ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

সারা বাংলার খবর

ধামরাইয়ে পৃথক ৩টি লাশ উদ্ধার,আটক ৮

ধামরাই (ঢাকা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২২ জুলাই, ২০১৯, ৪:৩৬ পিএম

ঢাকার ধামরাইয়ের রোয়াইল ইউনিয়নের পৃথক তিনটি গ্রাম থেকে আজ সকালে দিকে ২ যুবক ও এক স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ ।এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ৩ মহিলাসহ ৮জনকে আটক করেছে ধামরাই থানা পুলিশ।

জানা গেছে, উপজেলা রোয়াইল ইউনিয়নের কৃষ্ণনগর গ্রামের ফজল আলীর ছেলে বিদেশ ফেরত আজাদ(২৮)কে রবিবার রাত (অানুমানিক) সাড়ে দশটার দিকে একই এলাকার রঞ্জিত খা'র ছেলে তোফাজ্জল হোসেন তুপা কথা বলার জন্য বাড়ি ডেকে নিয়ে যায়। পরে রাত গভীর হলে হট্টগুলের শব্দ শুনে নিহতের পরিবার জানতে পারে একই গ্রামের ইব্রহিম মিয়ার ছেলে সাইফুলের বাড়িতে অাজাদকে মারধর করা হচ্ছে। পরে সাইফুলের বাড়িতে গিয়ে নিহতের পরিবার রক্তাক্ত অবস্থায় অাজাদের মরদেহ মাটিতে পড়ে অাছে দেখতে পায়। হত্যাকারিরা আজাদের দুইটি পা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থান ও মুখমন্ডলে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করেছে।
পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণ করছে সাইফুলের স্ত্রীর সাথে নিহত আজাদের পরকিয়া ও দৈহিক সম্পর্কের জন্যই এ হত্যাকান্ড হয়েছে। এ ঘটনায় সাইফুল ও তার স্ত্রী রোজিনা বেগম, ফরহাদ, জিয়া , সহিদ ও সাইজুদ্দিনকে পুলিশ আটক করেছে। ময়না তদন্তের জন্য লাশ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

অপরদিকে একই ইউনিয়নের আটিমাইঠান গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে শরীফ এর সাথে পাশের সিংগাইর উপজেলা লক্ষিপুর গ্রামের ফরিদ দেওয়ানের মেয়ের ৫/৬মাস পূর্বে বিয়ে। বিয়ের পর থেকেই স্ত্রী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজনের সাথে শরীফের পরিবারের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। শরীফকে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন আটকে রেখে মারধর ও করেছে বলে শরিফের বাবা অভিযোগ করেছেন। রবিবার রাতে শরিফদের বাড়িতে শরিফ ও তার স্ত্রী লিপি আক্তার একই ঘরে রাত যাপন করে। প্রতিদিন শরিফ সকালে উঠলেও সোমবার সকালে আর উঠেনি। স্ত্রী লিপি পরিবারের লোকজনকে জানাইনি রাতে কি হয়েছে। একটু বেলা হলে পরিবারের লোকজন ঘরে গিয়ে দেখে শরিফে মৃতদেহ বিছানায় পড়ে আছে।তবে কি কারনে তার মৃত্যু হয়েছে কেউই নিশ্চিত করে বলতে পারেনি। শরিফের মৃত্যুর ঘটনায় জিঞ্জাসাবাদের জন্য স্ত্রী লিপি ও শ্বাশুরী হাসিনাকে আটক করেছে থানা পুলিশ। ময়না তদন্তে জন্য লাশ মর্গে পেরণ করা হয়েছে।

এদিকে রবিবার রাতে একই ইউনিয়নের ফরিঙ্গা গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ইয়াকুব আলরি মেয়ে ৯ম শ্রেণির ছাত্রী হাফিজা বেগম ঘরের ভেতর ফ্যানের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। পুলিশ সকালে ঘটনা পরিদর্শণ করেছেন। এব্যাপারে একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন