ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

সম্পাদকীয়

পবিত্র ঈদুল আজহা

| প্রকাশের সময় : ১১ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০১ এএম

ত্যাগের মহিমা, ঐশী অনুপ্রেরণা ও আনন্দের বার্তা নিয়ে ফিরে এসেছে মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা। মক্কায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে পবিত্র হজের সর্বশেষ আনুষ্ঠানিকতা ও কোরবানি ঈদ। আগামীকাল পূর্ণ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে উদযাপিত হবে ঈদুল আজহা। আরবী ঈদ শব্দের অর্থ আনন্দ, খুশি, উৎফুল্লতা ইত্যাদি। ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে ঈদ নিছকই আনন্দ, খুশি বা উৎফুল্লতা নয়। এর সঙ্গে আধ্যাত্মিক ও ঐতিহাসিক দিকও ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। ঈদুল আজহা মহান আল্লাহর প্রতি আত্মসমর্পণ ও আত্মত্যাগের মহিমায় সমুজ্জ্বল। পশু কোরবানির মাধ্যমে পরম করুণাময় আল্লাহর নির্দেশের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ ও তার সন্তুষ্টি অর্জনই ঈদুল আজহার লক্ষ্য। কোরবানি ঈদুল আজহার প্রধান আমল বা কর্তব্য। এর আধ্যাত্মিক তাৎপর্য হলো নিজের মধ্যে থাকা পশুবৃত্তি ও স্বভাবকে কোরবানির মাধ্যমে বিনাশ করা। মহানবী (সা:) এই ঈদ সম্পর্কে জিজ্ঞাসিত হয়ে বলেছেন : এটি তোমাদের পিতা হযরত ইব্রাহীম (আ:)-এর সুন্নাত। বলাবাহুল্য, হযরত ইব্রাহীম (আ:) আল্লাহ পাকের প্রতি গভীর আনুগত্য ও তাঁর রাহে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের যে নজির স্থাপন করেন, ঈদুল আজহা তারই স্মারক। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার নির্দেশে এবং সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য হযরত ইব্রাহীম (আ:) তার প্রাণপ্রিয় পুত্র হযরত ইসমাঈল (আ:)-কে কোরবানি করার যে অনান্য সাধারণ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন তার নজির মানব ইতিহাসে বিরল। আল্লাহপাকের সন্তুষ্টি এবং রহমত ও নির্দেশে হযরত ইসমাঈল (আ:)-এর স্থলে দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। সেই থেকে আল্লাহ তায়ালার নির্দেশে পশু কোরবানির বিধান চালু হয়।
হযরত ইব্রাহিম (আ:) যতদিন জীবিত ছিলেন ততদিন প্রতিবছর পশু কোরবানির মাধ্যমে আল্লাহর আনুগত্যের আদর্শ সমুন্নত রাখেন। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) কোরবানির এই আদর্শ বহাল রাখতে আদিষ্ট হন। তিনিও প্রতিবছর কোরবানি করেন এবং তাঁর উম্মতের জন্য তা অনুসরণের নির্দেশ প্রদান করেন। পশু কোরবানির মাধ্যমে আল্লাহ-পাকের প্রতি আত্মসমর্পণ ও আত্মত্যাগের সুযোগ নিয়ে আসে ঈদুল আজহা। রাসূলুল্লাহ (সা:) বলেছেন, কোরবানির দিন কোনো ব্যক্তির কোরবানির পশুর রক্ত ঝরানোর মতো আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে অধিক প্রিয় ও পছন্দনীয় আর কোনো কাজ নেই। আল্লাহপাক পবিত্র কোরআনে ঘোষণা করেছেন, কোরবানির পশুর গোশত বা রক্ত কোনোকিছুই আল্লাহর কাছে পৌঁছায়না। বরং তাঁর কাছে পৌঁছায় তোমাদের তাকওয়া। বলার অপেক্ষা রাখেনা, ঈদুল আজহার মর্মবাণী হলো এই তাকওয়া। তাকওয়ার অর্থ হলো মুমিনের সেই সংকল্প যাতে প্রয়োজন বোধে সে তার সবকিছু এমনকি প্রাণও আল্লাহপাকের নামে কোরবানি করতে প্রস্তুত। আসলে যে কোরবানিতে তাকওয়া নেই, আল্লাহপাকের দৃষ্টিতে তার কোনো মূল্য নেই। গোশত খাওয়া, সামাজিকতা রক্ষা করা কিংবা অর্থবিত্তের গরিমা প্রকাশ করা কোরবানি নয়। কোরবানির নিয়ত ও লক্ষ্য যদি ঠিক না হয়, তবে সে কোরবানির কোনো ফায়দা নেই। দুঃখজনক হলেও বলতে হচ্ছে, আমাদের দেশে কোরবানির এই দিকটি অনেকেই খেয়াল রাখেন না। অনেকেই কোরবানির মর্মবাণী অনুধাবন না করে নানা লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যে কোরবানি করেন। তাদের কোরবানি তাদের কোনো কাজে আসেনা। কোরবানিকে ওয়াজিব করা হয়েছে। যাদের জন্য তা ওয়াজিব রাসুলেপাক (সা:) তাদেরকেই কোরবানি করার নির্দেশ দিয়েছেন। এই মর্মে তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন, কোরবানি ওয়াজিব হয়েছে এমন লোক কোরবানি না করলে সে যেন ঈদগাহে না যায়। কোরবানির ধর্মীয়, আধ্যাত্মিক ও ঐতিহাসিক তাৎপর্যের পাশাপাশি পারিবারিক, সামাজিক, মানবিক নানা কল্যাণকর দিকও রয়েছে। ধনী-দরিদ্র সবাই যেন ঈদের আনন্দ সমভাবে উপভোগ করতে পারে, সে জন্য স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। কোরবানির গোশতের অংশ আত্মীয়-স্বজন ও দরিদ্রের মধ্যে বিতরণ আবশ্যক যাতে তারাও ঈদের আনন্দ সমভাবে ভোগ করতে পারে।
এমন এক সময় এবার ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে, যখন বিশ্ব মুসলিমের দুঃখ-দুর্দশা ও বিপদাপদের শেষ নেই। সিরিয়া, লিবিয়া, মায়ানমার এবং কাশ্মীরে মুসলমানদের ওপর অকথ্য নির্যাতন চলছে। তাদের জীবনে ঈদের আনন্দ বলে কিছু নেই। বেঁচে থাকার জন্য তারা নিজেরা কোরবানি হচ্ছে। মুসলিম উম্মাহর মজলুম জনগোষ্ঠী হিসেবে এই ঈদে তাদের প্রতিও আমাদের কর্তব্য আছে। আমাদের দেশেও লাখ লাখ মানুষ অভাব অনটনে দিনযাপন করছে। সামর্থ্য অনুসারে তাদের জন্য সাহায্যেরা হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। অভাব-দারিদ্র্যের পাশাপাশি দেশে এখন ডেঙ্গু রোগ ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। অসংখ্য মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এবং অনেকে আক্রান্ত হচ্ছে। মানুষ ডেঙ্গু আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। ডেঙ্গু অনেকের ঈদের আনন্দ যেমন ম্লান করে দিয়েছে তেমনি আক্রান্ত হওয়ার আতঙ্কও ছড়িয়ে দিয়েছে। এ সময়টাতে সকলের সতর্ক থাকা বাঞ্চনীয়। এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের লোকজন এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ নেবেন বলে আশা করি। অন্যদিকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত লাখ লাখ মানুষের দুর্দশার শেষ নেই। খাদ্য, পানি, ওষুধের সংকটে তারা দিশেহারা। সরকারি-বেসরকারিভাবে তাদের পাশে দাঁড়ানো জরুরী। বন্যা এবং যথাযথ সংস্কারের অভাবে সড়ক-মহাসড়ক বেহাল হয়ে পড়ায় ঈদে লাখো মানুষের নির্বিঘ্নে ঘরে ফেরা নিয়ে যেমন সংশয় রয়েছে, তেমনি ঈদের ছুটিতে শহরের খালি হওয়া বাসাবাড়ির নিরাপত্তা নিয়েও সাধারণ মানুষের উদ্বেগ রয়েছে। সাধারণত ঈদের সময়টাতে যানবাহন ও সড়কে ঘরমুখী এবং ঘরফেরত মানুষের চাপ থাকে বেশি। এটা জানা কথা। এই জানা কথাটি মাথায় রেখে আগে থেকে যদি সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও অন্যান্য কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব্যবস্থা নেয়, তবে যাত্রীদের ভোগান্তি অনেকাংশে কমে যেত। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ঈদের ছুটিতে এবং ছুটি শেষে ঈদযাত্রীদের যাওয়া-আসার ক্ষেত্রে সড়ক-মহাসড়কে শৃংখলা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং রোগ-বালাইয়ের এ সময়ে আমরা সকলকে সচেতন হয়ে চলার আহ্বান জানাই। সকলের ঈদ সুস্থ্যভাবে ও নিরাপদে আনন্দমুখর হয়ে উঠুক এ কামনা করছি। সকলকে ঈদের শুভেচ্ছা, ঈদ মোবারক।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন