ঢাকা, শুক্রবার , ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৮ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

থানায় থানায় বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল

পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ঢাকা মহানগরের থানায় থানায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল (সোমবার) রাজধানীর বিভিন্ন থানায় এই কর্মসূচি পালন করেন দলটির নেতাকর্মীরা। শাহবাগ থানা বিএনপি’র একটি বিক্ষোভ মিছিল পল্টন প্রীতম হোটেলের সামনে থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নাইট এ্যাঙ্গেল মোড়ে গিয়ে শেষ হয়।

কামরাঙ্গীর চর থানার মিছিল থানা বিএনপি’র সভাপতি হাজী মনির হোসেন মনিরের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি ছাপড়া মসজিদ থেকে শুরু হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মুসলিমবাগ বেঁড়িবাধ গিয়ে শেষ হয়। কলাবাগান থানার মিছিল ঢাকা মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি ও থানা বিএনপি’র সভাপতি সিরাজুল ইসলাম সিরাজের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

সূত্রাপুর ও ওয়ারী থানা বিএনপি’র উদ্যোগে সূত্রাপুর থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইসলাম আজিজের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি জজ কোর্টের সামনে থেকে শুরু হয়ে জজ কোর্ট এলাকার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা পরিষদের সামনে গিয়ে শেষ হয়। কদমতলী থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি জুরাইন রেলগেট থেকে শুরু হয়ে মেইন রোড প্রদক্ষিণ করে খন্দকার মোড় গিয়ে শেষ হয়। ডেমরা থানা বিএনপি’র উদ্যোগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি’র সহ-সভাপতি ও থানা বিএনপির সভাপতি জয়নাল আবেদিন রতন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি’র সহ-সাধারণ সম্পাদক ও থানা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আকবর হোসেন ভুঁইয়া নান্টু, সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেমের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার থেকে শুরু হয়ে বামুল বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে শেষ হয়।
শ্যামপুর থানার বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও থানা বিএনপির সভাপতি আ ন ম সাইফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আলীম আল বারী জুয়েলের নেতৃত্বে দয়াগঞ্জ মোড় থেকে শুরু হয়ে বিভন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পোস্তগোলা নতুন সড়ক গিয়ে শেষ হয়। শ্যামপুর থানার অপর একটি বিক্ষোভ মিছিল জুরাইন রেলগেট থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পোস্তগোলা নতুন সড়ক গিয়ে শেষ হয়।

হাজারীবাগ থানা বিএনপি’র মিছিল থানা বিএনপি’র সভাপতি মজিবুর রহমান মজু ও সাধারণ সম্পাদক আ. আজিজের নেতৃত্বে বেঁড়িবাধ শিকদার মেডিক্যাল থেকে শুরু হয়ে টেনারি মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। গেন্ডারিয়া থানা বিএনপি’র বিক্ষোভ মিছিল লোহারপুল মোড় থেকে শুরু হয়ে এস কে দাস রোড, সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিলব্যারাকে গিয়ে শেষ হয়। বংশাল থানা বিএনপি’র একটি বিক্ষোভ থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মামুন আহমেদের নেতৃত্বে নর্থসাউথ রোড আলু বাজার মার্কেট থেকে শুরু হলে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে বংশাল রোডে এসে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও বংশাল বিএনপি’র সভাপতি তাজ উদ্দিন আহমেদ তাইজুর মুক্তির দাবিতে সংক্ষিপ্ত সভার মধ্য দিয়ে শেষ হয়।

রমনা থানা বিএনপি’র বিক্ষোভ মিছিল ১৯ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি আবু মোতালেব রুবেলের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি মগবাজার ওয়্যারলেস রেলগেট থেকে শুরু হয়ে মগবাজার মোড়ে এসে শেষ হয়।

ধানমন্ডি থানা বিএনপি’র মিছিল ধানমন্ডি থানা বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি কাবিরুল হায়দার চোধুরী ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহাদৎ হোসেন সৈকতের নেতৃত্বে সিটি কলেজ থেকে শুরু হলে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ধানমন্ডি জিগাতলা গিয়ে শেষ হয়। এ ছাড়াও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যাত্রাবাড়ী, মুগদা, পল্টন, মতিঝিল, সবুজবাগ, কোতয়ালী, চকবাজার, লালবাগ ও খিলগাঁও থানার নেতৃবৃন্দ বিক্ষোভ মিছিল করে।

একই কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির বাড্ডা থানা একটি প্রতিবাদ মিছিল গুলশান-বাড্ডা লিংক রোড থেকে শুরু হয়ে বাড্ডা সুবাস্তু টাওয়ারের সামনে শেষ হয়। রূপনগর থানা বিএনপির একটি মিছিল থানার সভাপতি মো. আব্দুল আউয়াল ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. মজিবুল হকের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

মোহাম্মদপুর থানা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি আতিকুল ইসলাম মতিনের নেতৃত্বে হয়। দক্ষিণখান থানার মিছিল থানা বিএনপির সভাপতি শাহাবুদ্দিন সাগরের নেতৃত্বে আসকোনা থেকে শুরু হয়ে হাজী ক্যাম্প গিয়ে শেষ হয়।

রামপুরা থানা বিএনপির প্রতিবাদ মিছিল খিলগাঁও বাজার থেকে শুরু হয়ে তালতলা মার্কেটে গিয়ে শেষ হয়। কাফরুল, ভাসানটেক ও ক্যান্টনমেন্ট থানা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল কাজীপাড়া মাদরাসা রোডে অনুষ্ঠিত হয়। মোহাম্মদপুর থানা বিএনপির আরেকটি মিছিল হাজী ইউসুফের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (11)
Benzir Hasan Kanak ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:১৮ এএম says : 0
কোন লাভ নাই ফকা!!
Total Reply(0)
মশিউর ইসলাম ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:১৯ এএম says : 0
বলুন ভারতীয় পেঁয়াজের জন্য আন্দোলন করছি! সারা বছর ভারত বিরোধী কথা বলেন আর খাবার বেলায় ভারতের পেঁয়াজ ছাড়া চলে না!
Total Reply(0)
মশিউর ইসলাম ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:২০ এএম says : 0
বলুন ভারতীয় পেঁয়াজের জন্য আন্দোলন করছি! সারা বছর ভারত বিরোধী কথা বলেন আর খাবার বেলায় ভারতের পেঁয়াজ ছাড়া চলে না!
Total Reply(0)
Khasru ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:২০ এএম says : 0
You should call for strike. You should give life for this. Then people will believe you.
Total Reply(0)
জোহেব শাহরিয়ার ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:২০ এএম says : 0
ভালো উদ্যোগ। জনগনের ইস্যুতে কথা বলতে হবে, কর্মসূচি দিতে হবে- ছোট বড় সকল ইস্যুতেই। জনগন যদি দেখে যে আপনারা জনগনের দল হয়ে উঠতে পেরেছেন, তবেই দলীয় ইস্যুতে বললে মানুষ সেটাও পাত্তা দিবে।
Total Reply(0)
সাইফুল ইসলাম চঞ্চল ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:২১ এএম says : 0
BNP realised it after a month . What a strong opposition party?
Total Reply(0)
H Rahman ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:২১ এএম says : 0
খাইছে রে!! যদিও দাম কমত আর মনে হয় কমেনে৷ আপনাদের দুই দলের কথা শুনলে যা ভাল লাগে, আপনাদের বক্তব্য গুলা হলিউড মুভির জনপ্রিয় ডায়ালগ বানানো যাবে
Total Reply(0)
মোহাম্মদ মোশাররফ ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:২১ এএম says : 0
পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সমাবেশ করতে চাইলে তাড়াতাড়ি করেন গো ভাইজান রা!মঙ্গলবারে পেঁয়াজ চলে আসতেছে!ফট করে দাম কমে যাবে তখন আর কারণ থাকবে না বিক্ষোভের।
Total Reply(0)
MHossain ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ১:২১ এএম says : 0
সরাসরি কোনো পেঁয়াজ খেতে এই সমাবেশ করলে ভালো হয়, ভিন্ন ধরণের প্রতিবাদ হবে আর কৃষকের মনও পাওয়া যাবে।
Total Reply(0)
khalilur ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ৮:১২ এএম says : 0
জনগণের কথা বলতে হবে
Total Reply(0)
আবু মহাদ রহমান ১৯ নভেম্বর, ২০১৯, ৮:১৩ এএম says : 0
জনগণের কথা বলতে হবে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন