ঢাকা, শনিবার , ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

শান্তি ও সমৃদ্ধির পথ ইসলাম

সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বিধানে মহানবী সা.

খালেদ সাইফুল্লাহ সিদ্দিকী | প্রকাশের সময় : ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

ইসলাম এমন একটি ধর্ম যার আধ্যাত্মিক ও বৈষয়িদিকগুলোর মধ্যে অত্যন্ত চমৎকার সামঞ্জস্য বিদ্যমান। মানবতার উন্নয়ন, সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয় সংহতি এবং নিরাপত্তার জন্য নৈতিকতাবোধ ও আধ্যাত্মিক সাধনার সঙ্গে সঙ্গে পার্থিব বিষয়গুলোর প্রতি ইসলাম বিশেষ গুরুত্বারোপ করেছে।
জাতীয় ও রাষ্ট্রীয় জীবনের নিরাপত্তাকে শক্তিশালী করে একটি নিরাপদ প্রগতিশীল জাতিগঠনে ইসলামের এ উদারতার নীতির নজির সত্যিই বিরল। নানা প্রকারের কুসংস্কার, জড়তা, নৈতিক দুর্বলতা ও গর্হিত কার্যকলাপ পরিত্যাগ করে ইসলামের উদার নীতি ও মহান শিক্ষা অনুসারে সমাজকে কলুষমুক্ত, সুসংহত ও সমৃদ্ধিশালী করে তোলার জন্য আল্লাহর কোরআন ও তার রসূল (সা.) এর হাদীসে বহু উপায়-তদবীরের কথা উল্লেখিত হয়েছে।
উদাহরণ স্বরূপ, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা রক্ষার কথাই ধরা যাক। মুসলমানদের কোনো রাষ্ট্রের উপর বহিঃশক্তি আক্রমণ করে তা কুক্ষিগত করার চেষ্টা করলে তা পূর্ণ শক্তিবলে ব্যর্থ করে রাষ্ট্রীয় ও জাতীয় অস্তিত্ব রক্ষার জন্য পবিত্র কোরআন অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত থাকার নির্দেশ দান করেছে।

সুরা হাদীদে আল্লাহ তা’আলা এরশাদ করেছেন : (হে মোমেনগণ) ‘তোমরা এমনি শক্তি সৃষ্টি কর যে তোমাদের আস্তাবলগুলোতে ঘোড়া এরূপভাবে বেঁধে রাখবে যেন আল্লাহর দুশমন ও তোমাদের দুশমনগণ তোমাদের নাম শুনে বিচলিত হয়ে পড়ে। অর্থাৎ- শত্রুদেরকে ভয়ভীতি প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে তোমরা বৈষয়িক শক্তি সঞ্চয় কর’।
এই আয়াত হতে প্রমাণিত হচ্ছে যে, আত্মরক্ষা ও শত্রুর মোকাবেলা করার জন্য মুসলমানদের সব সময় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে প্রস্তুত থাকতে হবে। আদিকালে যেহেতু যুদ্ধক্ষেত্রে ব্যবহারের জন্য ঘোড়ার প্রচলনই ছিল বেশি, তাই কোরআনে ঘোড়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। আবার অস্ত্রশস্ত্র সম্পর্কে বলা হয়েছে: ‘আমি লৌহ সৃষ্টি করেছি, এতে প্রভ‚ত লাভও আছে আবার বহু অকল্যাণও এর দ্বারা সাধিত হয়।’

সূক্ষèভাবে বিচার করলে দেখা যাবে যে, আল্লাহর এই উক্তিতে লৌহ সৃষ্টির আসল উদ্দেশ্য নিহিত রয়েছে। বর্তমান যুগে এর দ্বারা মানুষ প্রত্যক্ষভাবে একদিকে যেমন নানাভাবে উপকৃত হচ্ছে,অন্যদিকে এর অপব্যবহাওে নানারকমের ধ্বংসাত্মক কার্যও সাধিত হচ্ছে। কোরআনের এই চিরন্তন বাণী মুসলমানদের জন্য শক্তি সঞ্চয়ের উজ্জ্বল নিদর্শন।
ইসলামের প্রথম যুগের ইতিহাস হতে জানা যায় যে, মুসলমান শত্রুর আক্রমণ হতে আত্মরক্ষা কল্পে যাবতীয় ব্যবস্থা অবলম্বন করা অন্যতম দায়িত্ব মনে করতেন। তাই সে যুগে সামরিক শিক্ষা ও সামরিক শক্তি অর্জনের জন্য কোনো প্রকারের ত্রুটি করা হত না।

হিজরতের পর রসূলুল্লাহ (সা.) মদীনার রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা অবলম্বন করেন। আর যখনই যুদ্ধের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে, সে জন্য সামরিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাঁকে অবস্থা-অনুযায়ী ব্যবস্থা অবলম্বন করতে হয়েছে। ‘খন্দক’ এর যুদ্ধে অবলম্বিত রণকৌশলের কথা এ প্রসঙ্গে উল্লেখ করা যায়।
হযরত বারা (রা.) বর্ণনা করেন, রসূলুল্লাহ (সা.) কে ‘খন্দক’ এর যুদ্ধে তাঁর শরীর হতে মাটি পরিষ্কার করিতে দেখেছি। খননকার্যে লিপ্ত থাকায় তাঁর চোখে-মুখে ধুলাবালি লেগে গিয়েছিল। আমি তাঁকে উৎসাহ ও প্রেরণাদায়ক কবিতা পাঠ করতেও দেখেছি। তিনি মাটি উঠিয়ে উঠিয়ে বাইরে নিক্ষেপ করছিলেন। এর ফলে তাঁর শরীর কাদাযুক্ত হয়ে গিয়েছিল।’

এই ঘটনা হতে প্রমাণিত হচ্ছে যে, আত্মরক্ষার জন্য যেখানে অবস্থা অনুযায়ী কোনো উত্তম ব্যবস্থা অবলম্বন করতে হয়,সেখানে সৈন্যদের মনোবল অক্ষুন্ন ও চাঙ্গা রাখার জন্য উৎসাহ ও প্রেরণাদায়ক কবিতা বা সঙ্গীত পাঠ করা যেতে পারে।
হযরত ইমরান ইবনে হোসেন বর্ণনা করেন, যখন ইসলামের মোজাহেদগণের সাথে যুদ্ধক্ষেত্রে বিধর্মীদের মোকাবেলা হত তখন তারা সর্বপ্রথম দুশমনের উপর আক্রমণ করতেন। অর্থাৎ যুদ্ধক্ষেত্রে অবতীর্ণ হলে বীরত্বের সাথে শত্রুর মোকাবেলা করতে হবে। হজরত আবু আইয়্যুব আনসারী (রা.) বর্ণনা করেন যে, মুসলমান ধৈর্য্য ও দৃঢ়তার সাথে দুশমনের মোকাবেলা করে সত্যের জন্য যারা প্রাণ উৎসর্গ করেছে, সে কবরের বিপদ-পরীক্ষা হতে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করল। হযরত উসমান (রা.) বর্ণনা করেন, তিনি হযরতকে বলতে শুনেছেন যে, আল্লাহর পথে একদিন মুসলিম সীমান্ত রক্ষার কাজে নিয়োজিত থাকা অন্যান্য নফল এবাদতে দীর্ঘ সময় লিপ্ত থাকা অপেক্ষা উত্তম। এ সকল হাদীস হতে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা রক্ষার প্রয়োজনীয়তার কথা সহজেই অনুমান করা যায়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
কে এম শাকীর ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১:৩৪ এএম says : 0
ইসলাম আল্লাহর মনোনীত একমাত্র জীবনবিধান। এটি মানবজীবনে গ্রহণীয় ও অনুসরণীয় একক ধর্ম। দুনিয়া ও পরকালীন মুক্তির নির্দেশনা রয়েছে ইসলামে।
Total Reply(0)
মশিউর ইসলাম ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১:৩৪ এএম says : 0
মানবিক সুবিচার ও শান্তি-নিরাপত্তা একমাত্র গ্যারান্টি হলো ইসলামী জীবনব্যবস্থা। মানবজীবনের সার্বক্ষণিক ও সর্বোতমুখি সমাধানের একটি অতি প্রয়োজনীয় রূপরেখা বাতলে দিয়েছে ইসলাম।
Total Reply(0)
সাইফুল ইসলাম চঞ্চল ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১:৩৫ এএম says : 0
আভিধানিক অর্থে ইসলাম হলো রাসূল (স.)-এর জীবনাদর্শের ভিত্তিতে আল্লাহর কাছে নিঃশর্ত ও পরিপূর্ণ আত্মসমর্পণ। এই আত্মসমর্পণ ব্যতীত দুনিয়ার জীবন যেমন ব্যর্থ, তেমনি পরকালীন জীবনেও রয়েছে চরম ব্যর্থতা।
Total Reply(0)
মোহাম্মদ মোশাররফ ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১:৩৫ এএম says : 0
ইসলামী রাষ্ট্রে নিরাপত্তার বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ। এ রাষ্ট্রের নিরাপত্তার বিষয়টি শুধু বৈদেশিক আক্রমণের দিক থেকেই গুরুত্বপূর্ণ নয়, বরং অভ্যন্তরীণ দিক থেকে এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
Total Reply(0)
মোহাম্মদ কাজী নুর আলম ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১:৩৬ এএম says : 0
মানুষ, সমাজ ও রাষ্ট্রের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে, এমন কাজকে মহানবী (সা.) হারাম ঘোষণা করেছেন। অমুসলিমের নিরাপত্তার ব্যাপারে আল্লাহর নবী (সা.) বলেছেন, ‘(মুসলিম রাষ্ট্রে বৈধভাবে বসবাসকারী) কোনো অমুসলিমকে হত্যাকারী জান্নাতের ঘ্রাণ পাবে না।’ (বুখারি)
Total Reply(0)
মোঃ তোফায়েল হোসেন ১৬ নভেম্বর, ২০১৯, ১:৩৬ এএম says : 0
সমাজের মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য চোরের হাত কাটার বিধান, নারীর সম্ভ্রম রক্ষা, তাঁর সম্মান ও শরীরের নিরাপত্তার জন্য তাঁর প্রতি না তাকানোর বিধান ইসলামে সুস্পষ্ট। অর্থনৈতিক নিরাপত্তার বিষয়টিও ইসলামে গুরুত্বসহকারে বিবেচিত হয়েছে।
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন