ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ধর্মের কল বাতাসে নড়ছে : বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গতকাল খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপির মানববন্ধন জনসমুদ্রে পরিণত হয় -ইনকিলাব


ছাত্রলীগ-যুবলীগের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অব্যাহত অভিযানে কোটি কোটি টাকা ও অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়টি উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘ধর্মের কল আজ বাতাসে নড়ছে’। দেশ দুর্নীতি-মাদকসহ নানা অপরাধে ছেয়ে গেছে। রাজধানীসহ সারা দেশের শহরগুলোতে ক্লাবের নামে ক্যাসিনোতে জুয়ার আড্ডা বসছে। এই ক্যাসিনোগুলো চালাচ্ছে ক্ষমতাসীন দল ও তাদের অঙ্গসংগঠন যুবলীগের ক্যাডাররা। আসামের নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ১৯৭১-এর পর বাংলাদেশ থেকে একজনও ভারতে যায়নি।

গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী যুবদল এ মানববন্ধন আয়োজন করে।
মির্জা ফখরুল বলেন, একটা প্রবাদ আছে, ধর্মের কল বাতাসে নড়ে। আজকে আওয়ামী লীগ সরকারের যে দুঃশাসন, আওয়ামী লীগের যে দুর্নীতি, তাদের যে নির্যাতন-নিপীড়ন; তা অন্য কাউকে বলতে হচ্ছে না। নিজে নিজেই তাদের দুর্নীতি, অপকর্মের কল নড়তে শুরু করে দিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘গত কয়েক দিনে সারা বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের লোকেরা, যুবলীগের নেতারা, ছাত্রলীগের নেতারা প্রমাণ করছেন, তারা বাংলাদেশের সম্পদ লুট করে নিয়েছেন। কয়েক দিন আগে প্রথমে ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদক ধরা পড়ল ফেয়ার শেয়ার নিতে গিয়ে। সেই ফেয়ার শেয়ার এক দুই কোটি টাকা নয়, ৮৬ কোটি টাকা। এরপর কোটি কোটি টাকা ও অবৈধ অস্ত্রসহ যুবলীগের নেতারা ধরা পড়লেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, মজার ব্যাপার হচ্ছে- জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, যার কথোপকথন মোবাইলে বের হয়ে গেল, তিনি এরই মধ্যে এক কোটি টাকা ছাত্রনেতাদের দিয়েছেন। অর্থাৎ আজকে কী অবস্থায় দেশকে নিয়ে এসেছে আওয়ামী লীগ। এই ভিসি যাদেরকে আমরা সম্মান করি, মাথার ওপর রাখি, তারা এখন ঘুষ ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছেন।

তিনি বলেন, ছাত্ররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে। কারণ, সেখানে ছাত্র ভর্তি হচ্ছে বিনা পরীক্ষায়। অর্থাৎ এখানেও দুর্নীতি চলছে। ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক সবাই রাস্তায় নেমে গেছে। তারাও আন্দোলন করছে। গোপালগঞ্জ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং শিক্ষকেরা আন্দোলন করছে। কারণ, ভিসি অনৈতিক কার্যকলাপের সঙ্গে সম্পৃক্ত।

মির্জা ফখরুল বলেন, এ দেশের মানুষ যাবে কোথায়? ভিসিরা যাদেরকে সবাই সম্মান করে, তারাও যদি এই পর্যায়ে ঘুষ-দুর্নীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন তাহলে জাতির ভবিষ্যৎ কী? এদেরকে কারা নিয়োগ দিয়েছে? এই সরকার। বেছে বেছে, সবচেয়ে খারাপ ধরনের লোকদের ভিসি পদে নিয়োগ দিয়েছে। ফলে সাধারণ ছাত্ররাই আজ বিদ্রোহী হয়ে উঠেছে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ঢাকা শহরের ৬০টি ক্যাসিনো চালাচ্ছে কে? যুবলীগের নেতারা, আওয়ামী লীগের নেতারা। আজকে প্রমাণিত হয়েছে, এই দেশ দুর্নীতিতে ভরে গেছে এবং সরকার সেখানে মদদ দিচ্ছে, আওয়ামী লীগ সেখানে মদদ দিচ্ছে। আজকে প্রমাণিত হয়ে গেছে, এই সরকার রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যর্থ। আজকে প্রমাণিত হয়ে গেছে, গত ১২ বছরে এই দেশকে লুটপাট করে তারা একটা শ্মশানে পরিণত করেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজ ১৭ মাস ধরে আমাদের নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দি করে রাখা হয়েছে। তিনি অত্যন্ত অসুস্থ। তিনি এখন হাঁটতে পারেন না, সাপোর্ট নিয়ে উঠতে হয়, চলতে হয়। বারবার আমরা বলেছি তাকে সুচিকিৎসার জন্য মুক্তি দিতে হবে। আমরা তাদের কাছে দয়া ভিক্ষা করছি না। আমরা তাদের কাছে আইনগত ন্যায্য প্রাপ্য, জামিন চাচ্ছি। আদালতের কাছে জামিন চাচ্ছি। কিন্তু আদালতের কাজে বাধা দিচ্ছে সরকার, যাতে তিনি বের হতে না পারেন। এই অন্যায়, এই অবিচার জনগণ মেনে নেবে না। জনগণ আজকে জেগে উঠতে শুরু করেছে, জনগণ আজকে বুঝতে শুরু করেছে। এই সরকার যতদিন থাকবে, ততদিন আইন থাকবে না, বিচার থাকবে না। ন্যায়বিচার থাকবে না, মানুষের জীবনের কোনো নিরাপত্তা থাকবে না।

তিনি বলেন, আমাদের পরিষ্কার কথা- দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কোনো দলের নেতা নন। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এই দেশের ১৬ কোটি মানুষের নেতা। তিনি এই দেশের গণতন্ত্রকে মুক্ত করেছেন এবং এখন তাকে মুক্ত করার জন্য এ দেশের মানুষ আবার সম্মিলিত হয়ে তাকে কারাগার থেকে বের করে নিয়ে আসবে।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে এই সরকার কোন দিক থেকে সফল? কথায় কথায় বলে, আমরা উন্নয়ন করছি। বাংলাদেশকে সিঙ্গাপুর বানিয়ে দিলাম। বাংলাদেশে এখন সবচেয়ে বেশি বেকার। প্রায় চার কোটি শিক্ষিত বেকার। কৃষক ধানের দাম পায় না। তাদের দুধ রাস্তায় ফেলে দেয়। পাটের দাম পায় না। এই নিদারুণ একটা অবস্থার মধ্য দিয়ে দেশের মানুষ বাস করছে। কোথাও আইনের শাসন নেই। যাকে যখন খুশি তুলে নিয়ে যায়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ১০ লাখের ওপরে রোহিঙ্গা এ দেশে বসে আছে ২ বছর ধরে। প্রধানমন্ত্রী ২ বছরে একজনকেও ফেরত পাঠাতে পারেন নাই। উপরন্তু আরও বিপদ। আসামে যে নতুন নাগরিকপঞ্জি তৈরি করা হয়েছে, সেখানে আরও ১৯ লাখ মানুষ বাদ পড়েছে। তাতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। আসামে যা খুশি তাই হোক। তা নিয়ে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। কিন্তু ভারতের মন্ত্রীরা যখন বলেন, এরা বাংলাদেশি, এদেরকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে হবে। তখন নিশ্চয়ই আমাকে সেটা ভাবতে হয়। আমরা খুব পরিষ্কার করে বলেছি, আমাদের কোনো মানুষ ১৯৭১ সালের পরে ভারতে যায় নাই। কেন যাবে? আমাদের অর্থনীতি ওদের চেয়ে ভালো। আমাদের লোক ভারতে যাওয়ার প্রশ্নই উঠতে পারে না।

তিনি বলেন, আমরা কারও অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে কথা বলতে চাই না। আমাদের সমস্যা যেন না হয়, সেই কথাই বলতে চাই। আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। সরকার এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো কথা বলছে না, শুধু বলছে এটা ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। কিন্তু আমরা তো দেখছি, ভারতের নেতারা বলছেন বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে, সে ব্যাপারে একটা ব্যাখ্যা তো দিতে হবে।
যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরবের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দীন টুকুর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেন।

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অবিলম্বে মুক্তি ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে গতকাল দেশের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন করেছে বিএনপি ও তার অঙ্গসংগঠন গুলো।
ময়মনসি ংহ ব্যুরো জানায় : ময়মনসিংহে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করেছে ময়মনসিংহ উত্তর জেলা যুবদল। শুক্রবার দুপুরে নগরীর চরপাড়া এলাকায় এ মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়।
এতে বক্তব্য রাখেন জেলা উত্তর যুবদলের সভাপতি ভিপি শামছুল হক শামছু, সাধারন সম্পাদক রবিউল করিম বিপ্লব, যুবদল নেতা সানোয়ার হোসেন খান, অ্যাড. শাজাহান কবীর সাজু, আমিনুল ইসলাম প্রমূখ। এ সময় বক্তারা অবিলম্বে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন।

স্টাফ রিপোর্টার নারায়ণগঞ্জ থেকে জানান : নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের সভাপতিত্তে¡ অনুষ্ঠিত মানবন্ধনে শত শত নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধনের শুরু ও শেষে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমানের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে বালুর মাঠ থেকে চাষাড়া পর্যন্ত মিছিল করে।মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মমতাজ উদ্দিন মন্তু, সহ-সভাপতি সানোয়ার হোসেন, আকতার হোসেন খোকন সাহ, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবদলের সাধারন সম্পাদক জুয়েল প্রধান, সাংগঠনিক সম্পাদক জুয়েল রানা, বন্দর থানা যুবদলের সভাপতি আমির হোসেন, বন্দর উপজেলা যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

বক্তারা অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী করেন।সভাপতি বক্তব্যে মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেন, বর্তমানে মিড নাইট সরকারে ঘুনে ধরেছে। মদ, জুয়া, খুন, গুম, দূর্নীতিতে সরকার আষ্টেপৃষ্টে আটকে গেছে। গণ বিষ্ফোরনে সরকারের পতন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।তিনি বলেন,আগে ঢাকা ছিল মসজিদের শহর,সরকারের অনাচারে ঢাকা এখন জুয়ার শহরে পরিনত হয়েছে। ছাত্রলীগ ও যুবলীগ প্রমান করেছে সরকারে ঘুণে ধরেছে।

খোরশেদ অবিলম্বে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী করে বলেন, প্রিয়া সাহা রাষ্ট্রদ্রোহীতা করলেও তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা খারিজ হয়ে যায় কিন্তু সরকারী ইশারায় দেশ প্রেমের কথা বললেও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করে আদালত। বক্তব্য শেষে মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ উপস্থিত নেতাকর্মীদের খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে প্রয়োজনে কারাবরণ ও রাজপথে রক্ত দেয়ার শপথ গ্রহন করান।

নোয়াখালী ব্যুরো জানায় :কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে শুক্রবার নোয়াখালী প্রেসক্লাব সন্মুখে জাতীয়তাবাদী যুবদল নোয়াখালী জেলা শাখার উদ্যোগে মানবন্ধন কর্মর্সূচী অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা মাহবুব আলমগীর আলো, আবু নাসের, জেলা যুবদল সভাপতি মঞ্জুরল আজিম সুমন, ও সাধারন সম্পাদক নুরুল আমিন খান প্রমুখ। সভায় বক্তারা সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবী জানান।

টাঙ্গাইল জেলা সংবাদদাতা জানান : শহরের নিরালা মোড় এ মানববন্ধন কর্মসূচীপালন করা হয়। জেলা যুবদলের আহবায়ক আশরাফ পাহেলীর নেতৃত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, জেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক খন্দকার রাশেদুল আলম, সাতিল, জাহিদ হোসেন মালা, জেলা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক সানু প্রমুখ।
বক্তারা বলেন অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি না দিলে কঠোর আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে, যে কোন কিছুর বিনিময়ে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে ছাড়বো। এতে বিভিন্ন জেলা যুবদলের সকল নেতৃবন্দ ও উপজেলা যুবদলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা : সকাল ১১ টায় শহরের আলীপুরে মুজিব সড়কে আধঘন্টা চলা মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন জেলা যুবদলের সভাপতি রাজিব হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গির হোসেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোদাররেস আলী ইসা, যুবদলের সহ সভাপতি আরমান হোসেন, ডঁটো খান, জব্বার জমাদ্দার, যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড, সুজন, সহিদুল ইসলাম, সহ সম্পাদক নাছির হোসেন, ওমর ফারুক, সিদ্দিকুর রহমান, তোফায়েল আহম্মেদ, ইলিয়াস শেখ, হাসানুজ্জামান প্রমুখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (9)
Asik Hosen Asik Hosen ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৪ এএম says : 0
তোমরা খুশি হওয়ার কারণ নাই, একি পালা তোদের দিলেও চলবে? আনা হবে বিদেশ থেকেও?
Total Reply(0)
Mizanur Rahman ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৫ এএম says : 0
অশান্তি নেতাদের জন্য, সাধারণের জন্য শান্তি। যদি মাঝ পথে বন্ধ না হয়ে শুদ্ধি অভিযানটা সফল হয়। ছেড়ে দিলে রাজনৈতিক বিপদ।
Total Reply(0)
Syed Enayet Hossain ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৫ এএম says : 0
ছাত্রলীগ,যুবলীগ বা কোন গোষ্ঠীই শেখ হাসিনা সরকারের শাসনামালে অপরাধ করে রেহাই পাবে না। শেখ হাসিনাই হবে সমাজ থেকে অপরাধ নির্মুলে শ্রেষ্ঠ শাসক। যার স্বাক্ষী থাকবে ইতিহাস। শেখ হাসিনা আপনার মমত্ব, সহমর্মিতা, মানবিকতা আর সুশাসন বাঙালী জাতির ইতিহাসে চীরস্মরনীয় হয়ে থাকবে। ইনশাআল্লাহ।
Total Reply(0)
Enamul Hoque ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৬ এএম says : 0
দেশের সমস্যা হয়নি জনাব, সমস্যাটা আপনার মনে, আপনার কর্মে অনিশ্চয়তা, মনে অশান্তি।
Total Reply(0)
Rony Ferdous ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৬ এএম says : 0
আপনার প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দেয়া উচিৎ। আর যাই হোক তিনি এখন ভাল কায করছেন,,,,।
Total Reply(0)
Md Bellal Hossain ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৬ এএম says : 0
"ধর্মের কল বাতাসে নড়ে" এটার কিন্তু কারো একার জন্য প্রযোজ্য না সবাই জন্যই কিন্তু এক!! নিজেদের কল গুলও ঠিকঠাক করে ফেলেন বাতাসে যেন না নড়ে!!!
Total Reply(0)
Belal Hossin ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৬ এএম says : 0
এই দেশটা একটা আজব দেশ, চোর ধরল দোষ না ধরলে দোষ, উনাকে সাবাস ধন্যবাদ দেওয়া উচিত আর উনার দোষ খুজতেছে
Total Reply(0)
Rafiq Mondol ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৭ এএম says : 0
হ্যাঁ সত্যিই এটাকেই বলে আত্মশুদ্ধি আওয়ামীলীগের কাছ থেকে শিখে নিন । দূর্নীতি হলে বঙ্গবন্ধুর কণ্যা কাউকে ছাড়বেন না ।
Total Reply(0)
Md. Jamil H Rana ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩৭ এএম says : 0
বিএনপির সময় তো বাংলাদেশ টানা তিন বার দূর্নীতিতে ১ম স্থান অধিকার করেছে। সেটা নিয়ে কিছু বলেন হুজুর।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন