ঢাকা, রোববার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬, ১৫ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

ইসলামী বিশ্ব

ধ্বংস হচ্ছে কুয়াকাটার সেই নৌকা

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা সৈকতের বালুর বুক চিরে জেগে ওঠা সেই শত বছরের পুরানো নৌকাটি সংস্কারের অভাবে ক্রমশই ধবংস হতে বসেছে। ৭২ ফুট দৈর্ঘ্য, ২২ ফুট প্রস্থ ও প্রায় ৯০ টন ওজনের এ নৌকাটি সৈকত থেকে উত্তোলন করে বৌদ্ধ বিহার সংলগ্ন এলাকায় স্থাপন করে প্রতœতত্ব অধিদপ্তর। একচালা একটি টিনসেট ঘর নির্মাণ করে আনুষ্ঠানিকভাবে দর্শনার্থীদের জন্য উম্মুক্ত করে দেয় হয়। এরপর আর সঠিক কোন তদারকি না থাকায় টিনের ঘরটি ঝড় বাতাসে ভেঙে যায়। বৃষ্টিতে ও রৌদ্রের তাপে দিন দিন নষ্ট হয়ে যাচ্ছে প্রাচীন নিদর্শন এ নৌকাটি। বর্তমানে ইতিহাস ঐতিহ্যের স্বাক্ষ্য বহনকারী নৌকাটির বেহাল দশা দেখে হতাশ পর্যটকরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালের জুলাই মাসের দিকে সৈকতের বালুর মধ্যে জেগে ওঠা এ নৌকাটির অংশ বিশেষ স্থানীয়রা দেখতে পায়। শুরু হয় নানা রকম আলোচনা। এ নিয়ে গনমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশের পর বিষয়টি প্রতœতত্ব বিভাগের নজরে আসে। এক পর্যায়ে নৌকা বিশেষজ্ঞ দল নৌকাটির খুটিনাটি বিষয়ে গবেষণা শুরু করেন। পর দেশীয় ও আন্তজার্তিক নৌকা বিশেষজ্ঞের তত্ববাবধানে এ নৌকাটি কুয়াকাটার সৈকত থেকে উত্তোলন কাজ শুরু করে। ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারী সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের অর্থয়ানে পতœতত¦ অধিদপ্তর নৌকাটি মাটি থেকে উদ্ধারের সিদ্ধান্ত নেয়। সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় নৌকাটি উদ্ধার করে কুয়াকাটা শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধবিহার সংলগ্ন টিন সেট একচালা একটি স্থাপণা তৈরী করে সেখানে রাখা হয়। আর এর নাম করন করা হয় কুয়াকাটা নৌকা যাদুঘর। আগত পর্যটক ও শিক্ষা সফরে আসা শিক্ষার্থীরাও অতিত ইতিহাস জানতে প্রতিদিন ভীড় জমায় সেখানে। বর্তমানে বৃষ্টির পানি ও রৌদ্রে পুড়ে নৌকাটির কাঠ খুলে গিয়ে ধ্বংস হতে চলছে।
কুয়াকাটা পৌর মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লা জানান, নৌকাটি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় সরাসারি দেখভাল করছে। পর্যটকদের কাছে আকর্ষনী করার জন্য সংস্কার করা প্রয়েজন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান জানান, কুয়াকাটার প্রাচীন নৌকাটি পরিদর্শ করেছি। সংস্কারের বিষয় নিয়ে বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির মিটিংনে তোলা হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
রাশেদুল রাশেদ ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ২:১০ এএম says : 0
কুয়াকাটাতে কি এখনো রাখাইন সম্প্রদায়ের মানুষের বাস আছে?
Total Reply(0)
মহররম আলী ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ২:১০ এএম says : 0
এটা অবশ্যই সংরক্ষণ করা উচিত ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন