ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬, ১৯ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

অভ্যন্তরীণ

ব্যবসায়ীকে হত্যার চেষ্টা দেলদুয়ার থানায় অভিযোগ

টাঙ্গাইল জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৩ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে ফাজিল হাটি ইউনিয়নের মুন্সিনগর গ্রামের এক কম্পিউটার ব্যবসায়ীকে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে ভিকটিমের বড় ভাই মো. ফরহাদ দেলদুয়ার থানায় গত রবিবার ৫ জনসহ অজ্ঞাতনামা আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে গতকাল দেলদুয়ার থানার ওসি এ কে সাঈদুল হক ভূইয়া অভিযোগের বিষয়টি তদন্তের জন্য থানার এসআই মনোয়ার হোসেনকে দায়িত্ব অর্পণ করেন। এসআই মনোয়ার হোসেন গত সোমবার সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করেন।

তদন্ত কর্মকর্তা জানান, প্রথমিকভাবে তদন্তে অভিযোগের বিষয়ে সত্যতা পাওয়া যায়নি। ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটনে পুলিশ তৎপর ভূমিকা পালন করছে।
ভিকটিমের বড় ভাই মো. ফরহাদ ও পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, ঢাকার মহাখালী ওয়ালেস রোডের কম্পিউটার গ্যালারি দোকানের মালিক কামরুল হাসান রতন (৩৫) এর বড় বোন রহিমা গত ১ আগস্ট মৃত্যু বরণ করেন। গত ১৬ আগস্ট শুক্রবার এই উপলক্ষে ব্যবসায়ী রতন ও তার পরিবার গ্রামের লোক জনকে খাওয়ানোর আয়োজন করে। গত শুক্রবার দিনব্যাপী লোকজনকে খাওযানোর পর রাত ৯টার দিকে তিনি একটি চার চালা টিনের ঘরের বারান্দায় রুমে ঘুমতে যান। পরে রাত আনুমানিক ১২ দিকে তার বাসা থেকে ৩০০ ফিট দুরে এক ঘাসের ক্ষেত থেকে তাকে হাত-পা বাধা, গলায় ওড়না পেচানো অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে। পরে তাকে দেলদুয়ার হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে সে চিকিৎসা গ্রহণ করে।

এ প্রসঙ্গে ব্যবসায়ী রতনকে উদ্ধারকারী মোছা. আসমা খাতুন জানান, রাত ১২টা মতো হবে। আমরা মাত্র শুয়ে পড়েছি তখন শুনি একজন গোঙ্গাতে গোঙ্গাতে বলছে “জামাল আমারে বাঁচা”। এ শব্দ শুনে আমি ও আমার পরিবার তাড়াতাড়ি বাইরে বের হয়ে খোঁজা খুঁজির পর আমাদের বাসার সামনে আতোয়ারের ঘাসের জমিতে সদ্য খোড়া গর্ত থেকে তাকে হাত-পা বাধা, গলায় ওড়না পেছানো ও সারা গায়ে কাঁদা মাখা অবস্থায় তাকে উদ্ধার করি। পরে তার পরিবারকে খবর দিলে পরিবারের সদস্যরা এসে তাকে নিয়ে যায়। কামরুল ইসলাম রতন বলেন, আমি যখন ঘুমাতে গিয়েছি, তখন রাত ৯টার মতো হবে। পরের দিন ঢাকা চলে যাবো বলে তাড়াতাড়ি শুয়ে পড়ি। আমার চাচাত ভাই জামাল আমার সাথে শুবে বিধায় দরজা খুলেই ঘুমিয়ে পাড়ি। হঠাৎ মনে হয় আমার নাকের কাছে কেউ কিছু ধরলো। তার পরে আর কিছু মনে নেই।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন