ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বরকে নিয়ে বাড়ী ফিরলেন সেই কনে

বরকে নিয়ে বাড়ী ফিরলেন সেই কনে | প্রকাশের সময় : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১১:৩৯ এএম

বাংলাদেশে বিয়ের যে প্রচলিত প্রথা সেটা ভেঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনার জন্ম দিয়েছে চুয়াডাঙ্গার সদ্য বিবাহিত এক দম্পতি। গত শনিবারের এই বিয়ের ছবি এবং ভিডিও ফেসবুকে অনেকেই শেয়ার করছেন। রোববার রাতে কনে রবকে সঙ্গে নিয়ে নিজের বাড়ি ফিরেছেন।

বাংলাদেশের চিরাচরিত নিয়মানুযায়ী বর তার আত্মীয়-স্বজনসহ অন্যান্য সহযাত্রীদের নিয়ে কনের বাড়ি যান বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে। এবং সেখান থেকে কনেকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন।

কিন্তু চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার হাজরাহাটি গ্রামের মেয়ে খাদিজা আক্তার খুশি এক্ষেত্রে উল্টো কাজটি করেছেন।

তিনি তার সহযাত্রীদের নিয়ে মেহেরপুর জেলার গাঙনি পৌরসভার চৌগাছা গ্রামের ব্যবসায়ী তরিকুল ইসলাম জয়ের বাড়িতে হাজির হন বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে।

বিয়ের একটি ভিডিওতে দেখা যায়, প্রথাগতভাবে বিয়ের অনুষ্ঠানস্থলের প্রবেশমুখে যেভাবে বরকে বরণ করা হয়, তেমনি এই বিয়েতেও কনেকে ফুলের মালা পরিয়ে, মিষ্টি খাইয়ে বরণ করে নেন বরপক্ষের আত্মীয় স্বজন।

এরপর বর কনে আসনে বসে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন। সব অতিথিদের আপ্যায়ন শেষে সন্ধ্যার দিকে বরকে নিয়ে কনে চলে যান তার বাবার বাড়িতে।

ব্যতিক্রমধর্মী এই বিয়ের অনুষ্ঠানকে ঘিরে স্থানীয়দের মধ্যে উৎসাহের কমতি ছিলনা বলে জানিয়েছেন সেখানকার এক সাংবাদিক।

বিয়ের অনুষ্ঠান দেখতে বরের বাড়িতে যেমন উৎসাহী জনতা ভিড় ছিল তেমনি কনের বাড়িতে অনেক মানুষ জড়ো হন বলে তিনি জানান।

এই প্রথার বাইরের বিয়ের প্রস্তাবটি আসে মূলত বর তরিকুল ইসলাম জয়ের বাবা আবদুল মাবুদের পক্ষ থেকে।

এ ব্যাপারে কনে খাদিজা আক্তার বলেন, "ছেলেরা যদি পারে মেয়েদেরকে বিয়ে করে নিয়ে আসতে তাহলে মেয়েরা কেন পারবেনা। নতুন সিস্টেমে বিয়ে করতে পারে আমি অনেক খুশি। প্রথমে ভেবেছিলাম এভাবে বিয়ে করবো, ঠিক হবে কিনা। কিন্তু পরে আমি রাজী হই। এমন আনকমনভাবে বিয়ে এর আগে আর কেউ করেনি। বিয়েতে এজন্য অনেক আনন্দ হয়েছে।"

শুরুতে দুই পরিবারের আত্মীয়-স্বজন এবং পাড়া-প্রতিবেশী আপত্তি জানালেও পরে তারা রাজী হন। এবং সাদরেই এই প্রস্তাবকে গ্রহণ করেন।

"অনেকে কোর্টে গিয়ে বিয়ে করেন, অনেকে মসজিদে বিয়ে করেন। আমরা ধর্ম মতে বিয়ে করেছি। কাজী ছিলেন, সাক্ষীরা ছিলেন। সেভাবেই বিয়ে রেজিস্ট্রি হয়েছে। বিয়ের আসল আনুষ্ঠানিকতা তো এটাই। সেটা তো আমরা ঠিকভাবেই করেছি। এখন অনুষ্ঠান কিভাবে হল না হল, সেটা নিয়ে কারা কী ভাবল, কী বলল সেটা আমাদের দেখার বিষয় না। একেক মানুষ একেকরকম ভাববে, এটা যার যার ব্যাপার" বলেন বর।

বিয়ের অনুষ্ঠান শেষে ফেরার সময় কনে ও তার পরিবার সাধারণ শোক বিহ্বল হয়ে কান্নাকাটি করেন। কিন্তু এই বিয়েতে তাহলে ফেরার পরিবেশ কেমন। সেটা নিয়েও মানুষের আগ্রহের শেষ নেই।

এ ব্যাপারে বর বলেন, "মা-বাবাকে ছেড়ে যেতে কষ্ট হয়েছে। তাদেরকে সালাম করে দোয়া চেয়ে ফিরেছি। পুরুষ মানুষ, সহজে চোখে পানি আসেনি ঠিক কিন্তু কষ্ট হয়েছে। তাই চুপচাপ ছিলাম।"

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Faruk Ahmed ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:৪২ পিএম says : 1
এবার দেন মোহরটা কনের পক্ষে আদায় করে বরের বরন পোষন বহন করুক সাথে বরকে চিরদিনের জন্য কনের বাপের বাড়িতেই থাকতে দিক।নারী পরুষের বৈষম্য দুর করুক।বাচ্চাও যদি পুরুষের পেট থেকে বের হত তবেই না ১০০% নারী পুরূষের অধিকার আদায় হত।
Total Reply(0)
Md. Masum Billah ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৪:৩০ পিএম says : 0
ইসলামের নিয়ম,এই পৃথিবীতে সবচেয়ে সুন্দর। এইটি ইসলামের নিয়মের বাইরে।
Total Reply(0)
Md.ahlan ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ২:৩০ এএম says : 1
Bea korce vlo . Kesu kesu hejra asa jara joutok ar tk pile khub khuse hoy. Mia Bea korce vlo e to korce apnder jole know?
Total Reply(0)
আজহারুল ইসলাম ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৭:৪৪ পিএম says : 0
উল্টো যদি কিছু করতে চান তাহলে বরের থেকে যৌতুক আদায় করুন,কারন সবাই৷ যৌতুক দেয়, আর আপনি নেবেন৷
Total Reply(0)
মোঃআবদুল কাইয়ুম ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৫:৪৭ এএম says : 0
ইসলামে নিয়ন অনুযায়ী এই বিয়ে গহন যোগ্য হবে বলে আমার মনে হচ্ছেনা
Total Reply(0)
সুজন ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৯:৫৮ এএম says : 0
ভাই এখন আপনি রান্না ঘরে ঢোকেন
Total Reply(0)
Md.habibur rahman ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৪:০৮ পিএম says : 0
খুব ভাল করছেন এই না হলে আপনি মেয়ে।একবারে পুরুষ মেয়ে।
Total Reply(0)
Kamrul ৪ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:১১ এএম says : 0
তাহলে ভাই আপনি পর্দায় থাকুন।আর ভাবি আপনি মাঠে যান।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন