ঢাকা, শুক্রবার , ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৮ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সউদী প্রবাসী নিখোঁজ সন্তানের জন্য অঝোরে কাঁদছেন মা

প্রবাসী কর্মীর লাশের জন্য প্রহর গুনছে পরিবার

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ নভেম্বর, ২০১৯, ৭:৫৬ পিএম

সউদী প্রবাসী নিখোঁজ সন্তান ফয়সালের সন্ধানে অঝোরে কাঁদছেন মা মরিয়ম বেগম। নরসিংদী সদর উপজেলার আলীপুর গ্রামের আব্দুর রহিম গাজীর সন্তান হারানোর দুশ্চিন্তায় মায়ের কান্নায় প্রতিবেশিরাও কাঁদছেন। গত ২৭ অক্টোবর দুপুরে মদিনার কর্মস্থল থেকে বাসায় ফেরার পথে প্রবাসী কর্মী ফয়সাল নিখোঁজ হয়। ফয়সালের কোনো সন্ধান না মেলায় তার পরিবার চরম হতাশায় ভুগছে।
নিখোঁজ সন্তানের জন্য মা মরিয়ম বেগম গত ১১ নভেম্বর পাগলের ন্যায় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে গিয়ে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডে লিখিত আবেদন পেশ করেন। বোর্ডের পরিচালক (প্রশাসন ও উন্নয়ন) উপ সচিব মো. জহিরুল ইসলাম গত ১২ নভেম্বর জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কাউন্সেলর (শ্রম) আমিনুল ইসলামকে লিখিতভাবে নিখোঁজ ফয়সালের সন্ধানের জন্য দ্রুত কার্যকরী উদ্যোগ নেয়ার তাগিদ দেয়। কিন্ত অদ্যাবধি কাউন্সেলর (শ্রম) নিখোঁজ ফয়সালের ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ নেয়নি। এতে নিখোঁজ ফয়সালের পরিবার চরম উৎকন্ঠায় ভুগছে। গতকাল সোমবার কুয়েতে কর্মরত নিখোঁজ ফয়সালের বড় ভাই কাওসার গাজী এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
নিখোঁজ ফয়সালের বন্ধু দেলোয়ার হোসেন মদিনা থেকে গত ২৮ অক্টোবর ফয়সালের মা মরিয়ম বেগমকে ফোন করে বলেন, দোয়া করেন, আমরা ফয়সালকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। তার রুমমেট কিশোরগঞ্জের গিয়াস উদ্দিন ঐ দিন রাতে বাসায় গিয়ে ফয়সালে মোবাইলে একধিক বার ফোন করলে সে ফোন ধরেনি।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নিখোঁজ ফয়সালের ভগ্নিপতি নাজিম উদ্দিন ও তার চাচা গত ৪ মার্চ ওমরাহ পালন করতে মদিনায় গেলে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। এতে নিখোঁজ ফয়সাল দুর্ঘটনায় নিহত ভগ্নিপতি ও তার চাচার মামলার বাদী হয়েছিল। মামলার শুনানিতেও সে কয়েকবার আদালতে হাজির হয়েছিল। দুর্ঘটনায় নিহত দ্বয়ের পরিবার উক্ত মামলায় ফয়সালের মাধ্যমেই ক্ষতিপূরণের টাকা পাওয়ার কথা ছিল।
এদিকে,সউদী আরবের বিভিন্ন স্থানে কয়েকজন প্রবাসী কর্মীর লাশ হাসপাতাল মর্গে পড়ে রয়েছে। জেদ্দাস্থ কনস্যুলেটের কাউন্সেলর (শ্রম) আমিনুল ইসলামের চরম উদাসিনতার দরুণ মৃত প্রবাসী কর্মীদের লাশ দেশে আনতে অহেতুক বিলম্ব হচ্ছে। গত ৩ অক্টোবর মদিনায় এক সড়ক দুর্ঘটনায় বগুড়ার আদমদিঘী উপজেলার পান্নাথপুর গ্রামের আব্দুর রশিদ মারা যায়। মৃত আব্দুর রশিদের বৃদ্ধ মা সামেনা বেয়া সন্তানের লাশ একজনর দেখার জন্য রাত দিন কান্নাকাটি করেন। মা সামেনার প্রবাসী সন্তানের লাশ দেখার ভাগ্যে যুটেনি। গত ১ নভেম্বর মৃত আব্দুর রশিদের মা সামেনা বেয়া ইন্তেকাল করেন। গতকাল মৃত আব্দুর রশিদের ভাই সাইফুল ইসলাম কান্না জড়িত কন্ঠে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, জেদ্দাস্থ কনস্যুলেটে কাউন্সেলর (শ্রম) এর সাথে বার বার যোগাযোগ করেও লাশ কবে নাগাদ দেশে আসবে তার কোনো সঠিক জবাব পাওয়া যায়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের একটি সূত্র জানায়, কনস্যুলেটের এসব কর্মকর্তারা প্রতি সপ্তাহে সউদীর বিভিন্ন অঞ্চলে তাদের কোনো কাজ না থাকার পরেও কনস্যুলার ট্যুরে গিয়ে লাখ লাখ টাকার বিল হাতিয়ে নিচ্ছে। অথচ প্রবাসী মৃত কর্মীদের লাশ দেশে পাঠাতে তাদের কোনো জোরালো তৎপরতা চোখে পড়ে না।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন