ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

আওয়ামী লীগে নিয়ন্ত্রণ নাই: ড. মোশাররফ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ অক্টোবর, ২০১৯, ২:৩৫ পিএম | আপডেট : ৩:৫১ পিএম, ২৮ অক্টোবর, ২০১৯

আওয়ামী লীগের দলে ও অঙ্গ-সংগঠনগুলোতে নিয়ন্ত্রণ নাই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ৯০'র ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য আয়োজিত এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

'বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের অবৈধ সাজা বাতিল এবং সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি' উপলক্ষে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, সরকারের কোথাও নিয়ন্ত্রণ নেই। নিয়ন্ত্রণ কিভাবে থাকবে? যাদের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ থাকবে তাদের ব্যবহার করে গত ৩০ ডিসম্বের নির্বাচন ২৯ তারিখ রাতে ভোট ডাকাতি করেছেন। তাহলে কেনো আপনাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে? তাই আজকে দেখছেন, আওয়ামী লীগের নিজেদের দলে ও অঙ্গ-সংগঠনগুলোতে নিয়ন্ত্রণ নাই, সরকারি কর্মকর্তাদের উপরে নিয়ন্ত্রণ নাই।

৩০ ডিসেম্বের নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারে নাই- ক্ষমতাসীন জোটের অন্যতম শীর্ষ নেতা রাশেদ খান মেননের এই বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, তিনি যখন সাক্ষী দিয়েছেন তখন এই সরকারের আর ক্ষমতায় থাকার অধিকার নেই। আর এই সংসদের আর সংসদ হিসেবে কাজ করার অধিকার নেই।

মোশাররফ বলেন, আমরা যখন বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদের কথা বলি, তখন সরকার থেকে বলা হয়- আমরা আবরারকে নিয়ে রাজনীতি করছি! কিন্তু আমরা আবরারের কথা বলতে চাই না। তবে এই ২০ জন ছাত্র যারা আজকে গ্রেপ্তার হয়েছে, তারা কারা?

তিনি বলেন, বুয়েটের মত জায়গায় মেধাবীরাই চান্স পায়। এই ২০জন ছাত্রও কিন্তু এইচএসসি পড়া পর্যন্ত তাদের পরিবারের কাছে সোনার ছেলে ছিলো? তা না হলে তারা বুয়েটে ভর্তি হতে পারতো না। এই ২০টি সোনার ছেলেকে কারা দানবে পরিণত করেছে? দানবে পরিণত করেছে ছাত্রলীগ। যে ছাত্রলীগের অভিভাবক হচ্ছেন আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, এই ২০ জন ছাত্রের জীবন শেষ হয়ে গেলো। ২০টি পরিবার রাস্তার নামলো। এই ২০ জনের মধ্যে একজন রিক্সাওয়ালার সন্তান, আমরা পত্রিকায় দেখেছি। এতো কষ্ট করে তাদের মানুষ করেছেন। কিন্তু সেই ছেলেগুলো এক বছরের মধ্যে দানব হয়ে গেলো! কারা করলো? এর জবাব আজকে এই সরকারকে দিতে হবে। আর তাদের বিচার আমরা চাই।

সরকারের অভিযানের প্রসঙ্গে খন্দকার মোশাররফ বলেন, অভিযানে কিছু ধরা পড়েছে।তারা চুনোপুটি। তাদের পিছনে যে রাঘববোয়াল আছে, সেই রাঘববোয়ালদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য, তাদেরকে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনার জন্য দাবি করছি।

খালেদা জিয়ার জামিনের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বেগম জিয়া অধিকার জামিন পাওয়া। তাই তাকে জামিন দেওয়া হোক। আর জামিন পাওয়ার পর তার ইচ্ছা মত তিনি উন্নত চিকিৎসা নেবেন। আর জামিন যদি না দেওয়া হয় তাহলে পিজি হাসপাতাল কিংবা কারাগারের ভিতরে যদি বেগম জিয়ার কিছু হয় তাহলে তার দায়-দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে। জনগণের কাছে একদিন তাদের জবাব দিতে হবে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে দলটির নেতা হাবিবুর রহমান হাবিব, খায়রুল কবির খোকন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এবিএম মোশাররফ হোসেন প্রমুখ বক্তব্যে রাখেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Miah Muhammad Adel ২৮ অক্টোবর, ২০১৯, ৪:২৬ পিএম says : 0
Bangladeshi politicians should take lesson from Chile and Lebanon.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন