ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬, ১৯ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

সরকারি প্রতিষ্ঠানের দখলে রেলের ৯২২ একর জমি

৬১৮৬০ একরের মধ্যে ৩৮৪১ একর জমি বেহাত

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৪ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০১ এএম

বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট জমির পরিমাণ ৬১ হাজার ৮৬০ একর। এর মধ্যে ৩ হাজার ৮৪১ একর জমি রয়েছে অবৈধ দখলে। যার মধ্যে ৯২২ একর জমি দখল করে আছে বিভিন্ন করকারি প্রতিষ্ঠান। পূর্বাঞ্চলে (চট্টগ্রাম) বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান দখলে রেখেছে ৫২৬ একর জমি। আর পশ্চিমাঞ্চলের (রাজশাহী) বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান রেলওয়ের ৩৯৬ একর জমি অবৈধ দখলে রেখেছে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে অবৈধ দখলে থাকা জমির একটা বড় অংশ আছে মালিকানা নিয়ে মামলা জটিলতায়। ইজারা নিয়ে শর্ত অনুযায়ী খাজনা না দেয়ার ফলেও কিছু জমি অবৈধ দখলে চলে গেছে। রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, বর্তমান রেলপথমন্ত্রী দায়িত্ব নেয়ার পর রেলের অবৈধ দখলে থাকা জমি উদ্ধারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছেন। একই সাথে নতুন করে জমি লিজ দেয়াও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

তবে অবৈধ দখলদারদের কবল থেকে জমি উদ্ধারে জোরালো পদক্ষেপের অভাব যে স্পষ্ট তা অস্বীকার করার উপায় নেই। এ প্রসঙ্গে রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, অবৈধ দখলে থাকা জমি উদ্ধারে মন্ত্রণালয় তৎপর রয়েছে। প্রতি মাসেই বিভিন্ন এলাকা থেকে অবৈধ দখলে থাকা জমি উদ্ধার করা হচ্ছে। এ কার্যক্রম আরো জোরদার করা হবে।

রেলওয়ের ভূসম্পত্তি শাখা সূত্রে জানা গেছে, পূর্বাঞ্চল (চট্টগ্রাম) রেলওয়েতে সব মিলিয়ে জমি আছে ২৪ হাজার ৪৪০ একর। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে আছে ১৭ হাজার ১৬৯ একর। বাকি ৭ হাজার ২৭১ একর জমি পড়েছে চট্টগ্রাম বিভাগে। এর মধ্যে ৮৫৪ একর জমি রয়েছে অবৈধ দখলে, যার ৫২৬ একর দখলে রেখেছে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান।

পূর্বাঞ্চল রেলওয়েতে সবচেয়ে বেশি জমি অবৈধভাবে দখলে রেখেছে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর (সওজ)। নরসিংদী-মদনগঞ্জ সেকশনে ২২৫ দশমিক ৫৪ একর ও হবিগঞ্জ জেলায় ১৬ দশমিক ৬ একর জমি অবৈধ দখলে রেখেছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অধীন সংস্থাটি। একইভাবে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের দখলে আছে রেলওয়ের ১৩৩ একর জমি।

এছাড়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন ছয় একর, বন বিভাগ ৫ দশমিক ১৬ একর, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর ২ দশমিক ৬ একর, খাদ্য বিভাগ দুই একর, বারৈয়ারহাট পৌরসভা দশমিক ৩৩ একর, ফেনী পৌরসভা দশমিক ছয় ও টিঅ্যান্ডটি বিভাগ, ফুলগাজী দশমিক ৩৩ একর জমি দখলে রেখেছে।

অন্যদিকে ঢাকা বিভাগে গণপূর্ত বিভাগ (ঢাকা জেলা) ১ একর, নারায়ণগঞ্জের আইইটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ২ দশমিক ৩৮ একর, দ্বিতীয় পশুসম্পদ উন্নয়ন প্রকল্প কর্তৃপক্ষ ৬ দশমিক ২৭ একর, ফায়ার সার্ভিস ১ দশমিক ১ একর, পানি উন্নয়ন বোর্ড ৬ দশমিক ৭ একর, বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ দশমিক ৪৫ একর, পাট করপোরেশন (নারায়ণগঞ্জ জেলা) ১২ দশমিক ৫৪ একর, এবং সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ১ দশমিক ৯৪ একর জমি অবৈধ দখলে রেখেছে।

একইভাবে ঢাকা ওয়াসা দশমিক ২৯ একর, গৃহায়ন ও গণপূর্ত বিভাগ ১০ দশমিক ৩৬ একর, গণপূর্ত বিভাগ ১৩ একর, সুনামগঞ্জের ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরি দশমিক শূন্য ৫ একর, সিলেটে খাদ্য মন্ত্রণালয় ১ দশমিক ৭ একর, মৌলভীবাজারে খাদ্য মন্ত্রণালয় ১ দশমিক শূন্য ৩ একর এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ ওয়াপদা কর্তৃপক্ষ ২৪ একর জমি অবৈধ দখলে রেখেছে। এর বাইরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া খাদ্য বিভাগ ১ দশমিক ২ একর, ইউনিয়ন পরিষদ দশমিক ১ একর, আশুগঞ্জ খাদ্য বিভাগ ৬ দশমিক ৭৫ একর, আখাউড়া খাদ্য বিভাগ দশমিক ৫ একর, চিটাগং কোম্পানি কর্তৃপক্ষ দশমিক ২৬ একর এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠান অবৈধ দখলে রেখেছে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের আরো ৩৫ দশমিক ৩৬ একর জমি।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, পূর্বাঞ্চলে সাড়ে ২৪ হাজার একর জমির মধ্যে রেলওয়ে সরাসরি অপারেশন কার্যক্রমে ব্যবহার করছে ১৫ হাজার একর জমি। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ইজারা দেয়া আছে ৪ হাজার ৯৭২ একর। এর মধ্যে বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানকে ৪৮৮ একর জমি ইজারা দিয়েছে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ে। অবশিষ্ট জমি কৃষি, মৎস্য, নার্সারি/বনায়ন, সিএনজি স্টেশন ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছে ইজারা দিয়েছে রেলওয়ে। পূর্বাঞ্চলে রেলওয়ের দখলাধীন অব্যবহৃত জমির পরিমাণ ৩ হাজার ৫৮৩ একর।

অন্যদিকে, রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের (রাজশাহী) জমিও বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের দখলে রয়েছে। এ অঞ্চলে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান রেলওয়ের ৩৯৬ একর জমি অবৈধ দখলে রেখেছে। দুই অঞ্চল মিলিয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট জমির পরিমাণ ৬১ হাজার ৮৬০ একর। এর ৩ হাজার ৮৪১ একরই রয়েছে অবৈধ দখলে।
বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে থাকা অবৈধ জমির বিষয়ে জানতে চাইলে রেলওয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, পূর্বাঞ্চলে ৩০টির বেশি সরকারি প্রতিষ্ঠান রেলওয়ের জমি অবৈধ দখলে রেখেছে। জমি দখলে শীর্ষে রয়েছে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর। এর বাইরে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন, পাট করপোরেশন, আশুগঞ্জ ওয়াপদা কর্তৃপক্ষ, খাদ্য বিভাগসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

তিনি বলেন, একেক প্রতিষ্ঠান একেক কায়দায় জমিগুলো দখল নিয়েছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান দখল করা জমিগুলো নিজেদের বলে দাবি করে আসছে। ফলে এসব জমির মালিকানা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে। এর বাইরে বিভিন্ন সরকারি, আধা-সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন সময় আমাদের কাছ থেকে জমি ইজারা নিয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এসব প্রতিষ্ঠান ইজারার শর্ত অনুযায়ী আমাদের টাকাও দেয় না, আবার জমির দখলও ছাড়ছে না। এসব কারণে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের মোট জমির একটা বড় অংশ অবৈধ দখলে চলে গেছে। এসব জমি দখলমুক্ত করতে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন