ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

সাহিত্য

মসনবী শরীফ

কাব্যানুবাদ : রূহুল আমীন খান | প্রকাশের সময় : ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

মসনবী শরীফ
মাওলানা জালাল উদ্দীন রূমী রহ.
কাব্যানুবাদ : রূহুল আমীন খান

১৮৯১. ছ’দ গাঁথার, মাত্রা-তালের ভাবনা ভুলে যাও
তুমিইতো ছ’দ আমার, আমায় শুধু চাও।

১৮৯২. কাব্য গাঁথা কী আর এমন, কেবল ওই সকল
আঙ্গুর ক্ষেতের কাটার বেড়াÑ নয়কো আঙ্গুর ফল।

১৮৯৩. হরফ ধ্বনি, কথামালাÑ দাও গুড়িয়ে সবে
ওসব ছাড়াই তোমার আমার ভাব-বিনিময় হবে।

১৮৯৪. রহস্যময় ভেদ-কথা যা কইনি আদম সনে
তোমার কাছে সে সব কথা কইব সংগোপ্রনে।

১৮৯৫. বলিনি যা ইব্রাহীমে, জিবরিলেও যা’
রাখিয়াছি গোপ্রন করে, বলব তোমায় তা’।

১৮৯৬. ঈসামসি যেই বিষয়ে খুলেন নি মুখ তাঁর
গায়রতে আল্লাÑ ‘মা’ ছাড়া কননি কিছু আর।

১৮৯৭. অভিধানে ‘মা’-এর ‘হ্যা’ ‘না’Ñ উভয় মানে আছে
তবে ‘না’Ñ ই প্রছ’দসই সদা আমার কাছে।

১৮৯৮. সত্তা কে মোর সত্তাতে তাঁর লীন করেই প্রাই
তাঁর মাঝে মোর সত্তাকে তাই লীন করিতে চাই।

১৮৯৯. সকল রাজাÑ সেবকগণের সেবায় থাকে রত
মৃতগণের স্বজনরা হয় মাইয়্যেতেরই মত।

১৯০০. বাদ্্শা ভালবাসে যে তাঁর অধিক অনুগত
সাধারণও ভালবাসে নহে যে উদ্ধত।

১৯০১. শিকারীরা ন¤্রভাবে থাকে শিকার-কালে
প্রক্ষী যাতে ফেলতে প্রারে সুকৌশলে জালে।
১৯০২. মাশুকরাও আশিক লাগি থাকে প্রাগলপ্রারা
আশিক যেন রয় সদা তার এশ্কে মাতোয়ারা।

১৯০৩. দেখছ যাকে আশিক স্বয়ং নিজেই মাশুক ঠিক
প্র্রেম কভু নয় এক মুখি, সে টানে উভয় দিক।

১৯০৪. তৃষিতেরা ব্যাকুল যথা রয় জল-সন্ধানে
জলও তেমন তৃষ্ণাতুরে টানে নিজের প্রানে।

১৯০৫. তিনিই তোমার আশিক, করেন তোমাকে সন্ধান
কর্ণ ধরে টানেন তোমায়, ঠিক রাখিও কান।

১৯০৬. বন্ধ কর, বন্ধ কর, আসছে ধেয়ে ঢল
ভাসিয়ে নেবে নইলে সবই তীব্রগতি জল।

১৯০৭. বিরান হলেও চিন্তিত নয় মোর মোটেই মন
বিরান ভূমির নি¤œদেশে থাকে গুপ্তধন।

১৯০৮. যে মজেছে সে চায় আরো মজতে অনন্তর
সমুদ্র ঢেউ হয়ে ওঠে ক্রমে ভয়ংকর।

১৯০৯. হৃদয়গ্রাহী উপ্রর না তলÑ কোনটা বারিধির
কোনটা হৃদয়গ্রাহী বলোÑ ঢাল অথবা তীর ?

১৯১০. প্র্রবৃত্তির আজ্ঞাবহ, জিম্মী হলে তবে
সুখ-দুখকে একসম নয়, ভিন্ন মনে হবে।

বু ক ক র্ণা র

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন