ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বশেমুরবিপ্রবির অচলাবস্থা নিরসনে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৬:৩৪ পিএম

গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) এক ছাত্রীকে সাময়িক বহিষ্কারকে কেন্দ্র করে তৈরি হওয়া অচলাবস্থার বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

আজ শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব সোহরাব হোসাইনকে এ নির্দেশ দেন।
এরইমধ্যে বহিরাগতদের দ্বারা শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের ঘটনায় দুপুরে বশেমুরবিপ্রবির সহকারী প্রক্টর হুমায়ুন কবির পদত্যাগ করেছেন। সকালে বশেমুরবিপ্রবি আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন তৃতীয় দিনে পৌঁছালে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

এর আগে গতকাল শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে উপাচার্যের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। উপাচার্য খোন্দকার নাসির উদ্দিনকে বিএনপি-জামায়াতের লোক বলেও আখ্যায়িত করেন তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনিয়মের সঙ্গে তিনি জড়িত বলে দাবি করে, তার পদত্যাগ না হওয়া পর্যন্ত আমরণ অনশন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা।

এর আগে বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাত ১২টার দিকে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরে সেগুলো বাস্তবায়নের দাবি জানান।
এদিকে, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ঘোষিত ১৪ দফা দাবি মেনে নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে অফিস আদেশ জারি করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ওই আদেশের ৪ নম্বর ক্রমিকে উল্লেখ করা হয়, সাধারণ শিক্ষার্থীদের বাক স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দেয়া হবে এবং ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ ছাড়া বহিষ্কার করা হবে না। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ডেকে এনে অপমান করা যাবে না। অফিস আদেশের ১ নম্বর ক্রমিকে বলা হয়, ৬ মাসের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ও শহীদ মিনার নির্মাণকাজ শুরু হবে।
আন্দোলনকারীরা জানান,বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ও শহীদ মিনার নির্মাণকাজ শুরু করতে ৬ মাস লাগবে কেন? আজ কিংবা আগামীকাল কেন কাজ শুরু হবে না? তাই ভিসির পদত্যাগ এটাই ছাত্র সমাজের একমাত্র দাবি।

জানা গেছে, গত ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর প্রতিবাদে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকরা আন্দোলন শুরু করেন। ফাতেমা-তুজ-জিনিয়া ডেইলি সান পত্রিকার প্রতিনিধি। সাংবাদিকদের আন্দোলনের মুখে গত বুধবার জিনিয়ার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। পরে শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। তারা রাত সাড়ে ৯টায় হল থেকে বের হয়ে আন্দোলন শুরু করে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন