ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

দালাল-প্রতারক থেকে সতর্ক থাকতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০১ এএম

অভিবাসনবিষয়ক জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটির সভায় বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দালালরা সোনার হরিণের স্বপ্ন দেখিয়ে শুধু দেশের বাইরে পাঠিয়েই দিচ্ছে। এরপরে সে কোথায় গেছে, সেই খবর কেউ জানে না। মানুষ জমিজমা বিক্রি করে, সবকিছু বন্ধক রেখে দালালকে টাকা দিয়ে বিদেশ যায়। কিন্তু যাওয়ার পর সেখানে তাদের কোনো খবর থাকে না। দালালরা সোনার হরিণের স্বপ্ন দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। দালালদের মুখরোচক কথার ধোঁকাবাজিতে যেন কেউ না পড়ে, সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। এভাবে কোথাও গিয়ে যেন অকালে কেউ হারিয়ে না যায়। তাই এসব দালালদের ওপর নজরদারি বাড়ানো ও জনসচেতনামূলক প্রচারণা চালাতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

গতকাল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান নীতি-২০১৬-এর অধীন গঠিত অভিবাসন বিষয়ক জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটির ১ম সভায় এসব কথা বলেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, নান সুযোগ-সুবিধা থাকা সত্তে¡ও দালালের কারণে তারা বিপদে পড়ে যায়। মানুষ যাতে ধোঁকাবাজিতে না পড়ে সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে, সতর্ক থাকতে হবে। আমাদের নাগরিকদের নিরাপত্তা, তাদের ভালো-মন্দ দেখার দায়িত্ব আমাদেরই। তিনি আরো বলেন, বিদেশে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রতারণা বন্ধে আমাদের নজরদারি বাড়াতে হবে এবং একইসঙ্গে ব্যাপক প্রচারণা চালাতে হবে কেননা তারা আমাদের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করে তুলতে রেমিট্যান্স পাঠানোর মাধ্যমে ব্যাপক ভূমিকা রাখছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সরকার গঠনের পর থেকে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে তাদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি করার কাজ করে আসছি। প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক করে দিয়েছি, যাতে ব্যাংকের মাধ্যমে প্রয়োজনে বিনা জামানতে ঋণ নিয়ে মানুষ বিদেশ যেতে পারে। বিদেশ যেতে দালালের খপ্পরে যাতে না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর তারা কোথায় কী কাজ করতে যাচ্ছেন, তার একটা খবর নেয়া, যেন সঠিক কাজটা পায় সেদিকে লক্ষ্য রাখা, যেখানে যে কাজে যাবে সেভাবে তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া, সে দেশের আইন-কানুন সম্পর্কে জানানো, এসব করার চেষ্টা আমরা করছি।

তিনি বলেন, দালালরা সোনার হরিণের স্বপ্ন দেখিয়ে শুধু বাইরে পাঠিয়েই দিচ্ছে। মানুষ জমিজমা বিক্রি করে, সবকিছু বন্ধক রেখে দালালকে টাকা দিয়ে বাইরে যায়। কিন্তু যাওয়ার পর সেখানে তাদের কোনো খবর থাকে না। অনেক সময় তাদের কোনো কাজের ঠিকানাও থাকে না। অনেক সময় তাদের খবর নেয়ার কথা বলে আত্মীয়-স্বজনকে চাপ দিয়ে তাদের কাছ থেকেও টাকা নেয়। এই ধরনের অনিয়ম সারা বাংলাদেশে আছে। আমরা এ ব্যাপারে অনেক চেষ্টা করছি জনগণকে বোঝাতে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আবার অনেক দেশে আমাদের মেয়েরা যায়। কিন্তু তারা কোন ধরনের কাজ করতে পারবে, সেসব তথ্য নেয়া হয় না; কী ধরনের কাজ করতে পারবে বা করবে এর জন্য ট্রেনিংও দেয়া হয় না। ফলে যে নারীরা যাচ্ছে, তারা কোনো কাজ করতে পারে না এবং সেখানে অত্যাচারেরও শিকার হয়। এগুলো বন্ধ করতে তাদের স্মার্টকার্ড করে দেয়া, প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, কে কোথায় কাজ নিয়ে যাচ্ছে সেগুলোর খবর রাখার কাজ করছি। সারা বাংলাদেশে ডিজিটাল সেন্টার করে দিয়েছি। এই সেন্টারের মাধ্যমে তাদের রেজিস্ট্রেশন করা, এই রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে তাদেরকে পাঠানো, সব ধরনের ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমানে প্রায় এক কোটি বাংলাদেশি বিশ্বের প্রায় একশ’টি দেশে অবস্থান করে দেশে রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছে। যা আমাদের দারিদ্র্য বিমোচন এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে।
যারা কাজের জন্য বিদেশ যাচ্ছে তাদের জীবনবৃত্তান্ত সহযোগে একটি ডাটাবেজ প্রস্তুত করার জন্যও সংশ্লিষ্ট কতৃর্পক্ষকে নির্দেশ প্রদান করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশেষ করে তারা কোন কাজের জন্য কোন দেশে যাচ্ছে তার বিবরণ থাকতে হবে। বিদেশে গমনেচ্ছুকরা যে কাজের জন্য বিদেশে যাচ্ছে তার প্রশিক্ষণ এবং সে দেশের ভাষার ওপর দখল থাকার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে আমরা যৌথভাবেই প্রশিক্ষণের আয়োজন করতে পারি, যেমনটি অতীতেও করা হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (10)
Md Sobur Shaikh ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১২:৫৭ এএম says : 0
আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই দেশের উন্নন হচ্ছে, না থাকলে এই দেশ লুটেরা লুটে খাবে
Total Reply(0)
Shariful Islam Pinu Pinu ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১২:৫৭ এএম says : 0
Best Wishes.....জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু
Total Reply(0)
M Ashik ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১২:৫৮ এএম says : 0
প্রধানমন্ত্রী সকলের ভালো হবে জেনে এমন মহত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
Total Reply(0)
Md Khurshed Alam ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১২:৫৯ এএম says : 0
তুমি বিশ্বের বিস্ময় তুমি আমার অহংকার
Total Reply(0)
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
এগুলো নির্দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ। কাজের কাম কাম কিছুই করেনা এরা। এখনো নিজেদের এয়ারপোর্টে প্রবাসী হয়রানি বন্ধ করতে পারেনি।
Total Reply(0)
Mahmodul Hassan ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
ইংল্যান্ডের বারমিং হামের হাই কমিশনের কাজের গতি ভাল , তাদের সহজুগিতায় প্রবাসীদের চাওয়া পাওয়ার অবস্থান মন মুগদকর , তবে অন্যান্য দেশেও এমনটি হলে পরবাসীরা ভাল থাকবে । অনুগ্রহ করে হাই কমিশনে চাকরিরত ভাই বোনদেরকে বলবো আপনাদের ভাল ব্যাবহারেই আমরা পরবাসিরা ভাল থাকি , আমরা কি সে আশা করতে পারি ?
Total Reply(0)
ahmed ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
রোহিঙ্গারা ক্যাম্প থেকে পালিয়ে দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ছে । রোহিঙ্গাদের হাতে বডি প্রিন্ট ছাপ দেয়ার ব্যবস্থা করেন । রোহিঙ্গারা যেন বাংলাদেশীদের সাথে মিশে যেতে না পারে ।
Total Reply(0)
Eyaqub ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
আপনি চিন্তা করবেন না। চাষা-ভুষা বাঙালীরা মিডল ইষ্টে যেত। এখন সুযোগ নেই। উচ্চ বিত্তরা ইউরোপ- আমেরিকা যেতে আগেও ঠকতোনা এখনো ঠকবেনা।
Total Reply(0)
Mohammed Kowaj Ali khan ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ৪:৫৫ এএম says : 0
.....................।ইনশাআল্লাহ।
Total Reply(0)
Fahima ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১০:৩৩ এএম says : 0
Thanks to PM sheikh Hasina
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন