ঢাকা, শুক্রবার , ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ছাগল বাঁচাতে ইজিবাইক বাস সংঘর্ষে নিহত ৭

ছুটির দিনে নিহত আরো ৬

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

নবদম্পতি লাবু ইসলাম (২৯) ও মুক্তি বেগম (১৯)। দেড় মাস আগে আজীবন এক সাথে থাকার প্রত্যয় নিয়ে বসেছিলেন বিয়ের পিঁড়িতে। গতকাল ছুটির দিনে তাদের এক আত্মীয়ের বাসায় যাচ্ছিলেন বিয়ের দাওয়াতে। বিয়ের আনন্দে তাদের মধ্যে ছিল উৎসবের আমেজ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত যাওয়া হলো না সেই দাওয়াতে, ফেরা হলো না বাড়ি। দুপুর দেড়টার দিকে পঞ্চগড়-তেঁতুলিয়া জাতীয় মহাসড়কের মাগুরমারি চৌরাস্তা এলাকায় তাদের বহনকারী ইজিবাইকটিকে চাপা দেয় কাজী ব্রাদার্স নামে তেঁতুলিয়াগামী যাত্রীবাহী একটি বাস। সেখানেই তাদের মৃত্যু হয়। এ সময় ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকে থাকা আরেক দম্পতিসহ আরও তিনজন মারা যান। এছাড়া গত ২০ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন স্থানে আরো ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন ৩৫ জন।
পঞ্চগড় : পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে ইজিবাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নবদম্পতিসহ সাতজন নিহত হয়েছেন। শুক্রবার দুপুরে উপজেলা শালবাহান মাঝিপাড়া এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, লাবু ইসলাম ও তার স্ত্রী মুক্তি বেগম, সদর উপজেলার সুরিভিটা এলাকার আকবর আলী (৭০) ও তার স্ত্রী নুরিমা বেগম (৫৫), একই উপজেলার অমরখানা ইউনিয়নের চেকরমারি এলাকার ইজিবাইক চালক রফিক (২৮), সাতমেরা ইউনিয়নের রায়পাড়া এলাকার ফরহাদ হোসেন মাকুদ (৪৫) এবং সাহেবজোত এলাকার আকবর আলীর স্ত্রী নার্গিস আক্তার (৪২)।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জেলা শহর থেকে কাজী ব্রাদাসের যাত্রীবাহী বাসটি তেঁতুলিয়া যাচ্ছিল। মাগুরমারি এলাকায় একটি ছাগলকে পাশ কাটাতে গিয়ে বাসটি বিপরীত দিক থেকে আসা ইজিবাইকটিকে ধাক্কা দিলে ইজিবাইকটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। এক পর্যায়ে ইজিবাইকটি বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে বাসের ভেতরে ঢুকে যায়। ঘটনাস্থলেই ইজিবাইকের মধ্যে থাকা দুই দম্পতিসহ চালক মারা যান। গুরুতর আহত অবস্থায় অন্য দুজনকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তারাও মারা যান। পরে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী দুই ঘণ্টার বেশি সময় মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এই দুর্ঘটনার জন্য স্থানীয়রা হাইওয়ে পুলিশের অবহেলাকে দায়ী করে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল ছোড়ে। এ সময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী নুর আলম বলেন, যাত্রীবাহী বাসটি একটি ছাগলকে পাশ কাটাতে গিয়ে ইজিবাইকটিকে ধাক্কা দেয়। ইজিবাইটি দুমড়ে মুচড়ে বাসের নিয়ে চলে যায়। ওই অবস্থাতেই ইজিবাইকটিকে প্রায় একশ মিটার ছেঁচড়ে নিয়ে যায় বাসটি। ঘটনাস্থলেই আমরা পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করি। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় সাতজন নিহত হয়েছেন। বাস চালককে আটক করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। তবে কী কারণে ঘটনাটি ঘটেছে তা খতিয়ে দেখে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কেরানীগঞ্জ : রাজধানীর কেরানীগঞ্জের রুহিতপুর এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী বাবা আসাদুল হক ইপু (৪০) ও তার শিশুসন্তান সোহান (৬) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সঙ্গে থাকা আসাদুলের স্ত্রী রেশমা আক্তার আহত হয়েছেন। গতকাল দুপুর ২টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর পথচারীরা তিনজনকেই আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে আসেন। পরে বিকেল সোয়া ৩টার দিকে বাবা আসাদুল ও তার শিশুসন্তান সোহানকে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
নিহত আসাদুলের স্ত্রী রেশমা জানান, তারা সায়েদাবাদ করাতিটোলা এলাকায় থাকেন। তার স্বামী একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করতেন। শুক্রবার স্বামী ও সন্তানের সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে কেরানীগঞ্জের বাগমারা এলাকায় শ্বশুরবাড়িতে যাচ্ছিলেন রেশমা। পথে রোহিতপুর কুড়াহাটি এলাকায় পৌঁছানোর পর একটি ট্রাক তাদের মোটরসাইকেলটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। তখন তিনজনই ছিটকে পড়েন। দুর্ঘটনায় আসাদুল ও শিশুসন্তান সোহান মাথায় গুরুতর আঘাত পান। পরে তিনজনকেই উদ্ধার করে ঢামেকে নিয়ে এলে দায়িত্বরত চিকিৎসক আসাদুল ও সোহানকে মৃত ঘোষণা করেন।
গাইবান্ধা : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহেশপুর এলাকায় বাস-লেগুনা সংঘর্ষে লেগুনা চালক আরিফুল ইসলাম বাবু (১৯ ) নিহত হয়েছেন। এতে আরও ২০ জন বাসযাত্রী আহত হয়েছেন। গতকাল সকালে ঢাকা ও রংপুর মহাসড়কের পলাশবাড়ীর মহেশপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আরিফুল ইসলাম বাবু সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপের হাট তিলকপাড়া গ্রামের সঞ্জু মিয়ার ছেলে। গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আক্তারুজ্জামান জানান, রংপুরগামী একটি হানিফ পরিবহনের বাস মহেশপুর এলাকায় আসলে বিপরীত দিকে থেকে আসা একটি লেগুনার সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে লেগুনার চালক আরিফুল ইসলাম বাবু ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এ সময় হানিফ পরিবহনের ২০ যাত্রী গুরুতর আহত হন। পরে তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
লালমনিরহাট : লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে এক মোটরসাইকেলচালক নিহত হয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার সিঙ্গিমারী ইউনিয়নের শস্যগুদাম নামক স্থানে লালমনিরহাট-বুড়িমারী স্থলবন্দর মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত চালকের নাম খায়রুল ইসলাম (৩৫)। তিনি পাটগ্রাম উপজেলার জোংড়া ইউনিয়নের মোমিনপুর গ্রামের বাসিন্দা। খায়রুল ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালাতেন। পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন সূত্রে জানা যায়, গতকাল রাত ১০টার দিকে এক যাত্রীকে নিয়ে খায়রুল তার মোটরসাইকেলে করে লালমনিরহাট থেকে পাটগ্রামের দিকে ফিরছিলেন। পথে শস্যগুদাম নামক স্থানে বুড়িমারী স্থলবন্দর থেকে পাথরবোঝাই দ্রæতগামী ট্রাকের সঙ্গে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে খায়রুল ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যান। ওই সময় যাত্রী সামিউল ইসলাম মোটরসাইকেল থেকে ছিটকে সড়কে পড়ে আহত হন। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। হাতীবান্ধা উপজেলার বড়খাতা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক বলেন, দুর্ঘটনার পর চালক ট্রাক নিয়ে পালিয়ে যান। তাঁকে আটক করার চেষ্টা চলছে।
আশাশুনি (সাতক্ষীরা) : আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগরে মটরসাইকেল দুর্ঘটনায় চালক নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনার শিকার চালককে খুলনা হাসপাতালে নেওয়ার পর গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে তিনি ইন্তেকাল করেন।
প্রতাপনগর ইউনিয়নের নাকনা গ্রামের শেখ সুরাত আহম্মদের পুত্র শেখ মফিজুল ইসলাম বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে নাকনা থেকে কল্যাণপুর যাচ্ছিলেন। কল্যাণপুর ক্লিনিক মোড়ে পৌছলে চালক দ্রæত গতির মটর সাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে মটর সাইকেল পাশের গাছে গিয়ে ধাক্কা পায়। এতে তিনি মাথা ও মুখে প্রচন্ড আঘাতে রক্তাক্ত জখম ও জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তাৎক্ষণিক ভাবে তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে অবস্থার অবনতি ঘটলে খুলনায় রেফার করা হয়। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর তিনি ইন্তেকাল করেন।
বোদা (পঞ্চগড়) : পঞ্চগড়ের বোদায় ট্রাকের ধাক্কায় রাজ কুমার (৩০) নামে এক মোটর সাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় মহব্বত বর্মন (২৯) নামের অপর আরোহীকে গুরত্বর আহত অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় বোদা-দেবীগঞ্জ এশিয়া মহাসড়কের ফায়ার সার্ভিস মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত রাজ কুমার পঞ্চগড় সদর উপজেলার সদর ইউনিয়নের মোলানী চানপাড়া এলাকার দেবারুর ছেলে ও আহত মহব্বত একই এলাকার সুরেন্দ্র নাথের ছেলে। তারা দু’জনেই পেশায় কাঠমিস্ত্রী। পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার মাড়েয়া আঞ্চলিক সড়ক থেকে বোদা দেবীগঞ্জ এশিয়ান মহাসড়কে উঠার সময় দেবীগঞ্জ থেকে ছাড়ে আসা পঞ্চগড়গামী একটি দ্রæতগামী ট্রাক মোটর সাইকেলটিকে ধাক্কা দেয়। এতে রাজ কুমার ও মহব্বত ট্রাকের নিচে পড়ে যায়। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা দ্রæত তাদের উদ্ধার করে বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাজ কুমারকে মৃত ঘোষণা করেন। গুরুত্বর আহত মহব্বতকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফাট করেন।
নবীগঞ্জ : নবীগঞ্জে যাত্রীবাহি বাস খাঁদে পড়ে ৩০ জন লোক গুরুত্বর আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে। আশংকাজনক অবস্থায় দু’জনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। দুর্ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বিকেলে নবীগঞ্জ উপজেলার কাজিরবাজার নামক স্থানে। প্রত্যক্ষদর্শী ও আহত সূত্রে জানা যায়, দুর্ঘটনায় কবলিত বাসটি নবীগঞ্জ শহর থেকে মার্কুলী নামকস্থানে যাওয়ার পথিমধ্যে কাজিরবাজার নামকস্থানে পৌছামাত্র রাস্তার বেহাল অবস্থা ও বৃষ্টিজনিত কারনে রাস্তাটি কাঁদামাক্ত হয়ে গেলে বাসের চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহি বাসটি নিয়ে খাঁদে পড়ে যান। এসময় বাসের যাত্রী শিশু মহিলা ও বৃদ্ধসহ প্রায় ৩০ জন লোক গুরুত্বর আহত হন

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন