ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সাইরেন বাজিয়ে চলতেন

তার হাতে ১৭ প্রকল্প

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০২ এএম

উচ্চতায় ছোটখাটো। ৫ ফুটের সামান্য বেশি। মাথায় চুল কম। সাদামাটা গোছের এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীম। কিন্তু নিরাপত্তা বেষ্টনী তার পুরো রাজকীয়। বিশাল দেহের রক্ষীরা তার পাহারায়। অর্ধডজন দেহরক্ষী সঙ্গী থেকে বদলে দিত তার চলার স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। অস্ত্রসজ্জিত দেহরক্ষী নিয়ে তার চলাচল অনেকটাই কমান্ডো স্টাইলের। আগে-পিছে মোটরসাইকেল ও জিপে পাহারায় নিকেতনে আসা-যাওয়া করতেন সাইরেন বাজিয়ে। কখনো কখনো থাকতো পুলিশের পাহারাও। যেন রাষ্ট্রীয় কোনো বড় মাপের ভিআইপি মুভমেট করছেন।
রাজধানীর সবুজবাগ, বাসাবো, মতিঝিলসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রভাবশালী ঠিকাদার হিসেবে পরিচিত যুবলীগের এই নেতাকে শুক্রবার নিকেতনের অফিস থেকে সাত দেহরক্ষীসহ আটক করে র‌্যাব। এদিন ভোর ৬টা থেকে সাদা পোশাকে শুরু হয় র‌্যাবের অভিযান। বিকেল সাড়ে ৪টায় অভিযান শেষে শামীমসহ ৮ জনকে আটক করার বিষয় জানায় র‌্যাব। অভিযানে ১ কোটি ৮০ লাখ নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া ১৬৫ কোটি টাকার ওপরে এফডিআর (স্থায়ী আমানত) পাওয়া যায়। যার মধ্যে তার মায়ের নামে ১৪০ কোটি ও ২৫ কোটি টাকা তার নামে। এ ছাড়া তার কাছে মার্কিন ডলার, মাদক ও আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া যায়।
নিকেতনের যে অফিস থেকে শামীম র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েন তার পুরোটাই আবাসিক এলাকা। আবাসিক ভবনগুলো প্রতিটিই ৬-৭ তলা, একটার সঙ্গে আরকেটা লাগুয়া। শুধু জি কে শামীমের ভবনটি (জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড) চার তলা। ভবনটি থেকে কিছু দূরেই রয়েছে মসজিদ। এই ভবনের অফিসে কখনও সকালে, কখনও দুপুরে এমনকি গভীর রাতেও আসতেন জি কে শামীম।
সকাল, দুপুর, বিকেল বা রাত যখনই শামীম নিকেতনে ঢুকতেন টের পেয়ে যেতেন আশপাশের সবাই। তার পাহারায় সবসময় তিনটি মটোরসাইকেলে ৬ জন দেহরক্ষী থাকতেন। শামীমের গাড়ির সঙ্গে থাকতো আরও দুটি কালো রঙের জিপ গাড়ি। সাইরেন বাজাতে বাজাতে রাস্তা দিয়ে গাড়িবহরসহ এগিয়ে যেতেন শামীম। তার গাড়ি গন্তব্যে (অফিসের সামনে) না পৌঁছানো পর্যন্ত রাস্তায় নামতে পারতো না অন্য কোনো গাড়ি।
জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড নামের ভবনটির পাশের এক ভবনের কেয়ারটেকার বলেন, শামীম সাহেবের চালাচল ছিল পুরো রাজকীয়। তিনি যখন এখানে আসতেন, সবাই টের পেয়ে যেত। বিশাল দেহরক্ষী নিয়ে সাইরেন বাজিয়ে তিনি আসতেন। সবসময় তার সঙ্গে তিনটি মোটরসাইকেলে ৬ জন দেহরক্ষী থাকতেন। এ ছাড়া তার আগে-পিছে কালো রঙের আরও দুটি দামি জিপ গাড়ি থাকতো।
তিনি বলেন, শামীম সাহেবের গাড়ি যখন এখানে আসতো, কেউ রাস্তায় বের হতে পারতো না। অফিসের সামনে তার গাড়ি থামার সঙ্গে সঙ্গে অস্ত্রসহ দেহরক্ষীরা তার চারদিকে ঘিরে রাখতো। আর সিনেমার স্টাইলে গাড়ি থেকে নামতেন শামীম সাহেব। একবার তার গাড়ি আসার সময় আমাদের স্যারের গাড়ি গ্যারেজ থেকে অর্ধেক রাস্তায় চলে গিয়েছিল। কিন্তু তার দেহরক্ষীরা আমাদের সেই গাড়ি আবার গ্যারেজে ফিরিয়ে আনতে বাধ্য করেছিল। তার গাড়ি চলে যাওয়ার পর আমাদের গাড়ি বের হয়।’
স্থানীয় বাসিন্দা ইসমাইল বলেন, আমি ১০ বছর ধরে এখানে আছি। আগে ওই বাসাটা খান সাহেব নামের একজনের ছিল। বছর খানেক আগে খান সাহেবের কাছ থেকে শামীম সাহেব বাড়িটি কেনেন। শামীম সাহেব বাড়িটা কেনার পর সবসময় এই জায়গাটা জমজমাট থাকে। প্রতিদিনই তিনি এখানে আসেন গাড়িতে সাইরেন বাজিয়ে। দেহরক্ষীদের পাশাপাশি পুলিশের গাড়িও থাকতো। তার চলাচল দেখে মনে হতো সরকারের কোনো মস্তো বড় কেউ। রাত ২-৩টার সময়ও গুমগুম করে তার গাড়ির সাইরেন বাজতো।
মাসুম নামের স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, রাত ২-৩টার দিকেও শামীম সাহেব এই অফিসে আসতেন। গভীর রাতে তিনি যখন আসতেন তার গাড়ির আওয়াজে সবার ঘুম ভেঙে যেত। কিন্তু কারও কিছু বলার সাহস ছিল না। এমনকি নামাজের সময়ও তিনি একই স্টাইলে চলাচল করতেন। পাশেই মসজিদ থাকায় অনেকের নামাজের সমস্যা হতো। কিন্তু তাকে কিছু বলার সাহস এখানে কারও নেই। এই নিকেতনেই তার আরও চারটি বাড়ি আছে বলে আমরা শুনেছি।
সচিবালয়, র‌্যাব হেড কোয়ার্টার, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল, পঙ্গু হাসপাতালসহ বড় বড় ১৭টি প্রকল্পের প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার ঠিকাদারির কাজ করছেন র‌্যাবের হাতে আটক হওয়া জি কে শামীম। তার মালিকানাধীন জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেডের নামে তিনি এসব কাজ পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন তার প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। শুক্রবার র‌্যাবের হাতে বিপুল টাকা, এফডিআর এবং মাদক ও অস্ত্রসহ ধরা পড়ার পর বিকেলে জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেডের কর্মকর্তারা সাংবাদিকদের এ তথ্য দেন।
বিকেলে র‌্যাবের পক্ষ থেকে শামীমকে আটকের ঘোষণা দেয়ার পরপরই তার অফিসের কয়েকজন কর্মকর্তা জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেডের নামে পাওয়া টেন্ডারের তথ্য সাংবাদিকদের সরবরাহ করেন। তাদের একজন দিদার। তিনি নিজেকে জি কে শামীমের পিএস বলে দাবি করেন। দিদারের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, জি কে শামীম জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি (প্রাইভেট) লিমিটেডের নামে বড় বড় ১৭টি প্রকল্পের কাজ পেয়েছেন। এর মধ্যে ৪০০ কোটি টাকার কাজ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের। ৩০০-৩৫০ কোটি টাকার কাজ পঙ্গু হাসপাতালের।এ ছাড়া বড় প্রকল্পের মধ্যে ৫০০ কোটি টাকার র‌্যাব হেডকোয়ার্টার, ১৫০ কোটি টাকার সচিবালয়, ৪০০ কোটি টাকার এনবিআর, ১৫০ কোটি টাকার সচিবলয় কেবিনেট ভবন, ২০০ কোটি টাকার মহাখালী ডাইজেস্টিভ এবং বেইলী রোডে ৩০০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প রয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Md. Shehab Uddin Howladar ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:১৮ এএম says : 0
ঠিকাদারীতে ১ম স্থান দখল করায় তাকে জামালপুরের সাবেক ডিসির পক্ষ থেকে অভিনন্দন।
Total Reply(0)
সাইয়েদ জয়নাল আবেদীন ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:১৮ এএম says : 0
মনে হয় ছেড়ে দিতে হবে!! জি কে শামীমের হাতে সচিবালয়-র‌্যাব হেড কোয়ার্টারসহ ১৭ প্রকল্প-
Total Reply(0)
Farikzaman Farik ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 0
এখন দেখার বিষয় এইগুলা কি স্বাভাবিক নিয়মে পাইছে না কমিশনের বিনিময়ে পাইছে। যদি কমিশনের বিনিময়ে হয় তাহলে কারা জড়িত তাদের খুজে শাস্তির আওতায় আনতে হবে।
Total Reply(0)
Harunur Rashid Parvez ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 0
একটা পাতি নেতার বাসা থেকে যদি নগদ ১০ কোটি টাকা আর ২০০ কোটির ব্যাংক একাউন্ট পাওয়া যায় তবে রাঘব বোয়ালদের কি অবস্থা কল্পনা করেছেন কি...!!!
Total Reply(0)
MD Parbaz ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 0
সাতজন বডিগার্ড এর সম্পদের হিসাব নেওয়া দরকার
Total Reply(0)
Reza Nur Tarafdar ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:২০ এএম says : 0
হাজার হাজার কোটি টাকার কাজ চলতেছে তার কাছে কোটি টাকা থাকতে পারে। কিন্তু কাজ গুলো কি সঠিক ভাবে পেয়েছেন কিনা জানা দরকার
Total Reply(0)
MH Sajib ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:২০ এএম says : 0
ওনারে গ্রেফতার করার কোনো যুক্তি খুজে পাই না। যেহেতু উনি বাংলাদেশের ১ নাম্বার ঠিকাদার। পারমানবিক বিদ্যুত কেন্দ্রের কাজ করতেছে সুতরাং ওনার কাছে তরল টাকা থাকতেই পারে। আর মদ খায় না কেডা? অস্ত্র থাকতেই পারে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকা চুরি হয়ে যাচ্ছে। ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে আর উনি তো ভালো কাজ করছে এফডিআর করে রাখছে।
Total Reply(0)
taijul Islam ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৯:২৪ এএম says : 0
একটা পাতি নেতার বাসা থেকে যদি নগদ ১০ কোটি টাকা আর ২০০ কোটির ব্যাংক একাউন্ট পাওয়া যায় তবে রাঘব বোয়ালদের কি অবস্থা কল্পনা করেছেন কি...!!!WHAT A LEG!
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন