ঢাকা, বুধবার , ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ভারতীয় জেলেদের পোয়াবারো

ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞার সুযোগে

আবু হেনা মুক্তি | প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

বাংলাদেশে চলছে ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা। এ সুযোগ কাজে লাগাচ্ছে ভারতীয় জেলেরা। তারা বাংলাদেশের পানিসীমায় ঢুকে অবাধে মাছ শিকার করে নিয়ে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বাংলাদেশ মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির অভিযোগ, বঙ্গোপসাগরের আন্তর্জাতিক সীমা বা ইনোসেন্ট প্যাসেজ পেরিয়ে বাংলাদেশের অন্তত ৫০ নটিক্যাল মাইল অভ্যন্তরে ঢুকে ভারতীয় জেলেরা মাছ ধরছে। বিশেষ করে বাংলাদেশে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞার সুযোগে ভারতীয় মাছ ধরার কয়েকশ অত্যাধুনিক ট্রলার এখন এই সমুদ্রসীমা চষে বেড়াচ্ছে।
স্থানীয় মৎস্য কর্মকর্তার দাবি, বাংলাদেশের সমুদ্র সীমায় ভারতীয় নৌযানের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে নৌবাহিনী এবং কোস্টগার্ড কাজ করছে। অপরদিকে বাংলাদেশি জেলেদের ক্ষোভ, সাগরে মাছ ধরতে না পেরে আর্থিক কষ্টে মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন তারা।
উপক‚লীয় মৎস্যজীবী সমিতির সভাপতি শেখ ইদ্রিস আলী অভিযোগ করে বলেন, ভারতীয় জেলেরা বাংলাদেশে ঢুকে মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। তারা খুবই বেপরোয়া। সামনে পড়লে বাংলাদেশি জেলেদের মারধর করে, জাল নষ্ট করে দেয়। ওদের ট্রলার অনেক বড়, আমাদের ট্রলার ছোট। সমুদ্রসীমায় মাছ ধরার ক্ষেত্রে আমাদের নিষেধাজ্ঞার সুযোগটাই ওরা বেশি কাজে লাগায়।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের জেলেদের সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। সমুদ্রে প্রবেশের পর মোবাইলে নেটওয়ার্ক পাওয়া যায় না। তখন কারও সঙ্গে আর যোগাযোগ থাকে না। কিন্তু, ভারতীয় জেলেদের কাছে ওয়্যারলেস রয়েছে। ওদের ট্রলার বড় হওয়ায় লোকসংখ্যাও বেশি। বিপদে পড়লে ওদের রাষ্ট্রীয়ভাবে সাহায্য করে। আর আমরা নেটওয়ার্কের বাইরে থাকায় বিপদের খবর জানাতেও পারি না।
সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেরা জানান, আধুনিক জাল ও ট্রলার নিয়ে অনেকটা সাগর সেচে তোলার মতো মাছ ধরে ভারতীয়রা। দ্রুতগামী নৌযান ও কারেন্ট জালসহ জিপিএস ব্যবহার করে ভারতীয় জেলেরা। তারা উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বাইনোকুলার দিয়ে বাংলাদেশের নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডের তৎপরতায় চোখ রাখে আর তাদের আসতে দেখলেই দ্রæত পালিয়ে যায়। এসব জেলেদের নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ড মাঝে মধ্যে আটক করলেও তাদের বেপরোয়াভাবে পানিসীমা লঙ্ঘন করে মাছ ধরা থামে না।
দেশি জেলেরা অভিযোগ করে বলেন, একই সাগরে দুই ধরনের নিয়ম হয় কীভাবে? ভারতে যখন সমুদ্রে মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকে, ঠিক সেই সময় বাংলাদেশেও নিষিদ্ধ থাকা উচিত।
এ বিষয়ে কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের গোয়েন্দা কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও সমুদ্রসীমা লঙ্ঘন করে মাছ শিকারের সময় কোস্টগার্ড এবং নৌবাহিনীর হাতে প্রায়ই ভারতীয় জেলেরা আটক হয়। গত জুন থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত কোস্টগার্ডের হাতে ৫১৬ ভারতীয় অনুপ্রবেশকারী আটক হয়েছে।
প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। এসময় দেশিয় জেলেরা সমুদ্র বা নদী থেকে ইলিশ আহরণ বন্ধ রাখে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (14)
Md MostafizurRahman Banijjo ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:২৯ এএম says : 0
যেখানে দেশের জেলেরা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ ধরলে জেল জরিমানা করা হচ্ছে,সেখানে ভারতীয় জেলেদের মাছ ধরা স্বাধীন দেশের ভূখন্ডে আঘাত করার শামিল।
Total Reply(0)
Mahfujur Rahman ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:২৯ এএম says : 0
দাদাদের জন্য সুযোগ তৈরি হলো।
Total Reply(0)
Md Ashiquzzaman ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩০ এএম says : 0
What is happening??? How long????
Total Reply(0)
Khan Alam ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩০ এএম says : 0
বাংলাদেশিদের জন্য মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে ভারতীয়দের জন্য নয়
Total Reply(0)
Mohammed Rasel Parvez ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩০ এএম says : 0
দাদারা বলে কথা,,, মুক্তিযুদ্ধের সময় তো সহযোগিতা করেছে,,,,,,,,,,
Total Reply(0)
Osman Gani ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩০ এএম says : 0
সত্যি লজ্জা আমাদের
Total Reply(0)
Aɭ Mʌɱʋŋ Tɩpʋ ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩২ এএম says : 0
তাদের জন্যই তো সরকারি ভাবে ইলিশ ধরা নিষেধ করেছে,যেন তাদের ইলিশ ধরতে কষ্ট না হয়
Total Reply(0)
Kazi Abdus Samad ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩২ এএম says : 0
প্রতিবেশীদের সাথে খারাপ ব্যাবহার করা উচিৎ না।সামান্য মাছই তো অন্য কিছু তো না।আর বাংলাদেশ তো ভারত মহাদেশেরই অংশ।বুঝলে বুঝ পাতা না বুঝলে তেজ পাতা।
Total Reply(0)
Newaj Shorif ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৩ এএম says : 0
কি হবে কতা বলে??কোন মা ছেলেকে হারাবে?? নীতিকথা বলা আমাদের দেশে এখন অপরাধ! হায়াত থাকতে কারো নিঃসংশতার শিকার হয়ে মা-বাবা কে কষ্টের মধ্যে ফেলে কি লাভ! তবে আমাদের মনুষ্যত্ববোধ না তাকলেও আল্লাহর বিচারে কোন ভুল নেই।
Total Reply(0)
Md Saju Saju ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৩ এএম says : 0
রাষ্ট্র যেভাবে ভারতকে তৈল মারছে ! তাতে প্রচুর ইলিশের প্রয়োজন , এই তৈল ইলিশ মাছে ব্যবহার করার বিকল্প কিছু আছে কি??
Total Reply(0)
Manzu Manzu ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৩ এএম says : 0
আমরা সমুদ্র জয় করেছি। সে কি আনন্দ উল্লাস। দেখ স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন।
Total Reply(0)
Enamul Islam ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৪ এএম says : 0
বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এখনি কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া উচিত বাংলাদেশী সমুদ্রসীমায় অনুপ্রবেশকারিদের প্রয়োজনে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে প্রতিহত করতে হবে
Total Reply(1)
Yourchoice51 ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১০:২৪ এএম says : 0
Ha ha!!! Bangladesh Navy or Coastguards are going to chase the Indian fishermen???? What happened to the 516 intruders so far arrested by the Coastguards of Bangladesh?
Solaiman Mohammad Siddiquee ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ২:০৭ এএম says : 0
Serving MASTER is also part of duty.
Total Reply(0)
ahammad ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ৩:০৪ এএম says : 0
গ্রামের মনুষ ইলিশ পায় না, আর কখনো ভাগ্যের জোরে পাইলেও কজি ১০০০/১২০০ টাকা। আর দাদাদের জন্য ৫০০ মেট্রক টন,৫০৭ টাকা করে।
Total Reply(1)
jan mohammed ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ১০:১০ এএম says : 0
প্রতিবেশীদের সাথে খারাপ ব্যাবহার করা উচিৎ না।সামান্য মাছই তো অন্য কিছু তো না

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন