ২২ জুলাই, ২০১৯, ১:৩৩ এএম says : 0
যে গুলা বন্ধ আছে সে দিকে নজর দিন।
Total Reply(0)
Bp Islam Maruf ২২ জুলাই, ২০১৯, ১:৩৪ এএম says : 0
United Arab Emirates need to be open Visa for the bangladesh people.
Total Reply(0)
kkio ২২ জুলাই, ২০১৯, ৫:৫৪ এএম says : 0
Apply 4 wife and one child policy in a universal way. All problem will be solved within 30 years.
Total Reply(0)
kkio ২২ জুলাই, ২০১৯, ৬:৫১ এএম says : 0
Bangladeshi muslims face chronic identity crisis in the west. So keep them home and build a developed country. Reduce population by applying a universal four wives-one child policy. Such a policy will reduce our population to 50-80 million over the next 40-50 years.
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন